এবার ভোজন উদ্বাস্তু ভিটেয়, কেন বাছা হল সুব্রত বিশ্বাসের পরিবারকে, জানুন শাহি লাঞ্চের খুঁটিনাটি

এবার ভোজন উদ্বাস্তু ভিটেয়, কেন বাছা হল সুব্রত বিশ্বাসের পরিবারকে, জানুন শাহি লাঞ্চের খুঁটিনাটি
আজ ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘে অমিত শাহ। নিজস্ব চিত্র

সুব্রত পেশায় মাছ বিক্রেতা, সুব্রতর স্ত্রী অর্চনা পরিচারিকার কাজ করেন। অতিথিসেবার এমন সুযোগ পেয়ে খুশি তাঁর পরিবার।

  • Share this:

    #নারায়ণপুর: অতীতে আদিবাসী বাড়িতে পাত পড়েছে।  খেয়েছেন বাউল পরিবারে। শেষবার যখন রাজ্যে এসেছিলেন অমিত শাহ খেয়েছিলেন কোচবিহারের অনন্ত মহারাজের বাড়িতে। নারায়ণপুরের তফসিলি জাতিভুক্ত উদ্বাস্তু সুব্রত বিশ্বাসের বাড়িতে। সুব্রত পেশায় মাছ বিক্রেতা, সুব্রতর স্ত্রী অর্চনা পরিচারিকার কাজ করেন। অতিথিসেবার এমন সুযোগ পেয়ে খুশি তাঁর পরিবার।

    সূত্রের খবর, সুব্রতর বাড়িটি প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনায় তৈরি। সেখানই সকাল থেকে শাহী ভোজের তোরজোর শুরু করেন সুব্রত পত্নী। অমিত শাহের মেনুতে সুব্রতরা রেখেছেন ভাত, ঘি, ডাল।  শাহের মেনুতে থাকছে আলু ফুলকপির তরকারি ও পনীর। শাহের জন্য রান্নাও হয়েছে উজ্জ্বলা যোজনার গ্যাসে।

    রাজ্যের উদ্বাস্তু ভোট টানতে মরিয়া বিজেপি। এই কারণেই সুব্রতদের মতো পরিবারকে বেছে নেওয়া ভোজনের জন্য, বলছে রাজনৈতিক মহল। সংশোধিত নাগরকিত্ব নিয়ে কোনও বার্তা দিতে না পারলেও উদ্বাস্তুদের হৃদয়ের কাছাকাছি তারা, তারা ছিন্নমূল নন এই বার্তা দিতেই শাহের ভোজন রাজনীতি, মত রাজনৈতিক মহলের।


    এর আগে ডিসেম্বর মাসে বোলপুরের এক বাউল শিল্পীর বাড়িতে ভোজন সারেন অমিত শাহ। তিনি চলে যেতেই ক্ষোভ উগরে দেন বাসুদেব বাউল। বলেছিলেন, শাহ কোনও অভাব অভিযোগের কথাই শোনননি। তাঁর পাশে দাঁড়ান অনুব্রত মণ্ডল। পরে বাসুদেবকে মমতার  রোড শো-তেও দেখা যায়। ১০ ফেব্রুয়ারি অসমে অনন্ত রায়ের বাড়িতে রাজবংশী খাবার খেয়েছিলেন শাহ।

    তৃণমূল সুপ্রিমো এই লাঞ্চ নিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি অমিত শাহকে। অতীতে একাধিক বার মঞ্চ থেকে এই ভোজন রাজনীতি প্রসঙ্গে বলেছেন, গোটাটাই লোকদেখানো। আসল খাবার আসে পাঁচতারা হোটেল থেকে। নামিদামী সংস্থার দলের বোতল ব্যবহার নিয়েও কটাক্ষ করেছিলেন মমতা।

    Published by:Arka Deb
    First published: