Mukul Roy: মমতার 'নরম' বার্তা, অভিষেকের সৌজন্য! যেভাবে তৈরি হল ঘরে ফেরার মঞ্চ

মমতা- অভিষেকের ইচ্ছেতেই ফিরলেন মুকুল?

মুকুল রায়ের (Mukul Roy) যে আর বিজেপি-তে মন নেই সেই খবর দিল্লিতে বিজেপি-র শীর্ষ নেতাদের কাছেও পৌঁছেছিল৷ বিজেপি-র গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকেও গরহাজির থাকছিলেন মুকুল৷

  • Share this:

    #কলকাতা: বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারে লাগাতার শুভেন্দু অধিকারী, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়দের গদ্দার, মীরজাফরের মতো তকমা দিয়ে আক্রমণ করে গিয়েছেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ কিন্তু কখনওই সেভাবে মুকুল রায়কে আক্রমণ করেননি তিনি৷ বরং বিজেপি-তে 'কোণঠাসা' মুকুলের জন্য প্রকাশ্যেই সহানুভূতির সুর শোনা গিয়েছিল মুখ্যমন্ত্রীর গলায়৷ ভোট প্রচারে গিয়ে মুকুল সম্পর্কে মমতা বলেছিলেন, 'মুকুলকে ভোটে লড়তে সেই কৃষ্ণনগরে পাঠিয়ে দিয়েছে৷ মুকুল অতটাও খারাপ নয়৷'

    মমতার এই মন্তব্যের পরই রাজনৈতিক মহলে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছিল, তবে কি মুকুল সম্পর্কে নরম তৃণমূলনেত্রী? সেই জল্পনাকে সত্যি করেই আজ, শুক্রবার পুরনো দল তৃণমূলে যোগ দিচ্ছেন মুকুল রায়৷

    তবে শুধু মুখ্যমন্ত্রীর এই নরম বার্তা নয়, মুকুলের তৃণমূলে ফেরার পটভূমি তৈরি হচ্ছিল গত বেশ কয়েকদিন ধরেই৷ বিজেপি-তে মুকুল যত কোণঠাসা হয়েছেন, ততই সেই সম্ভাবনা বেড়েছে৷

    বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপি-তে সেভাবে সক্রিয় হতে দেখা যায়নি মুকুল রায়কে৷ কারণ তাঁকেই দল কৃষ্ণনগর উত্তর কেন্দ্রে প্রার্থী করে দিয়েছিল৷ যা মুকুলের ক্ষোভ এবং হতাশা চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছে দেয় বলে তাঁর ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে খবর৷ এরই মধ্যে মুকুল এবং তাঁর স্ত্রী কৃষ্ণা রায় নির্বাচনের পর করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সৌজন্য গোটা বিষয়টিতে অন্য মাত্রা যোগ করে৷ মুকুল রায়ের স্ত্রী গুরুতর অসুস্থ হওয়ার খবর পেয়ে তাঁকে দেখতে হাসপাতালে পৌঁছে যান স্বয়ং অভিষেক৷ সেখানে মুকুল পুত্র শুভ্রাংশু রায়ের সঙ্গে কথা বলে পাশে থাকার বার্তা দেন তিনি৷ অন্যদিকে শুভ্রাংশু নিজেই জানান, মমতা নিজে ঘনিষ্ঠ মহলের মাধ্যমে মুকুল ভ্যাকসিন নিয়েছেন কি না, ঠিকমতো খাওয়া দাওয়া করছেন কি না, সেই খবর নিয়েছেন৷ ফলে মুকুলের জন্য তৃণমূলের দরজা যে হাট করেই খোলা রয়েছে, সেই বার্তা স্পষ্টতই ছিল৷ এর পরে মুকুলের তৃণমূলে যোগদান সময়ের অপেক্ষা বলেই ধরে নিয়েছিল রাজনৈতিক মহল৷ তবে বিষয়টি এতটা আচমকা হয়ে যাবে তা হয়তো আঁচ করতে পারেননি বিজেপি নেতারাও৷

    তবে মুকুলের যে আর বিজেপি-তে মন নেই সেই খবর দিল্লিতে বিজেপি-র শীর্ষ নেতাদের কাছেও পৌঁছেছিল৷ বিজেপি-র গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকেও গরহাজির থাকছিলেন মুকুল৷ মুকুল রায়ের স্ত্র ীর শারীরিক অবস্থার খোঁজ নিতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় হাসপাতালে পৌঁছনোর পরে মুকুলকে ফোন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ অভিষেক হাসপাতালে যাওয়ার কিছুক্ষণ পরই সেখানে যান বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ৷ তবে দিলীপবাবু হাসপাতালে আসার আগে তাঁদের কিছু জানাননি বলে স্পষ্ট জানিয়ে দেন মুকুল এবং তাঁর ছেলে শুভ্রাংশু৷ ফলে তা নিয়েও অস্বস্তিতে পড়ে বিজেপি৷ তবে শেষ মুহূর্তে বিজেপি নেতারা ড্যামেজ কন্ট্রোলের চেষ্টা করলেও ততক্ষণে অনেকটাই দেরি হয়ে গিয়েছে৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: