Home /News /kolkata /
বিরোধী দলনেতা নিয়ে জোর চর্চা কংগ্রেসে, দৌড়ে মানস ভুঁইঞা, আবদুল মান্নান

বিরোধী দলনেতা নিয়ে জোর চর্চা কংগ্রেসে, দৌড়ে মানস ভুঁইঞা, আবদুল মান্নান

বিরোধী দলনেতা নিয়ে জোর জল্পনা কংগ্রেস শিবিরে। চলছে সাপ-সিঁড়ির খেলা। দৌড়ে মানস ভুঁইঞা, আবদুল মান্নানের সঙ্গেই লাস্ট ল্যাপে উঠে এসেছে লালগোলার বিধায়ক আবু হেনার নাম। শেষ পর্যন্ত কার হাতে উঠবে বিরোধী দলনেতার ব্যাটন, সেটা জানা যাবে শুক্রবার, কেন্দ্রীয় নেতাদের বৈঠকের পর।

আরও পড়ুন...
  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: বিরোধী দলনেতা নিয়ে জোর জল্পনা কংগ্রেস শিবিরে। চলছে সাপ-সিঁড়ির খেলা। দৌড়ে মানস ভুঁইঞা, আবদুল মান্নানের সঙ্গেই লাস্ট ল্যাপে উঠে এসেছে লালগোলার বিধায়ক আবু হেনার নাম। শেষ পর্যন্ত কার হাতে উঠবে বিরোধী দলনেতার ব্যাটন, সেটা জানা যাবে শুক্রবার, কেন্দ্রীয় নেতাদের বৈঠকের পর।

    ৪৪টি আসন দখল করে প্রধান বিরোধী দল হিসেবে উঠে আসার পর শুরু হয়েছিল জল্পনা। ২১ মের পর থেকেই বিরোধী দলনেতার দৌড়ে চলছিল সুক্ষ প্রতিযোগিতা। তাতে কখনও এগিয়েছেন মানস, কখনও মান্নান। আর একেবারে শেষ মুহূর্তে দৌড়ে ঢুকে পড়েছেন লালগোলার বিধায়ক আবু হেনা।

    কিন্তু তিন জনের মধ্যে কার প্লাস-মাইনাস কী সেটা এবার দেখে নেওয়া যাক।

    সবংয়ের বিধায়ক মানস ভুঁইঞার অন্যতম প্লাস পয়েন্ট, টানা সাত বারের বিধায়ক তিনি। পরিষদীয় রাজনীতিতে দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতা রয়েছে। তিনি হাই কমান্ডের কাছে লোক এবং গান্ধি পরিবারের সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্ক। তবে তাঁর বিরুদ্ধে যেতে পারে, বারবার তৃণমূলের যোগ দেওয়ার জল্পনা, প্রথম দিকে জোটের বিরোধিতা করা এবং প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির ঘনিষ্ঠ বৃত্তে না থাকা।

    আবদুল মান্নানেরও প্লাস পয়েন্ট পরিষদীয় রাজনীতিতে দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতা রয়েছে। প্রথম থেকেই জোটের পক্ষে সওয়াল করেছেন এবং জোটের অন্যতম কারিগর তিনি। তিনি কংগ্রেসের সংখ্যালঘু মুখ। গান্ধি পরিবারের সঙ্গে দীর্ঘদিনের যোগাযোগ। তবে চাঁপদানির বিধায়কের বিপক্ষে যেতে পারে দীর্ঘদিন বিধায়ক না থাকা। এছাড়া তিনি প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির কাছের লোক নন, বরং বিরোধী হিসেবেই পরিচিত ছিলেন। অধীর প্রদেশ সভাপতি হওয়ার পর দীর্ঘদিন বিধান ভবনেও আসেননি তিনি।

    তৃতীয় প্রতিযোগীর নাম আবু হেনা। তিনি অধীর চৌধুরীর জেলা মুর্শিদাবাদের নেতা। প্রদেশ কংগ্রেসের ইয়েস ম্যান। এগুলি মার্কশিটে প্লাস পয়েন্ট হিসেবে যোগ হলেও লালগোলার বিধায়কের মাইনাস পয়েন্টও রয়েছে বেশ কিছু। তিনি রাজ্য রাজনীতিতে বিশেষ পরিচিত মুখ নন। পরিষদীয় রাজনীতিতে অভিজ্ঞতা বাকি দুজনের চেয়ে কম। বিধানসভায় সক্রিয় হতে দেখা যায়নি খুব একটা। সুবক্তাও নন, বরং মুখচোরা স্বভাবের।

    কাউন্টডাউন শুরু হয়ে গিয়েছে। তিন বিধায়কের এই মার্কশিটের কাটাছেঁড়া চলছে। শুক্রবার বিকেল সাড়ে তিনটেয় বিধান ভবনে জয়ী ৪৪ বিধায়ককে নিয়ে বৈঠকে বসছেন কংগ্রেসের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। থাকবেন অম্বিকা সোনি, সিপি যোশি, জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার মতো নেতারা। ওই বৈঠকেই ঠিক হবে, আগামি পাঁচ বছর বিরোধী দলনেতার ব্যাটন কার হাতে থাকবে।

    First published:

    Tags: Congress, Kolkata, Mamata Banerjee, Opposition Leader, TMC, তৃণমূল কংগ্রেস, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

    পরবর্তী খবর