corona virus btn
corona virus btn
Loading

'আপনার মনে হলে জ্বালাবেন, নাহলে ঘুমোবেন', মোমবাতি নিয়ে মমতা

'আপনার মনে হলে জ্বালাবেন, নাহলে ঘুমোবেন', মোমবাতি নিয়ে মমতা
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ PHOTO- FILE

এ দিনের সাংবাদিক বৈঠকেও করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে কেন্দ্রের ভূমিকা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী৷

  • Share this:

#কলকাতা: করোনা সংক্রমণ রোখার লড়াইয়ে তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের পাশে থাকবেন৷ প্রথম থেকেই এই বার্তা দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ করোনা মোকাবলিায় কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে পরিকাঠামোগত অসহযোগিতার অভিযোগ তুললেও বিষয়টিতে রাজনীতি ঢুকতে দেননি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী৷ কিন্তু আগামী ৫ এপ্রিল রাতে মোমবাতি জ্বালানোর যে আবেদন প্রধানমন্ত্রী এ দিন করেছেন, তাতে যে তাঁর সমর্থন নেই এ দিন পরোক্ষে তা বুঝিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ প্রধানমন্ত্রীর আবেদন নিয়ে সংক্ষিপ্ত প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে তিনি বলেন, 'এটা যাঁর যাঁর ব্যক্তিগত বিষয়৷ আমার যদি মনে হয় আমি তখন ঘুমোব৷'

রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে এ দিন নবান্নে সাংবাদিক বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী৷ সেখানেই আগামী রবিবার রাত ৯টায় ন' মিনিট আলো নিভিয়ে মোমবাতি, টর্চ জ্বালানোর জন্য প্রধানমন্ত্রীর আবেদন নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর প্রতিক্রিয়া জানতে চান সাংবাদিকরা৷ কিছুটা ক্ষুব্ধ হয়েই মমতা জবাবে বলেন, 'আমি আমার কথা বলব, প্রধানমন্ত্রী তাঁর কথা বলবেন৷ আমি প্রধানমন্ত্রীর কথায় কীভাবে নাক গলাব? রাজনৈতিক যুদ্ধ লাগাবেন না৷ আপনার যদি ভাল মনে হয় আপনি করুন না৷ আমার যদি মনে হয় আমি তখন ঘুমোব, এটা যার যার ব্যক্তিগত ব্যাপার৷'

এ দিনের সাংবাদিক বৈঠকেও করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে কেন্দ্রের ভূমিকা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী৷ তাঁর অভিযোগ, করোনা মোকাবিলায় রাজ্যকে এখনও একটি মাস্কও দেয়নি কেন্দ্র৷ একই সঙ্গে বিজেপি-র নাম না করে তাঁর অভিযোগ, করোনার বিরুদ্ধে রাজ্য সরকারের উদ্যোগকে কেন্দ্রের নামে চালানোর চেষ্টা করা হচ্ছে৷

মুখ্যমন্ত্রী এ দিন নবান্নে জানিয়েছেন, রাজ্য সরকার নিজের উদ্যোগে পিপিই, মাস্কের মতো চিকিৎসা সরঞ্জাম তৈরি করাচ্ছে৷ তা জেলা জেলায় বিভিন্ন হাসপাতাল, স্বাস্থ্যকর্মী এবং পুলিশকর্মীদেরও দেওয়া হচ্ছে৷ করোনা নিয়ন্ত্রণে জরুরি পরিষেবা চালু রেখে যেভাবে রাজ্যে সফলভাবে লকডাউন কার্যকর করা হয়েছে, তা গোটা দেশের কাছে মডেল বলে দাবি করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ কলকাতার এম আর বাঙুর হাসপাতালকেও পুরোপুরি করোনা চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করা হবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ বাঙুর হাসপাতালে যে রোগীরা ভর্তি আছেন, তাঁদেরকে এসএসকেএম, শম্ভুনাথ পণ্ডিত এবং পুলিশ হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

Published by: Debamoy Ghosh
First published: April 3, 2020, 6:20 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर