• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • LOKSABHA SECRETARIAT SEND LETTER TO MP SISIR ADHIKARI AND SUNIL MONDAL ON ANTI DEFECTION LAW SB

Sisir Adhikari: মুকুলকে ফাঁদে ফেলার ছক? শিশির-সুনীলের 'দল' জানতে লোকসভার সচিবালয়ের চিঠি

শিশিরের মাধ্যমে মুকুলে চাপ?

Sisir Adhikari: দলত্যাগ বিরোধী আইনে কাঁথির সাংসদ শিশির অধিকারী ও পূর্ব বর্ধমানের সাংসদ সুনীল মণ্ডলকে চিঠি পাঠাল লোকসভার সচিবালয়।

  • Share this:

    #কলকাতা : বিজেপিতে যোগ দেওয়া শিশির অধিকারী ও সুনীল মণ্ডলের সাংসদ পদ খারিজের দাবিতে বারবার লোকসভার অধ্যক্ষকে চিঠি দিয়েছে শাসক দল তৃণমূল। এমনকী লোকসভার অধ্যক্ষ ওম বিড়লাকে ফোন করে শিশিরদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আর্জি জানিয়েছেন তৃণমূলের লোকসভার দলনেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। অধ্যক্ষ তাঁকে জানিয়েছিলেন, খুব তাড়াতাড়ি এ ব্যাপারে একটি কমিটি গড়া হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে দলত্যাগ বিরোধী আইনে কাঁথির সাংসদ শিশির অধিকারী ও পূর্ব বর্ধমানের সাংসদ সুনীল মণ্ডলকে চিঠি পাঠাল লোকসভার সচিবালয়। ১৫ দিনের মধ্যে তাঁদের উত্তর দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যদিও সেই চিঠি শিশির অধিকারী এখনও পাননি বলেই জানিয়েছেন।

    শিশির ও সুনীলের বিরুদ্ধে তৃণমূলের দাবি ছিল, সংসদীয় ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করতে এ ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক। ওঁদের ডেকে নিয়ে জিজ্ঞাসা করা হোক, ওঁরা কোন দলে আছেন। তাহলেই তাড়াতাড়ি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা যাবে। এই সংক্রান্ত পর্যাপ্ত তথ্যপ্রমাণ রয়েছে তাঁদের কাছে বলে জানান সুদীপ। এরপরই শিশির ও সুনীলকে চিঠি পাঠাল লোকসভার সচিবালয়।

    এই পরিস্থিতিতে দলত্যাগ বিরোধী আইনে তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়া মুকুল রায়ের বিধায়ক পদ খারিজ সংক্রান্ত অভিযোগের শুনানি রয়েছে শুক্রবার। রাজ্য বিধানসভার অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় আগামীকাল দুপুরে নিজের ঘরে অভিযোগকারী বিজেপি পরিষদীয় দলকে শুনানির জন্য ডেকেছেন। সেই বৈঠকে থাকবেন শুভেন্দু। শুক্রবার অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় এবং শুভেন্দু অধিকারীর মুখোমুখি হাইভোল্টেজ মিটিং ঘিরে বিভিন্ন জল্পনা রয়েছে। ইতিমধ্যে অধক্ষ্যের বিরুদ্ধে রাজ্যপালের কাছে গিয়েছে বিজেপি। অধ্যক্ষকে নিয়ে বেফাঁস মন্তব্যও করেছেন শুভেন্দু। বিজেপি পরিষদীয় দলেরও দাবি, মুকুল রায় প্রকাশ্যে আনুষ্ঠানিক ভাবে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন। তার স্বপক্ষে সমস্ত তথ্য প্রমাণ অধ্যক্ষের কাছে পেশ করা হবে।

    এমন সময়ে শিশির ও সুনীলের কাছে লোকসভার সচিবালয়ের চিঠি বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। রাজনৈতিক মহলের একাংশের ধারনা, মুকুলকে নিয়ে শুনানির আগের দিনই শিশির, সুনীলকে চিঠি পাঠিয়ে জবাব দেওয়ার নির্দেশ দিয়ে আসলে মুকুল রায়কে চাপে রাখার চেষ্টা করা হল। বিধানসভা ভোটের আগেই তৃণমূলের দুই সাংসদ বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। একজন বর্ধমান পূর্বের সাংসদ সুনীল মণ্ডল। অপরজন শুভেন্দু অধিকারীর বাবা তথা কাঁথির তৃণমূল সাংসদ শিশির অধিকারী। এই দু’জনেরই সাংসদ পদ খারিজের দাবি জানিয়েছে তৃণমূল। একইভাবে ভোটে বিজেপির হয়ে জিতে এসে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন মুকুল। সেই একই অস্ত্রে এবার কৃষ্ণনগরের বিধায়কের উপর চাপ তৈরি করতে চাইছে গেরুয়া শিবির।

    Published by:Suman Biswas
    First published: