Home /News /kolkata /
Kashipur News || কাশীপুরে ঘরছাড়াদের ঘর দিতে তৎপর কলকাতা পুরসভা, রতনবাবুর ঘাটে চিহ্নিত হয়েছে জমি

Kashipur News || কাশীপুরে ঘরছাড়াদের ঘর দিতে তৎপর কলকাতা পুরসভা, রতনবাবুর ঘাটে চিহ্নিত হয়েছে জমি

কলকাতা পুরসভা। ফাইল ছবি।

কলকাতা পুরসভা। ফাইল ছবি।

Kashipur News || ওই কলোনীর জমিতে সেখানে এই মুহুর্তে  ১৫ টি পরিবার বসবাস করে। কলকাতা পুরসভার পরিকল্পনা রয়েছে সেখানেই বহুতল তোলা হবে। যারা ওখানে থাকেন তাদের প্রত্যেককে বাসস্থান দেওয়া হবে। 

  • Share this:

কাশীপুরে ঘরছাড়াদের ঘর দিতে তৎপর কলকাতা পুরসভা। রতনবাবুর ঘাটে ঘর ছাড়াদের বাড়ি তৈরির জন্য চিহ্নিত হয়েছে জমি।  বাংলার বাড়ির আদলে তৈরি পাকা ফ্ল্যাট হবে ভবিষ্যতের ঠিকানা, কলকাতা পুরসভা সূত্রে খবর এমনটাই৷

কাশীপুরের রতন বাবুর ঘাট সংলগ্ন এলাকায় ফাটল দেখা দিয়েছিল। সেই ফাটলে বিপদজনক হয়ে পড়েছিল দুটি বাড়ি। রাস্তায় কয়েক ফুট এলাকা জুড়ে বিশাল গর্ত তৈরি হয়। তার জেরে ফাটল তৈরি হয় অন্তত দশটি বাড়িতে। ছুটে যান স্থানীয় কাউন্সিলর থেকে ডেপুটি মেয়র-সহ কলকাতা পুরসভার হেভিওয়েট নেতারা। রতনবাবুর ঘাটের ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারদের ঘর দেওয়ার কথা আগেই জানিয়েছিলেন মেয়র ও পরিবহণমন্ত্রী ফিরহাদ হকিম। রাজ্যের পরিবহণ মন্ত্রীর সেই কথা এবার বাস্তবে রূপ পেতে চলেছে। রতনবাবুর ঘাটের ঘটনাস্থলের কাছেই চিহ্নিত করা হয়েছে একটি কলোনির জমি। কলোনির সেই জমি কলকাতা পুরসভার কর্তাদের পছন্দ হলেই সেখানেই হবে রতনবাবুর ঘাটের ঘর ছাড়াদের ভবিষ্যৎ বাসস্থান। কলকাতা পুরসভার সূত্রে খবর।

বেশ কিছু দিন আগে আচমকা রতনবাবুর ঘাট সংলগ্ন রাস্তায় ধস নামে। ওই এলাকায় থাকা প্রায় ১০টি ঘরে তার জেরে ফাটল ধরে যায়। ধস মেরামত করা গেলেও স্থানীয় বাসিন্দাদের নিরাপদে সরিয়ে নেওয়া হয়। ওই ঘরগুলি থেকে বাদিন্দাদের সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় স্থানীয় স্কুলের ঘরে।। সেখানেই তাঁরা অস্থায়ী ভাবে থাকছেন।

কলকাতা পুরসভার নিকাশি বিভাগ এবং সিভিল  বিভাগ ও সড়ক বিভাগ থেকে এই ঘটনার তদন্ত করা হয়। প্রাথমিকভাবে এই রাস্তায় ধস নামার কারণ হিসাবে দুটি বিষয় সামনে আসে। প্রথমত, এই এলাকার নীচে ব্রিটিশ আমলের তৈরি নিকাশী নালা রয়েছে। সেটি বন্ধ করার ফলেই নীচে জলের ধাক্কায় মাটি বসে যেতে পারে বলে আশঙ্কা। অন্য আরেকটি কারণ হল, ঘটনাস্থলের পিছনেই একটি নতুন জৈটি তৈরির কাজ চলছে। সেখানে পিলার গাঁথার জন্য কম্পন তৈরি হবার সম্ভাবনা।একে গঙ্গার পারে বাস। বর্ষাকালে জোয়ারের কারণে যখন তখন বিপদ হতে পারে বুঝেই তাদের সেখান থেকে সরিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম। পাশাপাশি সেই সময় জানিয়েছিলেন, পরিবহণ দফতর টাকা দেবে বাড়ি তৈরির টাকা দেবে। স্থানীয় কাউন্সিলরকে জায়গা দেখার জন্যও অনুরোধ করেছিলেন ফিরহাদ।

কলকাতা পুরসভা সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই এলাকায় একটি কলোনির জমি রয়েছে। কলকাতা পুরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সেটি প্রাথমিকভাবে চিহ্নিত করেছেন। কলকাতা পুরসভা কর্তৃপক্ষের পছন্দ হলে সেখানেই গড়ে উঠবে রতনবাবুর ঘাটের বাসিন্দাদের থাকার জায়গা।

আরও পড়ুন: নতুন রূপে বাজারে আসছে মারুতির সবচেয়ে সস্তা গাড়ি অল্টো K10

ওই কলোনির জমিতে সেখানে এই মুহুর্তে  ১৫ টি পরিবার বসবাস করে। কলকাতা পুরসভার পরিকল্পনা রয়েছে সেখানেই বহুতল তোলা হবে। যাঁরা ওখানে থাকেন, তাঁদের প্রত্যেককে বাসস্থান দেওয়া হবে। সেখানেই রতনবাবুর ঘাটের ফাটলে ঘর ছাড়াদের প্রত্যেককেই ফ্ল্যাট বাড়ি দেওয়া হবে। 'বাংলার বাড়ি' প্রকল্পর মতোই তিন থেকে চারতলা একটি আবাসন নির্মাণের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। যার  সমস্ত নির্মাণ খরচ হবে পরিবহণ দফতরের। স্থানীয় বিধায়ক অতীন ঘোষ, কলকাতা পুরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর কার্তিক মান্না, কলকাতা পুরসভার মেয়র তথা রাজ্যের পরিবহণ মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের সঙ্গে চূড়ান্ত পর্যায়ে আলোচনা হবে।

স্থানীয় ১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর কার্তিক মান্না জানান, ওই পাড়াতেই একটি জমি পাওয়া গিয়েছে। তবে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। শীর্ষ কর্তৃপক্ষ পরিদর্শনের পর পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

Published by:Rachana Majumder
First published:

Tags: KMC

পরবর্তী খবর