গুজরাতের নির্বাচনীর ফলের জন্য হার্দিককে শুভেচ্ছা জানাতে ফোন মমতার

গুজরাতের নির্বাচনীর ফলের জন্য হার্দিককে শুভেচ্ছা জানাতে ফোন মমতার

Hardik Patel

গুজরাতের নির্বাচনীর ফলের জন্য হার্দিককে শুভেচ্ছা জানাতে ফোন মমতার

  • Share this:

     #কলকাতা: গুজরাতে ভালো ফলের জন্য পতিদার আন্দোলনের নেতা হার্দিক পটেলকে ফোন করে শুভেচ্ছা জানালেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ হার্দিকের সমর্থন সত্ত্বেও গুজরাতে ক্ষমতা দখলে ব্যর্থ কংগ্রেস, তবে বিজেপির বিজয় রথের গতি কিছুটা হলেও স্লথ করে আগেরবারের থেকে বেশি আসনে জিতেছে হাত শিবির ৷ আর জয়ের পিছনে অবদান রয়েছে বছর তেইশের এই দাপুটে নেতা হার্দিকের ৷

    এত কম বয়সে এমন রাজনৈতিক জ্ঞান মুগ্ধ করেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও ৷ এদিন ফোন করে হার্দিকের কাজের জন্য তার প্রশংসা করেন তৃণমূল সুপ্রিমো ৷ দলীয় সূত্রে খবর, বেশ অনেকক্ষণ কথা হয় তাদের মধ্যে ৷

    সৌরাষ্ট্র কংগ্রেসের ভোটব্যাঙ্ক বাড়ানোর পিছনে হাত রয়েছে পতিদার আন্দোলনের এই তরুণ নেতা হার্দিকের ৷ রাজনীতিবিদদের মতে, হার্দিকের জন্যই সৌরাষ্ট্র-কচ্ছে আসন বেড়েছে কংগ্রেসের ৷ তাই এই তরুণ নেতার হাত ধরেই ২০১৯-এর জন্য সংগঠন মজবুত করতে চাইছে হাত শিবির ৷ এমতাবস্থায় তৃণমূল নেত্রীর ফোন নয়া কোনও রাজনৈতিক সমীকরণের ইঙ্গিত দিচ্ছে বলেই মত রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের ৷

    গুজরাতে হাত ও পদ্মের হাড্ডাহাড্ডি লড়াই ৷ ফলাফলে বিজেপি বাজিমাত করলেও চমকে দিয়েছে কংগ্রেস ৷ শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত টানটান প্রতিযোগিতা। পিছিয়ে পড়েও বারবার ফিরে এল কংগ্রেস। ফল গুজরাতে একশো আসনের নীচেই থামতে হল বিজেপিকে।গুজরাত দখলে ১৫০ আসনের লক্ষ্যমাত্রা বেঁধে দিয়েছিলেন অমিত শাহ। বাস্তবে ১০০ আসনের নীচেই থামতে হল গেরুয়া শিবিরকে। উলটে গেল মোদি-শাহ জুটির সব হিসাব। গ্রামীণ গুজরাতে ধস, ওবিসি ভোটব্যাঙ্কে ফাটল - এসব বোধহয় ভাবতেই পারেননি অমিত শাহরা।

    গুজরাতে বিকাশ পাগল হয়ে গিয়েছে। এই স্লোগানকেই এবার হাতিয়ার করেছিল কংগ্রেস। উন্নয়নের তরজায় মাঠে নামেন হার্দিক, অলপেশ এবং জিগনেশও। বিজেপি-র ২২ বছরের শাসনে পতিদার, পিছড়েবর্গ ও দলিতদের কোনও উন্নয়ন হয়নি। বিজেপির পাল্টা প্রচার, উন্নয়ন বিরোধী কংগ্রেস। মোদির আক্রমণের তিরে বিদ্ধ কংগ্রেসের পরিবারতন্ত্রও। তবে, গুজরাতের গ্রামীণ এলাকায় বিজেপির এই কৌশল কাজ দেয়নি। বেশিরভাগ গ্রামীণ আসনেই জয়ী কংগ্রেস।

    পটেল, পতিদার ইস্যু, জিএসটি-নোট বাতিল, গ্রামীণ এলাকায় তীব্র বৈষম্য - একাধিক ফ্যাক্টরও বারবার বাধা হয়েছে বিজেপির পথে। গ্রামীণ গুজরাতে বঞ্চনার অভিযোগ নিয়ে অস্বস্তি ছিল বিজেপিতে। ইভিএমেও তারই প্রতিফলন স্পষ্ট।

    First published:

    লেটেস্ট খবর