বেশী সুদের আশায় পোস্টাল গ্রাহক হয়ে এখন চূড়ান্ত দুর্ভোগে বারাসতের সাধারণ মানুষ, লিঙ্ক ফেলিওর-এ ভোগান্তি চরমে

বেশী সুদের আশায় পোস্টাল গ্রাহক হয়ে এখন চূড়ান্ত দুর্ভোগে বারাসতের সাধারণ মানুষ, লিঙ্ক ফেলিওর-এ ভোগান্তি চরমে

গত সাত দিন, সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত হত্যে দিয়েও মিলছে না নিজের টাকা।লিঙ্ক ফেল বলে পোস্ট অফিস দিচ্ছে না টাকা।রাজ্য অন্যান্য জায়গার মত ?

  • Share this:

#কলকাতা:  বারাসাতের নবপল্লী সাব পোষ্ট অফিসের গ্রাহকদের ভোগান্তি চরমে  । সৌজন্য লিঙ্ক ফেলিওর । বিএস এন এলের কানেকশন নাকি থাকছেই  না । এই ইন্টারনেট পরিষেবা অচল থাকার বিষয়টি এখন  রুটিন হয়ে দাঁড়িয়েছে । কখনও তিন দিন ,  কখনও পাঁচদিন ধরে একটানা লিংক ফেলিওর হয়ে  থাকে । এবার এই ইন্টারনেটের বিপত্তি চলছে টানা সাতদিন ধরে । ক্ষোভ বাড়ছে , বাড়ছে গ্রাহকদের কষ্ট। ধৈর্য্যের পরীক্ষা দিতে থাকা নাজেহাল গ্রাহকরা বলছেন এভাবে সাব পোষ্ট অফিস টিকিয়ে রাখার  অর্থ কি ?

সংস্থার কর্মীরা দাবী করছেন,  উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন  বিষয়টি তথাপি  ভোগান্তি কমার কোনো দিশা মিলছে না। আধিকারিকরা ক্যামেরার সামনে না এসে দোষ চাপিয়েছেন ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থার উপরে । কিন্তু তার জন্য কেন গ্রাহকরা ভুগবেন তার সদুত্তর তাঁরা দিতে অপারগ  ।ফলে,  গ্রাহকরা টাকা তুলতে পোষ্ট অফিসে আসছেন এবং কয়েকঘণ্টা অপেক্ষা করে খালি হাতে ফিরে যাচ্ছে ।  গ্রাহকদের  অনেকেরই সংসারের সারা মাসের খরচ খরচা চলে পোষ্ট অফিসে গচ্ছিত রাখা তাঁদেরই  জমানো টাকার সুদে । এঁদের সিংহভাগ বয়স্ক মানুষ যাঁরা অনেকেই বয়স্ক ও  অবসরপ্রাপ্ত।অনেকে আবার স্বামীর মৃত্যুর পর সামান্য টাকা পোষ্ট অফিসে রেখে গ্রাসচ্ছাদনের ব্যবস্থা করেছেন । কিন্তু তাঁদের দিন আর কাটছে না ।    ভোগান্তি নিত্যসঙ্গী হয়ে দাঁড়িয়েছে পোষ্ট অফিসের গ্রাহকদের ।

বারাসাতের  নবপল্লী পোষ্ট অফিসের গ্রাহকদের দুর্দশা চরমে উঠলেও সব বয়স্ক মানুষরা দূষছেন না কর্মীদের ।বিশ্বনাথ বোসের কথায় লিঙ্ক ফেলিওরের অসুবিধে ও গুরুত্ব বোঝাতে ব্যর্থ স্থানীয় আধিকারিকরা ।আবার এই পোস্ট অফিসের গ্রাহক অরুন কুমার দত্তের অভিযোগ , সামগ্রিক পোষ্টাল  ব্যবস্থায় গলদ রয়েছে যার ফল ভুগছেন গ্রাহকরা । তিনি এই ক্ষেত্রে  কেন্দ্রীয় সরকারকে দায়ী করতে ভুলছেন না ।ডাকঘর থেকে ব্যাঙ্কে উত্তীর্ন ব্যবস্থা যে কত দূর্বল তা বারাসত নবপল্লীর এই পোষ্ট অফিস প্রমান করছে মত গ্রাহকদের।  বুধবার নবপল্লী পোষ্ট অফিসে দাড়িয়ে  ক্ষোভ উগরে দিয়ে বললেন তাঁরা অসহায় । তাঁদের ভবিতব্য ভোগান্তি । কেউ আসেন এম আই এস -প্রকল্পে মাসের টাকা তুলতে , কিছূ মানুষ ম্যাচিওর করা টাকা তুলতেও আসছেন । সবার ভাগ্যে জুটছে লবডঙ্কা । সামান্য বেশি ইন্টারেস্ট পেতে আগ্রহী পোষ্ট অফিসের গ্রাহকদের কপালে জুটছে কেবলই দুর্ভোগ মত পোষ্ট অফিসের গ্রাহক মলি মালিকের। ভোগান্তির মাঝে দাড়িয়ে এক গ্রাহক জানালেন মেয়ের বিয়ের জন্য টাকা তুলতে এসে এক গ্রাহক সাতদিন ধরে পাক খাচ্ছেন ।হাপিত্যেস করা ছাড়া কিছুই হয় নি ।  দূরবর্তী হেড পোষ্ট অফিসে যেতে পারেন না অনেক বয়স্ক মানুষ ।স্বাভাবিক ও দুর্ভাগ্যজনক ভাবে   অনেকেরই  সমস্যার সুরাহা হচ্ছে না । এক রাহুদশার মধ্যে বিশবাঁও জলে থাকা নবপল্লী সাব পোষ্ট অফিসের  গ্রাহকরা এখন কিংকর্তব্যবিমূঢ় ।

RAJARSHI ROY

First published: February 19, 2020, 8:50 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर