কলকাতা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

এ রাজ্যে থাকতে কোনও সার্টিফিকেট লাগবে না, মতুয়া-গড় থেকে বার্তা মমতার

এ রাজ্যে থাকতে কোনও সার্টিফিকেট লাগবে না, মতুয়া-গড় থেকে বার্তা মমতার
বনগাঁর সভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মতুয়া-মহলে সিএএ, নাগরিকত্ব এই দুই বাণেই বিরোধীদের বিঁধলেন তৃণমূল সুপ্রিমো। তাঁর মুখে এল বহিরাগত তত্ত্বও।

  • Share this:

#বনগাঁ: মেদিনীপুর,বর্ধমানের পর উত্তর চব্বিশ পরগণার সভায় ভিড় হয়েছিল ভালোই। গোপালনগরের সভায় হাই ভোল্টেজ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভা কেমন হবে, তাই নিয়ে জল্পনা ছিল। আজ বুধবার, মুখ্যমন্ত্রীর সভা ঘিরে ব্যাপক উত্তেজনা দেখা গেল গোপালনগর। মতুয়া-মহলে সিএএ, নাগরিকত্ব এই দুই বাণেই বিরোধীদের বিঁধলেন তৃণমূল সুপ্রিমো। তাঁর মুখে এল বহিরাগত তত্ত্বও।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এনআরসি উবাচ

তৃণমূল নেত্রী স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতেই এদিন গোপালনগর থেকে বলেন, "এনআরসি, এনপিআর করতে দেব না। আমি নিজে আমার মায়ের জন্মতারিখ জানি না। আপনারা কোথা থেকে বলবেন। বাংলাকে গুজরাট বানানো হবে না। মতুয়ারা এ দেশের নাগরিক, তাঁদের এ রাজ্যে থাকতে কাউকে নতুন করে শংসাপত্র দিতে হবে না।"

মমতার মুখে বহিরাগত তত্ত্ব

ভোটপ্রচারে আসা বিজেপির পর্যবেক্ষকদের প্রসঙ্গে মমতার বক্তব্য, এরা বহিরাগত,এরা বাংলার লোক নয়। পয়সার লোভ দেখাচ্ছে ভোটের লোভে। আর নয় ভয় দেখাচ্ছে। রাজনৈতিক ভাবে লড়াই করার ক্ষমতা নেই ওদের।

কাজের খতিয়ান

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, মতুয়া উন্নয়ন বোর্ড তৈরি হয়েছে। বাগদি বাউরিদের জন্য কাজ করেছে রাজ্য সরকার। এসসি এসটি সার্টিফিকেটের কাজ সরলীকরণ করা হয়েছে। তিনি বলেন, হরিচাঁদ ঠাকুরের জন্মদিনে ছুটি ঘোষণা করবে রাজ্য সরকার। পাশাপাশি তিনি জানান, হরিচাঁদ-গুরুচাঁদ বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে।

গোপালনগর থেকে মমতার বার্তা, "ছিন্নমূল মানুষদের রাখতে চাই। কোনও সার্টিফিকেট দরকার নেই। ক্যা-এর নামে প্রতারণা করছে। আমি বাংলার মুখ্যমন্ত্রী, আমি বলছি নতুন করে কোনও সার্টিফিকেট দরকার নেই।" পাশাপাশি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন মতুয়া পরিবারে ভাঙনের জন্য দায়ী করেন বিজেপিকেও। কথায় কথায় আসে কৃষক আন্দোলনের প্রসঙ্গ। তিনটি কৃষি আইনের অনৈতিকতার দিকগুলিকে চিহ্নিত করেন তিনি। বিনে পয়সার রেশনের প্রতিশ্রুতি দিলেন তিনি। তাঁর মুখে সরকারি কাজের বয়ান হিসেবে আসে ডিএ-এর কথা। কন্যাশ্রী বা স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পগুলির উপযোগিতার কথাও ছুঁয়ে যান মমতা। পাশাপাশি জিএসটি-র সাড়ে আট হাজার টাকা কোটি টাকা পাওনা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে আরও একবার ক্ষোভ উগড়ে দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

২০১৯ সালের লোকসভা ভোটে এই বনগাঁ কেন্দ্রে দাপট দেখাতে পারেনি ঘাসফুল। কিন্তু গত এক বছরে নয়া নাগরিকত্ব আইন নিয়ে মতুয়া-মহলে অসন্তোষেরও হাওয়া রয়েছে মানেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। এই পরিস্থিতিকে মমতার ভোক্যাল টনিকে কি কাজ হবে? আত্মবিশ্বাসী তৃণমূল।

Published by: Arka Deb
First published: December 9, 2020, 2:37 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर