উরি হামলায় নিহত এরাজ্যের দুই জওয়ানকে বিমানবন্দরে সেনার গার্ড অফ অনার, উপস্থিত ছিলেন জ্যোতিপ্রিয়-পূর্ণেন্দু

উরি সেনাঘাঁটিতে অতর্কিত আত্মঘাতী হামলা মর্মাহত গোটা দেশ। উরি হামলার পর অন্ধকার নেমে এসেছে এ রাজ্যের দুই পরিবারেও ৷ সেনাঘাঁটিতে জঙ্গিদের হাতে নিহত ১৮ জন জওয়ান ৷

উরি সেনাঘাঁটিতে অতর্কিত আত্মঘাতী হামলা মর্মাহত গোটা দেশ। উরি হামলার পর অন্ধকার নেমে এসেছে এ রাজ্যের দুই পরিবারেও ৷ সেনাঘাঁটিতে জঙ্গিদের হাতে নিহত ১৮ জন জওয়ান ৷

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: উরি সেনাঘাঁটিতে অতর্কিত আত্মঘাতী হামলা মর্মাহত গোটা দেশ। উরি হামলার পর অন্ধকার নেমে এসেছে এ রাজ্যের দুই পরিবারেও ৷ সেনাঘাঁটিতে জঙ্গিদের হাতে নিহত ১৮ জন জওয়ান ৷ তাঁর মধ্যে দু’জন ছিলেন এরাজ্যের বাসিন্দা ৷ ৬ বিহার রেজিমেন্টের সেপাই বিশ্বজিৎ ঘড়াই এবং সেপাই গঙ্গাধর দলুইয়ের মৃত্যুর খবর এসে পৌঁছাতেই শোকের ছায়া নেমে আসে দুই পরিবারে।

    বিশ্বজিতের বাড়ি দক্ষিণ ২৪ পরগনার গঙ্গাসাগরে আর গঙ্গাধর ছিলেন হাওড়ার মুন্সিরহাটের বাসিন্দা। সোমবার রাতে দুই জওয়ানের দেহ শ্রীনগর থেকে পটনা হয়ে কলকাতায় নিয়ে আসা হল। কলকাতা বিমানবন্দরে গার্ড অফ অনার দেয় সেনাবাহিনী ৷ শহীদদের শেষ শ্রদ্ধা জানাতে সেখানে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক ও মন্ত্রী পূর্ণেন্দু বসু ৷

    উরি হামলায় দুঃখপ্রকাশ করে ট্যুইটে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লেখেন, ‘১৭ জন মৃত জওয়ানের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাই ৷ এধরনের ঘটনা খুবই দুঃখজনক ৷’

    হাওড়া স্টেডিয়ামে আর্মিদের রিকরুটমেন্ট র‍্যালিতে চান্স। বরাবরই সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়াই ছিল লক্ষ্য। দেড় মাস আগেই বাড়ি ঘুরে গিয়েছে ছেলে। এরপরই কাশ্মীরে পোস্টিং পায় সে। এমনটাই জানালেন, মুন্সিরহাটের বাসিন্দা গঙ্গাধর দলুইয়ের পরিবার ৷ রবিবারের জঙ্গি হানায় শহীদ গঙ্গাধর । সুদূর কাশ্মীর থেকে কফিনবন্দি হয়ে ছেলের দেহ ফিরল বাড়িতে । স্বজন হারালেও সেনাবাহিনীতেই যোগ দিনে চান গঙ্গাধরের ভাই বরুণ দলুই। ছেলের বীরের মতো মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ নয়, গর্বিত এই পরিবার।

    একইরকম ছবি দেখা গেল গঙ্গাসাগরে ৷ দক্ষিণ ২৪ পরগনার গঙ্গাসাগরের বাসিন্দা বিশ্বজিৎ ঘড়াই। আড়াই বছর আগেই ভারতীয় সেনাবাহিনীতে যোগ দেন তিনি। প্রথম থেকেই কাশ্মীরে পোস্টিং। বাড়ির বড় ছেলে বিশ্বজিতের রোজগারেই পড়াশোনা করছে তাঁর দুই ভাই-বোন। কিন্তু রবিবার দেশের জন্য জীবন দিয়েছে ছেলে। মৃত্যুর শোক থাকলেও, গর্বিত ঘড়াই পরিবার।

    পাঠানকোট হোক বা উরি। প্রতিবারই সন্ত্রাসের বলি দেশরক্ষীরা। রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শেষকৃত্য হলেও ভবিষ্যৎ বদলের আর্জি স্বজনহারানো পরিবারগুলির।

    রবিবার জম্মু কাশ্মীরের উরি সেক্টরের সেনা ছাউনিতে ভয়াবহ হামলা চালায় জঙ্গিরা ৷ হামলায় শহীদ হয়েছেন ১৭ জন জওয়ান ৷ আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন ৷ দীর্ঘ আড়াই ঘণ্টার লড়াইয়ের পর চার জঙ্গিকে খতম করতে সফল হয়েছে সেনা ৷ ভোর ৫:২০ নাগাদ হামলা চালায় তিন চারজনের একটি জঙ্গি দল ৷ সেনা ক্যাম্পে ঢুকে এলোপাথারি গুলি চালাতে থাকে জঙ্গিরা ৷ জানা গিয়েছে, ১৮ জন শহীদ জওয়ানদের মধ্যে ১৪ জন সেই সময় টেন্টে ঘুমোচ্ছিলেন ৷ জঙ্গিরা টেন্ট লক্ষ্য করে গ্রেনেড ছোড়াতে তাদের মৃত্যু হয় ৷ সেনাছাউনিতে আগুন লেগে যাওয়াই তাদের মৃত্যু হয়েছে ৷ উরি জম্মু কাশ্মীরের সীমান্ত রেখার কাছে অবস্থিত ৷

    First published: