ফিরে এল ২৭ বছর পুরনো স্টোনম্যান আতঙ্ক

১৯৮৯ সালের ১১ জানুয়ারি। খবরের কাগজ হাতে চমকে উঠেছিল শীতের কলকাতা। সর্বভারতীয় ইংরাজি দৈনিকের হেডলাইন জানিয়েছিল, স্টোনম্যান স্টাইকস এগেইন।

১৯৮৯ সালের ১১ জানুয়ারি। খবরের কাগজ হাতে চমকে উঠেছিল শীতের কলকাতা। সর্বভারতীয় ইংরাজি দৈনিকের হেডলাইন জানিয়েছিল, স্টোনম্যান স্টাইকস এগেইন।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: ১৯৮৯ সালের ১১ জানুয়ারি। খবরের কাগজ হাতে চমকে উঠেছিল শীতের কলকাতা। সর্বভারতীয় ইংরাজি দৈনিকের হেডলাইন জানিয়েছিল, স্টোনম্যান স্টাইকস এগেইন। সঙ্গে খবর, চিত্তরঞ্জন অ্যাভেনিউতে মাথা থেঁতলে আবারও খুন এক ফুটপাথবাসী। পাশে রাখা খুনের অস্ত্র। সেটা দ্বিতীয় খুন। শহর কলকাতার স্টোনম্যান আতঙ্কের সেই শুরু। তারপর সত্যি-মিথ্যে, হওয়া-না হওয়া গল্প আর শুধুই রহস্য।

    ফুটপাথে শুয়ে থাকা মানুষকে একের পর এক মাথা থেঁতলে হত্যা। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে পাশে রাখা খুনের অস্ত্র, পাথর বা ইঁট। উত্তরের চিত্তরঞ্জন অ্যাভেনিউ দিয়ে শুরু। তারপর একে একে ধর্মতলা, পার্কস্ট্রীট, গড়িয়াহাট। কলকাতা তখন আতঙ্কে কাঁপছে। স্টোনম্যানকে ধরতে একের পর এক ফাঁদ পাতা হয়েছিল কিন্তু লাভ হয়নি। কারণ প্রাথমিক প্রশ্নগুলিরই উত্তর মেলেনি-

    -সবকটি খুন কী একজনেরই কাজ? -কেন ফুটপাথে শুয়ে থাকা মানুষদেরই নিশানা করা হচ্ছে? - কীভাবে বারবার পুলিশের ফাঁদ এড়িয়ে যাচ্ছে আততায়ী?

    আততায়ীকে সিরিয়াল কিলার ধরেই এগিয়েছিল পুলিস। তবে সিরিয়াল কিলারদের সঙ্গে বেশ কিছু পার্থক্যও খুঁজে পান তদন্তকারীরা। স্টোনম্যান সন্দেহে ইতিউতি গ্রেফতার করা হয় ২০ জনেরও বেশি সন্দেহভাজনকে। কিন্তু কারোর বিরুদ্ধেই কোনও প্রমাণ মেলেনি। খুনের মোটিভ, মোডাস অপারেন্ডি নিয়েও কিছুই জানা যায়নি।

    সব খুনের পিছনে ক্ষেত্রে দেখা যায়,

    - ফুটপাথে একা শুয়ে থাকা মানুষকেই নিশানা করা হয় - যারা খুন হচ্ছিলেন, অধিকাংশ ক্ষেত্রে তাদের পরিচয় স্পষ্ট হয়নি - খুনের পর কোনও লুঠপাটের প্রমাণ মেলেনি - দীর্ঘ ৭ মাসে ১৩টি খুনের পরও মেলেনি কোনও প্রত্যক্ষদর্শী

    পুলিশের এই ব্যর্থতা স্টোনম্যানের মহিমা যেন কয়েক গুণ যেন বাড়িয়ে দেয়। চায়ের ঠেকে থেকে অফিস পাড়ায় বেশ কিছুদিন স্টোনম্যানই ছিল আলোচনার কেন্দ্রে। সে নাকি আকাশ থেকে নেমে আসে। গায়ে থাকে লোহার বর্ম। এমনই সব জল্পনায় মেতে ওঠে ছিল তখনকার কলকাতা। ১৯৮৯ সালের জুলাইয়ের পরে আর স্টোনম্যানের কায়দায় খুন হয়নি। তবে স্টোনম্যান আতঙ্ক তাড়া করেছিল আরও বহুদিন। মানুষের মনে সমাধানহীন রহস্য আর অজানা আতঙ্ক হিসেবে থেকে গিয়েছে  ‘স্টোনম্যান’ ৷

    First published: