corona virus btn
corona virus btn
Loading

মা উড়ালপুলে মাঞ্জা সুতোয় গলা কেটে বাইক আরোহীর মৃত্যুতে মামলা রুজু পুলিশের

মা উড়ালপুলে মাঞ্জা সুতোয় গলা কেটে বাইক আরোহীর মৃত্যুতে মামলা রুজু পুলিশের

সূত্রের খবর, রবিবার এই ঘটনায় বেনিয়াপুকুর থানা ৩০৪-এ ধারায় গাফিলতির জেরে অনিচ্ছাকৃত মৃত্যুর মামলা রুজু করেছে। যদিও এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।

  • Share this:

#কলকাতা: মা উড়ালপুলে মোটরবাইকে যাতায়াতের সময় ঘুড়ির চিনা মাঞ্জা সুতো গলায় জড়িয়ে যাওয়ার ঘটনা নতুন কিছু নয়। আগে অনেকেই এধরনের ঘটনায় গুরুতরভাবে জখম হয়েছেন। কিন্তু শনিবারের ঘটনায় একইরকমভাবে চিনা মাঞ্জা সুতো জড়িয়ে যাওয়ায় গলা কেটে মৃত্যু হয়েছে আখতার খানের (৪৫)। তাই এবার জোরকদমে এই ঘটনার তদন্তে নামল পুলিশ।

সূত্রের খবর, রবিবার এই ঘটনায় বেনিয়াপুকুর থানা ৩০৪-এ ধারায় গাফিলতির জেরে অনিচ্ছাকৃত মৃত্যুর মামলা রুজু করেছে। যদিও এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।

তবে গুরুতর এই ঘটনায় ৩০৪-এ ধারা প্রয়োগ করা প্রশ্ন তুলছেন আইনজীবীরা। তাদের মতে, যে ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে সেটি জামিনযোগ্য। এই ঘটনায় ৩০৪ ধারায় অনিচ্ছাকৃত খুনের মামলা রুজু করা উচিত ছিল পুলিশের। আইনজীবী অনির্বাণ গুহঠাকুরতা বলেন, "মা উড়ালপুলে ঘুড়ির মাঞ্জা সুতোয় দুর্ঘটনা এই প্রথম নয়। যে বা যারা শনিবারও আশপাশের এলাকায় ঘুড়ি ওড়াচ্ছিলেন, তারা জানতেন এর থেকে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। সব জেনেশুনেও সেখানে ঘুড়ি ওড়ানো হয়েছে এবং সেই ঘুড়ির সুতো গলায় আটকে মৃত্যু হয়েছে ওই ব্যক্তির। তাই এক্ষেত্রে পুলিশের উচিত ছিল ৩০৪ ধারাটি প্রয়োগ করা।"

শনিবার সন্ধ্যায় নিজের মোটর বাইকে করে ওয়াটগঞ্জে বাড়িতে ফিরছিলেন আখতার খান। মোটরবাইকে তিনি একাই ছিলেন। মোটরবাইকটি এজেসি বোস ফ্ল্যাঙ্কের কাছে আসতেই তার গলায় জড়িয়ে যায় এই চিনা মাঞ্জা সুতো। সেখানেই রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়েন তিনি। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, তার গলায় গভীর ক্ষত সৃষ্টি হয়েছিল এবং প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। সেই অবস্থায় তাঁকে চিত্তরঞ্জন হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসা শুরু হওয়ার কিছু সময় পরেই তার মৃত্যু হয়।

এক্ষেত্রে ঘুড়ির চিনা মাঞ্জা সুতোয় বারবার এধরনের দুর্ঘটনা ঘটলেও পুলিশের তরফে তেমন উদ্যোগ দেখা যায়নি বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। এধরনের বড় কোনও ঘটনা ঘটলেই কিছুদিনের জন্য পুলিশ তৎপর হয়। যেখানে চিনা মাঞ্জা সুতো বিক্রি হয় সেখানে অভিযান চালিয়ে ঘুড়ির সুতো বাজেয়াপ্ত করা হয়। কিন্তু তারপরও দেখা যায় মা উড়ালপুলের আশপাশে বিভিন্ন বাড়ির ছাদ থেকে ওড়ানো হচ্ছে ঘুড়ি। একে অপরের সাথে ঘুড়ির সুতো কাটার খেলা চলে। সেই ঘুড়ির সুতো কাটলেই তা আড়াআড়িভাবে এসে পড়ে মা উড়ালপুলের ওপরে। বেশিরভাগ সময়েই মোটরবাইক আরোহী সরু সেই সুতো দেখতে পান না। ফলে চলন্ত অবস্থায় সেই সুতো গলায় জড়িয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়েন মোটরবাইক আরোহীরা।

সম্প্রতি আলিপুরে বাড়ি ফেরার সময় ঘুড়ির মাঞ্জা সুতো গলায় জড়িয়ে জখম হয়েছেন এক ব্যক্তি। এর আগেও একাধিক মোটরবাইক আরোহী এই দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে। এমনকী, গাড়ির সানরুফে দাঁড়িয়ে জয়রাইড করতে গিয়েও ঘটেছে দুর্ঘটনা। কিন্তু পুলিশের তরফে তেমন কোনও উদ্যোগ নজরে আসেনি। কয়েকবছর আগেই মা উড়ালপুলের উপরে নেট দেওয়ার সিদ্ধান্ত হলেও তা কার্যকরী হয়নি। ফলে মোটরবাইক আরোহীদের কাছে মা উড়ালপুল যেন বিপদ সেতু।

Sujoy Pal

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: May 17, 2020, 11:30 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर