• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • বিকাশ ভট্টাচার্যের মনোনয়নপত্র বাতিল করল নির্বাচন কমিশন

বিকাশ ভট্টাচার্যের মনোনয়নপত্র বাতিল করল নির্বাচন কমিশন

মুখ পুড়ল বামেদের। অনেক টালবাহানার পরে বিকাশ ভট্টাচার্যকে প্রার্থী করেছিল বামেরা।

মুখ পুড়ল বামেদের। অনেক টালবাহানার পরে বিকাশ ভট্টাচার্যকে প্রার্থী করেছিল বামেরা।

মুখ পুড়ল বামেদের। অনেক টালবাহানার পরে বিকাশ ভট্টাচার্যকে প্রার্থী করেছিল বামেরা।

  • Share this:

    #কলকাতা: মুখ পুড়ল বামেদের। অনেক টালবাহানার পরে বিকাশ ভট্টাচার্যকে প্রার্থী করেছিল বামেরা। কিন্তু সময়ের পরে নথি জমা দেওয়ায় তাঁর মনোনয়নপত্রও বাতিল হয়ে গেল । ফলে এই রাজ্য থেকে রাজ্যসভার ছয় আসনে তৃণমূলের পাঁচ জন আর কংগ্রেসের এক প্রার্থীর বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় নিশ্চিত।

    সীতারাম ইয়েচুরিকে কি প্রার্থী করা হবে? তা নিয়ে টানাপোড়েন চলেছে দীর্ঘদিন। সীতারাম প্রার্থী হলে সমর্থনে তৈরি ছিল কংগ্রেস হাইকমান্ড। কিন্তু সিপিএম কেন্দ্রীয় কমিটিতে ভোটাভুটিতে কারাত শিবিরের কাছে হারতে হয় ইয়েচুরিদের। শেষ হয়ে যায় ফের রাজ্যসভায় সীতারামের প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা। তারপরেই রাজ্যসভার ষষ্ঠ আসনের জন্য প্রদীপ ভট্টাচার্যকে প্রার্থী ঘোষনা করে কংগ্রেস। আলাদা প্রার্থী দিতে হয় বামেদেরও। শুক্রবারই রাজ্য বামফ্রন্ট ঘোষনা করে, তাঁদের প্রার্থী বিকাশ ভট্টাচার্য। কিছুক্ষণের মধ্যেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মাস্টারস্ট্রোক। রাজ্যে বাম-কংগ্রেসের ঐক্য ভাঙার সুযোগটা হাতছাড়া করতে চাননি তৃণমূলনেত্রী। জানিয়ে দেন, প্রদীপ ভট্টাচার্যকেই সমর্থন করছেন তাঁরা।

    বেলা ২টো ৩৫ মিনিটে মনোনয়নপত্র পেশ করতে ঢোকেন বামপ্রার্থী বিকাশ ভট্টাচার্য। কিন্তু রাজ্য সরকারের কাছে কোনও দেনা নেই, এ সংক্রান্ত হলফনামা ছিল না। পরে সেই হলফনামা জমা দিতে গেলে তা নিতে অস্বীকার করেন রাজ্যসভা ভোটের রিটার্নিং অফিসার বিধানসভার সচিব। তাঁর যুক্তি, হলফনামা জমা পড়েছে নির্ধারিত সময়ের ২ মিনিট পরে ৩টে ২ মিনিটে। বামেদের যদিও দাবি, তাঁরা হলফনামা জমা দিয়েছেন ২টো ৫৮ মিনিটে। শেষ পর্যন্ত দিল্লির নির্বাচন কমিশন থেকে ফ্যাক্স বা ই মেলে ওই হলফনামা পাঠাতে বলা হয়। রাত পৌনে সাতটা নাগাদ বিধানসভার সচিবকে দিল্লি হাইকোর্টের একটি রায়ের প্রতিলিপি-সহ নোট পাঠায় নির্বাচন কমিশন। তখনই স্পষ্ট হয়ে যায় বিকাশ ভট্টাচার্যর মনোনয়নপত্র বাতিল হচ্ছে।

    সোমবার সকালে বিকাশ ভট্টাচার্যের মনোনয়ন স্ক্রুটিনি শুরু হয় ৷ তবে সেখানে উপস্থিত ছিলেন না বিকাশ ৷ তাঁর প্রতিনিধি হিসেবে ছিলেন সুজন চক্রবর্তীরা ৷

    এরকম ভাবে বামপ্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিলের পিছনে অন্য অঙ্ক কাজ করছে বলে মনে করছেন অনেকেই। তাঁদের মতে, প্রকাশ কারাতদের কট্টরপন্থী লাইনের বিরোধিতায় এটা সিপিএমের বঙ্গ ব্রিগেডের কৌশলী চাল। বিকাশ ভট্টাচার্যর মনোনয়নপত্র বাতিল হলে বাম বিধায়করা কী করবেন তা স্পষ্ট নয়। তবে স্পষ্ট রাজ্যসভার ছয় আসনে তৃণমূলের পাঁচ এবং কংগ্রেসের প্রদীপ ভট্টাচার্যর জয় নিশ্চিত।

    First published: