কলকাতায় বাড়ছে জীবনদায়ী ওষুধের সংকট, হাহাকার পড়ে যাবে আশঙ্কা খোদ বিক্রেতার

কলকাতায় বাড়ছে জীবনদায়ী ওষুধের সংকট, হাহাকার পড়ে যাবে আশঙ্কা খোদ বিক্রেতার
অনেকেই লাইনে দাঁড়িয়েও ফিরে যেতে বাধ্য হচ্ছেন। নিজস্ব চিত্র

পাইকারি ওষুধ বিক্রেতাদের আশঙ্কা, এই অবস্থা চলতে থাকলে আগামী সোমবার থেকে ওষুধের হাহাকার পড়ে যাবে রাজ্যজুড়ে।

  • Share this:

#কলকাতা: লকডাউন এর জেরে আগামী সোমবার থেকে ওষুধ শিল্পে সংকট তৈরি হতে পারে, এমনটাই আশঙ্কা করছেন ব্যবসায়ীরা। ইতিমধ্যেই হাসপাতাল সংলগ্ন ওষুধের দোকানগুলিতেও জীবনদায়ী ওষুধের সংকট চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে। বিশেষত প্রেসার, সুগার, ডায়াবেটিস, অ্যাস্থমা , হার্টের ওষুধগুলি সরকারি হাসপাতাল সংলগ্ন ওষুধের দোকানগুলিতে একেবারেই পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ রোগীর পরিজনজের।

সরকারি হাসপাতাল গুলি থেকে চিকিৎসকরা বিভিন্ন প্রয়োজনীয় ওষুধ প্রেসক্রিপশনে লিখে দিলেও ফিরতে হচ্ছে খালি হাতে। ওষুধের দোকানের মালিকরা সংক্রমণের আশঙ্কায় ডিস্ট্রিবিউটরদের  বাইরে না বেরেোনোকেই  দায়ী করছেন পরিস্থিতির জন্যে। এসএসকেএম সংলগ্ন এক ওষুধের দোকানের মালিক বলেন "গত দুদিন ধরেই ডিস্ট্রিবিউটররা আসতে পারছেন না। তার জেরে নতুন ওষুধ আর ঢুকছে না। তাই অনেকেই ওষুধ কিনতে এসেও ফিরে যাচ্ছেন।"

বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই রাজ্যের অন্যতম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল এসএসকেএম সংলগ্ন ওষুধের দোকানগুলোতে এমনই ছবি ধরা পড়ল। একজন ক্রেতা জানালেন একাধিক ওষুধের দোকান ঘুরলেও তিনি অ্যাস্থমার ওষুুুুধ পেলেন না। 'স্টকে ওষুধ থাকলে তো কাউকে ফেরাচ্ছি না'. ওষুধের দোকানগুলির মালিকরা। রোগীর পরিবারের  লোকেরা এই আবহে সরকারি নজরদারি নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন।

সূত্রের খবর কলকাতার পাইকারি বাজারগুলিতে ওষুধের সংকট তৈরি হয়েছে। বিশেষত মেহেতা বিল্ডিং, বাগরি মার্কেট, কলুটোলা স্ট্রিটের মত ওষুধের পাইকারি বাজারগুলিতে ওষুধ আসা কার্যত বন্ধ  হয়ে গেছে।

পাইকারি ওষুধ বিক্রেতাদের আশঙ্কা, এই অবস্থা চলতে থাকলে আগামী সোমবার থেকে ওষুধের হাহাকার পড়ে যাবে রাজ্যজুড়ে।

 সোমরাজ বন্দোপাধ্যায়

First published: March 26, 2020, 11:49 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर