মৃত ডিওয়াইএফআই কর্মীর পরিবারকে চাকরি, আর্থিক সাহায্যের আশ্বাস! প্রশ্নও তুললেন মমতা

মৃত ডিওয়াইএফআই কর্মীর পরিবারকে চাকরি, আর্থিক সাহায্যের আশ্বাস! প্রশ্নও তুললেন মমতা
মৃত ডিওয়াইএফআই কর্মী মইদুল ইসলাম মিদ্দার পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাস মুখ্যমন্ত্রীর৷

ওই ডিওয়াইএফআই কর্মী আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরে কেন তাঁর পরিবারকে খবর দেওয়া হয়নি, সেই প্রশ্ন তুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

  • Share this:

    #কলকাতা: নবান্ন অভিযানে গিয়ে মৃত যুবক মইদুল ইসলাম মিদ্দার পরিবারকে সাহায্য করতে তৈরি রাজ্য সরকার৷ এ দিন নবান্নে এই ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তিনি জানিয়েছেন, প্রয়োজনে মৃত ডিওয়াইএফআই কর্মীর পরিবারকে চাকরি এবং আর্থিক সাহায্য করতে প্রস্তুত রাজ্য৷ মৃতের পরিবার সম্মতি দিলেই এ বিষয়ে এগোবে সরকার৷

    ডিওয়াইএফআই কর্মীর মৃত্যুর ঘটনায় দুঃখপ্রকাশও করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ তিনি জানিয়েছেন, এ বিষয়ে যথাযথ তদন্ত করে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ খুঁজে বের করা হবে৷ সত্যিই পুলিশের মারে মৃত্যু কি না, তাও দেখা হবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ এ দিন সকালেই মইদুলের মৃত্যুর খবর পেয়ে তিনি বাম পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তীকে ফোন করেছিলেন বলে জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷


    তবে সত্যিই পুলিশের মারে ডিওয়াইএফআই কর্মীর মৃত্যু হয়েছে কি না, সে বিষয়েও সংশয় প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ মইদুলের চিকিৎসার দায়িত্বে থাকা সিপিএম নেতা এবং চিকিৎসক ফুয়াদ হালিম দাবি করেছিলেন, পুলিশের মারে গুরুতর আঘাতে মইদুলের কিডনির সমস্যা দেখা দেয়৷ যার জেরেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে৷ মুখ্যমন্ত্রী এ দিন নবান্নে বলেন, 'আগে থেকেই ওঁর কিডনির কোনও সমস্যা ছিল কি না, সেটাও দেখতে হবে৷'

    এর পাশাপাশি ওই ডিওয়াইএফআই কর্মী আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরে কেন তাঁর পরিবারকে খবর দেওয়া হয়নি, সেই প্রশ্ন তুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ আবার যে নার্সিং হোমে ওই ডিওয়াইএফআই কর্মী চিকিৎসাধীন ছিলেন সেখান থেকেও কেন স্থানীয় থানায় বিষয়টি জানানো হল না, তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

    মুখ্যমন্ত্রী বলেন, 'তিন দিন আগে একটা ছেলে আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হল, পরিবারকে- পুলিশকে জানানো হবে না?  আদৌ কী করে মারা গিয়েছে সেটা ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে৷ আমি কোনও মৃত্যুকে সমর্থন করি না৷ আমি সুজন চক্রবর্তীকে জানিয়েছি, গরিব পরিবার৷ মৃত্যুর কারণ যাই হোক না কেন আমরা পরিবারের একজনকে চাকরি দিতে তৈরি৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: