জোড়াঁসাকো থেকে গান্ধিমূর্তি অবধি পদযাত্রা, জল সংরক্ষণের বার্তা দিতে ‘জল দিবস’ পালন মুখ্যমন্ত্রীর

News18 Bangla
Updated:Jul 12, 2019 06:23 PM IST
জোড়াঁসাকো থেকে গান্ধিমূর্তি অবধি পদযাত্রা, জল সংরক্ষণের বার্তা দিতে ‘জল দিবস’ পালন মুখ্যমন্ত্রীর
News18 Bangla
Updated:Jul 12, 2019 06:23 PM IST

#কলকাতা: গোটা দেশ ভয়াবহ জলসঙ্কটের মুখোমুখি ৷ আশঙ্কায় এরাজ্যের ভবিষ্যতও ৷ কলকাতা-সহ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে কমছে ভূগর্ভস্থ জলের স্তর। এমনকি গত বর্ষাতেও জলে স্তর নেমে গিয়েছে। এতে চিন্তায় নবান্ন। উদ্বিগ্ন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও ৷  জল সঙ্কট মোকাবিলায় পথে নামলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁরই উদ্যোগে এখন থেকে ১২ জুলাই রাজ্যে পালিত হবে জল বাঁচাও দিবস।

জল সংরক্ষণের দাবিতে এদিন ১২ জুলাই জোড়াসাঁকো থেকে গান্ধিমূর্তি অবধি চলে পদযাত্রা ৷ হাঁটলেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রীও ৷ সঙ্গে ছিলেন তৃণমূলের নেতা-মন্ত্রীরা সহ বুদ্ধিজীবীরাও ৷ এদিন তিনি বলেন-  ‘অনেকেই প্রতিশ্রুতি দিয়ে পূরণ করে না ৷ আমি প্রতিশ্রুতি দিলে পূরণ করি ৷ জল সংরক্ষণের জন্য জল ধরো, জল ভরো প্রকল্প করেছি ৷’ একইসঙ্গে সবুজ বাঁচানোর আর্জিও করেছেন তিনি ৷ স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ‍্যোপাধ‍্যায়ের লেখা কবিতার ভাষায় এদিন শপথও নিয়েছেন মিছিলে অংশগ্রহণকারীরা। আগামী প্রজন্মের দিকে তাকিয়েই রাজ‍্যে শুরু হল জল বাঁচাও দিবস।

নীতি আয়োগের রিপোর্ট বলছে, ২০২১ সালের মধ্যে দিল্লি, বেঙ্গালুরু, চেন্নাই এবং হায়দরাবাদের মতো শহরে ভূগর্ভস্থ জল ফুরিয়ে যাবে ৷ এ রাজ্যের ছবিটাও উদ্বেগ বাড়াচ্ছে। সেচমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর দাবি, রাজ্যের ৩৪১টি ব্লকের মধ্যে প্রায় ৫০টি ব্লকে ভূগর্ভস্থ জলস্তর কমে গেছে।

বিশেষজ্ঞদের দিয়ে এ নিয়ে সমীক্ষাও চালায় রাজ্য সরকার। সেই সমীক্ষার রিপোর্ট সম্প্রতি নবান্নের হাতে এসেছে। সেই রিপোর্ট বলছে, ২০০১ সাল থেকে রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় ভূগর্ভস্থ জলস্তর কমতে শুরু করে ৷ ২০১৫ সাল থেকে যা উদ্বেগের কারণ হয়ে ওঠে ৷ ২০১৯ সালের রিপোর্ট চিন্তা আরও বাড়িয়েছে। চেন্নাইয়ের আন্না বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা রিপোর্ট বলছে, কলকাতা নিয়েও উদ্বেগ রয়েছে। কারণ, লেকগার্ডেন্স, গলফগ্রিন, যাদবপুর, সন্তোষপুর, টালিগঞ্জ, বেহালা, গড়িয়া, বাঁশদ্রোণি, সল্টলেক, নিউটাউন, লেকটাউন, বাঙুর, বিটি রোড, বাগুইআটির একাংশ এবং ই এম ৷

এই পরিস্থিতি মোকাবিলায় রাজ্যের তিনটি দফতর এবার সমন্বয় রেখে কাজ করবে। এ দেশে জলের যা চাহিদা তার ৪০ শতাংশই মেটায় ভূগর্ভস্থ জল। এ রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় সেই ভূগর্ভস্থ জলের মাত্রা কমতে থাকা যথেষ্ট চিন্তার বলেই মত পরিবেশবিদদের।

First published: 04:52:35 PM Jul 12, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर