corona virus btn
corona virus btn
Loading

রাজনৈতিক দলের প্রতিশ্রুতি নয়, অধিকার চাইছেন বাংলার যৌনকর্মীরা

রাজনৈতিক দলের প্রতিশ্রুতি নয়, অধিকার চাইছেন বাংলার যৌনকর্মীরা

ভোটের কাউন্টডাউন শুরু ৷ কিন্তু তার আগেই নিজেদের অধিকার চেয়ে রাজনৈতিক দলগুলির দিকে আঙুল তুললেন পশ্চিমবঙ্গের প্রায় ১ লক্ষ ৫০ হাজার যৌনকর্মীরা ৷ প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দলকে কটাক্ষ করে গোটা বাংলার যৌনকর্মীরা স্পষ্ট জানিয়েদিলেন, ‘রাজনৈতিক দলনেতারা আমাদেরক ঠকিয়েছে ৷ আমাদের উন্নয়ণের প্রতিশ্রুতি দিয়েও, এখনও কিছু করেনি ৷ রাজনৈতিক দলগুলির এরকম আচরণের প্রতিবাদ করি ৷’

  • PTI
  • Last Updated: March 30, 2016, 5:30 PM IST
  • Share this:

#কলকাতা: ভোটের কাউন্টডাউন শুরু ৷ কিন্তু তার আগেই নিজেদের অধিকার চেয়ে রাজনৈতিক দলগুলির দিকে আঙুল তুললেন পশ্চিমবঙ্গের প্রায় ১ লক্ষ ৫০ হাজার যৌনকর্মীরা ৷ প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দলকে কটাক্ষ করে গোটা বাংলার যৌনকর্মীরা স্পষ্ট জানিয়েদিলেন, ‘রাজনৈতিক দলনেতারা আমাদেরক ঠকিয়েছে ৷ আমাদের উন্নয়ণের প্রতিশ্রুতি দিয়েও, এখনও কিছু করেনি ৷ রাজনৈতিক দলগুলির এরকম আচরণের প্রতিবাদ করি ৷’

শুধু মুখে নয়, রাজনৈতিক দলগুলিকে নিজেদের অধিকারের কথা জানিয়ে রীতিমতো চিঠি পাঠানো হয়েছে অল ইন্ডিয়া নেটওয়ার্ক ফর সেক্স ওয়ার্কসের পক্ষ থেকে ৷ এই সংস্থার ও দুর্বার কমিটির প্রেসিডেন্ট ভারতী দে জানিয়েছেন, ‘প্রত্যেকবার ভোটের আগে রাজনৈতিকদল গুলি এসে আমাদের প্রচুর প্রতিশ্রুতি দেন ৷ অনেক বড় বড় আশা দেখান ৷ কিন্তু ভোট ফুরলেই, সেগুলো আর রূপায়িত হয় না ৷ রাজনৈতিক দল গুলির এই ব্যাপারটিকেই প্রতিবাদ করি ৷’

দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটি-র পক্ষ থেকে যে অধিকারগুলির কথা বলা হয়েছে তা হল, যৌনকর্মীদের পেনশন, নারীপাচার, যৌনকর্মীদের আইনের মানত্য দানের মতো অধিকারগুলি ৷ এই কমিটির মতে, রাজ্য সরকার ও কেন্দ্রীয় সরকার কেউ-ই কোনওভাবে যৌনকর্মীদের কথা ভেবে দেখছেন না ৷ এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বড় নিষিদ্ধ এলাকা কলকাতার সোনাগাছির যৌনকর্মী পারুলের জানিয়েছেন, ‘সংখ্যালঘু ও আদিবাসীদের এই সরকার সুবিধে দিচ্ছে, কিন্তু আমাদের দিচ্ছে না ৷ আমাদের পরিবার রয়েছে, যাঁদের ভোটাধিকার রয়েছে ৷ তাই আমাদের কথা না শুনলে, আমরা ভোট দেব না, নইলে NOTA তে ভোট দেব !’

অন্যদিকে নারী ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রী শশী পাঁজার কথায়, ‘তৃণমূলের পক্ষ থেকে যৌনকর্মীদের উন্নয়নের জন্য প্রকল্প রয়েছে ৷ যার নাম ‘মুক্তির আলো’ ৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই প্রকল্প চালু করেছেন যৌনকর্মীদের মূল স্রোতে ফিরিয়ে আনার জন্য ৷ এই প্রকল্প অনুযায়ী, যৌনকর্মীদের নাচ, গান, অভিনয় শেখানো হয় ৷ যাতে মহিলারা নাটক, সিনেমা বা অন্য কোনও কোনও কেরিয়ারে নিজেদের নিয়ে যেতে পারেন ৷’

First published: March 30, 2016, 5:30 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर