• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • MAMATA BANERJEE EXPLAINS WHY SHE CONTINUED HER IMAGE OF OPPOSITION LEADER EVEN AFTER COMING TO POWER DMG

Mamata Banerjee: সরকারে এসেও কেন লড়াকু ভাবমূর্তি? নতুনদের রাজনীতিতে উৎসাহ দিয়ে ব্যাখ্যা মমতার

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

এ দিন তৃণমূলনেত্রীর কথায় ছাত্র যুবদের রাজনীতি বিমুখতা নিয়েও হতাশা ফুটে ওঠে (Mamata Banerjee)৷

  • Share this:

    #কলকাতা: মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পরেও বিভিন্ন ইস্যুতে এখনও আন্দোলন করতে রাস্তায় নেমে পড়েন তিনি৷ সর্বভারতীয় ক্ষেত্রেও কেন্দ্রের মোদি সরকারের বিরুদ্ধে প্রধান বিরোধী মুখ হয়ে উঠেছেন তিনি৷ দশ বছর রাজ্য শাসন করার পরেও মাঝে মধ্যেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মধ্যে বিরোধী নেত্রীর গুণাগুণগুলিই যেন ফুটে ওঠে৷ মুখ্যমন্ত্রীর প্রশংসক, সমালোচকদের অনেকেই এ কথা স্বীকার করেন৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এ দিন নিজেই জানালেন, মানুষের কাজ করতেই লড়াই, আন্দোলনের পথ থেকে সরে আসেননি তিনি৷

    তৃণমূল ছাত্র পরিষদের প্রতিষ্ঠা দিবসে ভার্চুয়াল বক্তৃতা রাখতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, 'এখনও আমরা লড়াই করে যাচ্ছি৷ আজকে তো আমরা সরকারে আছি, শুধু ভোগ করতে পারি৷ কিন্তু আমি লড়াইয়ের পথ থেকে সরে আসিনি৷ কারণ আমি মনে করি সরকারে এসে আমাদের চ্যালেঞ্জ আরও বেড়ে গিয়েছে৷ বিরোধী দলে থেকে প্রাণপাত পরিশ্রম করেছি৷ লাঠি, গুলি কিছুই বাদ যায়নি৷ তবু আমরা কখনও দমিনি৷ আজ ক্ষমতায় থাকলেও মানুষের কাজ করা এবং মানুষকে ভালবাসা প্রধান কাজ৷'

    এ দিন তৃণমূলনেত্রীর কথায় ছাত্র যুবদের রাজনীতি বিমুখতা নিয়েও হতাশা ফুটে ওঠে৷ মুখ্যমন্ত্রী বলেন, 'গত দশ পনেরো বছর ধরে দেখছি আমাদের পরের থেকে ছাত্র যৌবন সেভাবে রাজনীতিতে এগিয়ে আসছে না৷ রাজনীতিতে নতুন সমীকরণ হোক, নতুন সংস্কার হোক৷ রাজনীতিটা মানুষের সেবার, সম্মানের,মানবিকাতার, সভ্যতার জায়গা হোক৷'

    দলের ছাত্র সংগঠনের প্রতিষ্ঠা দিবসের বক্তব্য রাখতে গিয়ে নিজের ছাত্র রাজনীতির জীবনের স্মৃতিও তুলে ধরেন তৃণমূলনেত্রী৷ পাশাপাশি জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের ভূমিকার সমালোচনা করতে গিয়ে অতীতে নিজের একুশ দিনের আন্দোলনের প্রসঙ্গও টেনে আনেন তিনি৷ স্মৃতিকাতর হয়ে সুব্রত বক্সি, পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের মতো পুরনো সঙ্গীদের কথাও বলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ তিনি বলেন, 'গত তিরিশ চল্লিশ বছর একসঙ্গে কাজ করছি৷ যাঁরা একসঙ্গে মূল স্রোতে ছিলাম, তাঁরা কেউ ছেড়ে যায়নি৷ যাঁরা গিয়েছেন তাঁরা আবার ফিরে এসেছেন৷ কারণ তাঁরা জানেন এটা ভালবাসার ঘর৷ এই ভালবাসা আর কোথাও পাওয়া যাবে না৷'

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: