ওলায় গণধর্ষণের ঘটনায় প্রশ্ন উঠেছে পুলিশের ভূমিকায়

খাস কলকাতার গাড়িতে তুলে গণধর্ষণের পর খুনের ঘটনা ঘটতেই পুলিশের ভূমিকা নিয়ে অভিযোগ উঠছে।

খাস কলকাতার গাড়িতে তুলে গণধর্ষণের পর খুনের ঘটনা ঘটতেই পুলিশের ভূমিকা নিয়ে অভিযোগ উঠছে।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: খাস কলকাতার গাড়িতে তুলে গণধর্ষণের পর খুনের ঘটনা ঘটতেই পুলিশের ভূমিকা নিয়ে অভিযোগ উঠছে। শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে নাকা চেকিং থাকলে কিশোরীকে আগেই উদ্ধার করা যেত বলে মনে করছেন প্রাক্তন পুলিশকর্তারা। তবে, শেষপর্যন্ত পুলিশের মান বাঁচিয়েছেন এক ফুটপপাথবাসী। ওলা গাড়ির নম্বর রাতেই নোট করে রেখেছিলেন তিনি। তাঁর দেওয়া সূত্র থেকেই শেষপর্যন্ত গ্রেফতার করা হয় দুই মূলচক্রীকে। ভিও১- গাড়ির নম্বরই (WB 04 F 4374) ধরিয়ে দিল কিশোরীকে গণধর্ষণ করে খুনের দুই মূলচক্রীকে। কিশোরীকে অপহরণের সময় গাড়িটির নম্বর নজরে এসেছিল এক ফুটপাথবাসীর। সেসময় তা নোট করে রাখেন তিনি।

    পড়ুন

    কলকাতায় কিশোরীকে রাতভর গণধর্ষণ করে খুন করল দুই ওলা চালক

    অভিযোগ জানানোর ঘণ্টাখানেক বাদে হেয়ার স্ট্রিট থানা থেকে টি বোর্ডে আসে পুলিশ। আশপাশের লোকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে ওলার নম্বর পেলেও তখনই কোনও ব্যবস্থা নেওয়া যায়নি। এরপর, আশপাশের সিসিটিভির ফুটেজও তাঁদের হাতে আসে। ওলা সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করে পুলিশ। সেই সূত্র ধরেই গাড়িটির মালিকের পরিচয় পায় পুলিশ। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা যায় ওয়াটগঞ্জের বাসিন্দা গুড্ডু সিং ও শঙ্কর সাউয়ের নাম। তাদেরকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে পুলিশ। জেরায় তারা অপরাধের কথা স্বীকার করে নেয়। কিন্তু, এ ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন ৷

    First published: