Mamata on Yaas: ইয়াস মোকাবিলায় কতটা প্রস্তুত প্রশাসন? আগাম কী কী সতর্কতা নেওয়া হলো, জানালেন মমতা

ধেয়ে আসছে ইয়াস। ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ের দাপট থেকে বাঁচতে প্রশাসন কতটা প্রস্তুত। সাংবাদিক বৈঠকে জানালেন মমতা।

ধেয়ে আসছে ইয়াস। ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ের দাপট থেকে বাঁচতে প্রশাসন কতটা প্রস্তুত। সাংবাদিক বৈঠকে জানালেন মমতা।

  • Share this:

    #কলকাতা: ক্রমশ এগিয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ইয়াস (Yaas)। ইতিমধ্যেই দিঘায় দাপট দেখাতে শুরু করেছে এই ঝড় এবং বেশ কিছু জায়গায় মাঝারি থেকে বৃষ্টিও হয়েছে। বুধবার ইয়াসের গতিবেগ উত্তর বঙ্গোপসাগরে ১৯০ কিলোমিটার হতে পারে সতর্ক করেছেন আবহাওয়াবিদরা। এই অবস্থায় ইয়াস মোকাবিলায় রাজ্য কতটা প্রস্তুত, সোমবার সাংবাদিক বৈঠকে তার ব্লুপ্রিন্ট দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)।

    ঝড়ে প্রত্যেককে সতর্ক থাকতে বলেন মুখ্যমন্ত্রী। ইতিমধ্য়েই পশ্চিমবঙ্গের উপকূলবর্তী অঞ্চলগুলিতে বসবাসকারী মানুষকে সরানো শুরু হয়ে গিয়েছে বলে জানান তিনি। আমফানের থেকেও এই ঘূর্ণিঝড় বড় বলে সাবধান করেন মমতা। এই ঝড়ে ২০টি জেলা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে বলে আশঙ্কা তাঁর। ২৪ ঘণ্টা দুর্যোগ কন্ট্রোল রুম খোলা থাকছে। এবং প্রতিনিয়ত পরিস্থিতি কোন দিকে এগোচ্ছে সেদিকে নজর রাখা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

    তাঁর কথায়, "এখন থেকেই একটা দুর্যোগের আশঙ্কা আছে। ৭২ ঘণ্টা চলবে। সুন্দরবন এলাকা, দক্ষিণ ২৪ পরগনা,উত্তর ২৪ পরগনা এলাকা থেকে মানুষকে নিরাপদ এলাকায় সরানো হচ্ছে। ২০ টি জেলায় দাপট থাকবে ঝড়। সাইক্লোনও চলবে, বৃষ্টিও চলবে।" মৎস্যজীবীদের বার বার সমুদ্রে যেতে না করেছেন তিনি।

    মমতা বলছেন, "৫১ টি ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট টিম করেছি। কাল থেকে আমরা ৪৮ ঘণ্টা মনিটরিং করব। ত্রান প্রস্তুত রেখেছি। যতটা পারবো ততটা চেষ্টা করবো। ৪ হাজার সাইক্লোন সেন্টার করেছি। এটা আমফানের থেকে বড় হতে চলেছে বলেই খবর আছে।" মুখ্যমন্ত্রী জানান, পাওয়ার রেস্টোরেশন টিম ১ হাজারটি প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে। তিনি বলছেন, "৪৫০ টেলিকম প্রস্তুত করেছি। ১০ লক্ষ মানুষকে সরানো হবে এমনই টার্গেট রেখেছি।"

    গত বার আমফানের পরে বেশ কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ চলে যায়। যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যাপক ভাবে ব্যাহত হয়। মমতা বলছেন, "ডিসাস্টার হওয়ার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই যদি বলা শুরু করেন কারেন্ট নেই জল নেই এটা সহযোগিতা হবে না। একটু ধৈর্য ধরা দরকার।" পাশাপাশি তিনি আশ্বস্ত করে বলেছেন, "ভয় পাওয়ার দরকার নেই। ঝড় জল হলে অনেক সময় বিদ্যুৎ এর তার পড়ে থাকে। CESC-এর একটা বড় টিম রেডি করে রাখা হয়েছে। যত এজেন্সি আছে সবাই কে রেডি থাকতে বলেছি। সেনাকে প্রস্তুত থাকতে বলেছি। ঝড় হলে বড়ো বড়ো গাছ পরে গেলে কাটতে সময় লাগবে। আমরা তৈরি আছি। কাল পরশু উপান্ন থেকে নজরদারি করবো।"

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published: