অভিষেকের বাড়িতে হঠাৎ মমতা, তিনি বেরোতেই ঢুকল সিবিআই

অভিষেকের বাড়িতে হঠাৎ মমতা, তিনি বেরোতেই ঢুকল সিবিআই
অভিষেকের বাড়িতে পৌঁছল সিবিআই।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বেরোনোর কিছুক্ষণের মধ্যেই নিজাম প্যালেস থেকে শান্তিনিকেতন বিল্ডিংয়ে পৌঁছয় সিবিআই-এর প্রতিনিধিদল।

  • Share this:

    #কলকাতা: আজ শান্তিনিকেতন বিল্ডিংয়ে রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সিবিআই জেরা করতে আসার আগেই তাঁর বাড়িতে পৌঁছলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সূত্রের খবর, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মিনিট দশেকের মতো ছিলেন অভিষেকের বাড়িতে। তিনি বেরোনোর কিছুক্ষণের মধ্যেই নিজাম প্যালেস থেকে শান্তিনিকেতন বিল্ডিংয়ে পৌঁছয় সিবিআই-র প্রতিনিধিদল।

    সূত্রের খবর, এ দিন সকালে রুজিরার বাড়িতে যান তাঁর আইনজীবী। সেই সময় অভিষেক বাড়িতে ছিলেন না। তার ঘণ্টা দেড়েক পরে মমতা, অভিষেকের বাড়িতে পৌঁছে যেতেই প্রশ্ন ওঠে তিনি কি তবে সিবিআই জিজ্ঞাসাবাদের সময়েও অভিষেকের বাসভবনেই থাকবেন? যদিও কিছুক্ষণের মধ্যেই নাতনি আজানিয়ার হাত ধরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বাড়ি থেকে বেরিয়ে আসতে দেখা যায়। ফলে সব জল্পনার অবসান ঘটে। এর ঠিক মিনিট খানেকের মধ্যেই শান্তিনিকেতন বিল্ডিং-য়ে পৌঁছয় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার গোয়েন্দারা।। প্রসঙ্গত, দলে দুই মহিলা অফিসার রয়েছেন। এখনও রুজিরাকে সিবিআই আধিকারিকরা জিজ্ঞাসাবাদ করছেন। সূত্রের খবর, এ দিন তাঁর থেকে বিদেশি অ্যাকাউন্টের আর্থিক লেনদেনের বিষয়ে জানতে চান সিবিআই অফিসাররা। তাঁর দেওয়া তথ্যের সঙ্গে সিবিআই মিলিয়ে দেখতে চান তাঁর বোন মেনকার বয়ান।

    সূত্রের খবর, সিবিআই অফিসারদের সঙ্গে সংস্থার লিগাল অ্যাডভাইজরি সেলের তিন দুঁদে আইনজীবী রয়েছেন৷ তাঁদের মধ্যে দু' জনকে তড়িঘড়ি দিল্লি থেকে উড়িয়ে আনা হয়েছে৷


    প্রসঙ্গত, সোমবারই রুজিরার বোন তথা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের শ্যালিকা মেনকা গম্ভীরকে প্রায় আড়াই ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করেন সিবিআই-য়ের ছয় সদস্যের একটি একটি দল৷ সেই দলেও দুই মহিলা অফিসার ছিলেন৷ দলের নেতৃত্বে ছিলেন  সিবিআই-র অ্যাডিশনাল এসপি উমেশ কুমার৷ মঙ্গলবার রুজিরাকে জিজ্ঞাসাবাদের সময় এই ছ'জনের দলে আরও তিন আইনজীবী যুক্ত হন৷ অর্থাৎ রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সিবিআই-এর তরফে মোট ৯ জনের একটি দল মঙ্গলবার অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে আসেন।

    উল্লেখ্য, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রুজিরাকে সিবিআই-জেরার বিষয় নিয়ে প্রকাশ্যে একটি শব্দও খরচ করেননি। শুধু ভাষাদিবসের মঞ্চ থেকে তিনি বলেছিলেন, ধমকে চমকে লাভ হবে না। অন্য দিকে, অভিষেক ট্যুইটারে জানিয়েছিলেন, তাঁর পরিবারকে অবমাননা করতে চাইলে কোনও লাভ হবে না। দলের পক্ষ থেকে বিষয়টিকে সিবিআই-এর রাজনীতিকরণ বলা হয়। তৃণমূল যে এই বিষয়টিকে সহজ ভাবে নিচ্ছে না তা বুঝিয়ে দিচ্ছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বডি ল্যাঙ্গুয়েজ।

    Published by:Arka Deb
    First published:

    লেটেস্ট খবর