মানিকতলায় প্রোমোটারকে বোমা, তদন্তে মানিকতলা থানা

মানিকতলায় প্রোমোটারকে লক্ষ করে বোমাবাজি দুষ্কৃতীদের। শনিবার, পাড়ার গণেশ পুজোর ভাসান দেখে হেঁটে বাড়ি ফিরছিলেন

মানিকতলায় প্রোমোটারকে লক্ষ করে বোমাবাজি দুষ্কৃতীদের। শনিবার, পাড়ার গণেশ পুজোর ভাসান দেখে হেঁটে বাড়ি ফিরছিলেন

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: মানিকতলায় প্রোমোটারকে লক্ষ করে বোমাবাজি দুষ্কৃতীদের। শনিবার, পাড়ার গণেশ পুজোর ভাসান দেখে হেঁটে বাড়ি ফিরছিলেন ৩৯/৮/১৬ মানিকতলা মেন রোডের বাসিন্দা গৌতম বসাক। সে সময় কয়েকজন দুষ্কৃতী বাইকে করে আসে তাঁর ওপর হামলা চালায়। গৌতমকে লক্ষ্য করে একটি বোমা ছুড়ে পালায় হামলাকারীরা। বিস্ফোরণের জেরে তাঁর পিঠে ও বুকে আঘাত লাগে। পরিচিতরা গৌতমকে বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করেন। গত ৮ বছর ধরে তিনি প্রোমোটিং ও কনট্রাক্টরি ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত। কারও সঙ্গে গৌতমের শত্রুতা নেই বলেই দাবি পরিবারের। ঘটনায়, মানিকতলা থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। শুরু হয়েছে তদন্ত।

    জুলাই মাসের শুরুর দিকেও, শহর কলকাতায় ঘটেছিল এরকমই এক ঘটনা ৷ দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে বৃহস্পতিবার রাতে গুলি চলে কলকাতার বাঁশদ্রোণীতে ৷ গুলিতে গুরুতর আহত হন রাজীব নন্দী ওরফে জয় নামে এক ব্যবসায়ী ৷

    রিজেন্ট পার্ক থানা এলাকার অন্তর্ভূক্ত বাঁশদ্রোণীর জয়শ্রী ক্লাবের সামনে গতকাল রাতে চলে গুলি ৷ স্থানীয় বিশ্ব পোদ্দার বলে একজনের বাড়ির ছাদে চলছিল পার্টি ৷ মজলিশ চলাকালীনই হঠাৎ ঝামেলা বেঁধে যায় দুই দলের ৷ ক্লাবের ছাদ থেকে ঝগড়া করতে করতে মদ্যপ অবস্থায় নীচে নেমে আসেন জয় ও বেশ কয়েকজন যুবক ৷ নীচে নেমেও মেটে না ঝামেলা ৷

    বচসা চলাকালীনই সেখানে বাইকে করে তিন দুষ্কৃতী এসে গুলি চালায় বলে খবর ৷ মোট পাঁচ রাউন্ড গুলি চালিয়ে সেখান থেকে পালিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা ৷ গুলিতে গুরুতর আহত হন ইমারতি ব্যবসায়ী রাজীব নন্দী ৷ তিনটে গুলি লাগে জয়ের গায়ে ৷ রক্তাক্ত অবস্থায় ক্লাবের সামনের রাস্তাতেই তিনি লুটিয়ে পড়েন ৷ পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে এক স্থানীয় বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা করানো হয় ৷

    পুলিশ সূত্রে খবর, ইমারতি দ্রব্য সরবরাহ নিয়ে বহুদিন ধরেই ওই এলাকায় দুই গোষ্ঠীর মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছিল ৷ স্থানীয় এক নির্মীয়মান বহুতলের প্রোমোটিং নিয়ে রাজীব নন্দীর সঙ্গে সমস্যা ছিল এলাকারই অন্য ইমারতি ব্যবসায়ীর ৷ ব্যবসা থেকে পাওয়া আট লক্ষ টাকার বন্টন নিয়েও সমস্যা চলছিল বলে জয়ের পরিবারের লোক জানিয়েছেন ৷

    গুলি চালনার ঘটনায় উঠে আসছে নান্টি গোষ্ঠীর নাম ৷ পুলিশ জানিয়েছে, নান্টি গোষ্ঠীকে কাজ না দেওয়ায় জয়ের সঙ্গে সমস্যা ছিল তাঁর ৷ বৃহস্পতিবার রাতে পার্টিতে উপস্থিত ছিল সুখলাল, মনা, জনি, কালা ও ভাই নামে নান্টি গোষ্ঠীর লোকেরা ৷

    প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, জয়কে লক্ষ্য করে গুলি চালায় মনা ৷ গুলিকাণ্ডে জনি ও মনাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ৷ বাকিদের খোঁজে চলছে তল্লাশি ৷ তদন্তে নেমে একটি স্করপিও গাড়ি বাজেয়াপ্ত করে পুলিশ৷

    এর আগে হরিদেবপুরে একটি পানশালায় গুলি চালানোর ঘটনায় নান্টি গোষ্ঠীর নাম জড়িয়েছিল ৷

    First published: