মানিকতলার সংঘর্ষে প্রকাশ্যে তৃণমূলের কোন্দল

মানিকতলার ধোপাপাড়ার ঘটনায় ফের প্রকাশ্যে তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দল।

মানিকতলার ধোপাপাড়ার ঘটনায় ফের প্রকাশ্যে তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দল।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতাঃ মানিকতলার ধোপাপাড়ার ঘটনায় ফের প্রকাশ্যে তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দল। বিধায়ক সাধন পাণ্ডে ও স্থানীয় শান্তিরঞ্জন কুণ্ডুর গোষ্ঠীর ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। যদিও, গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের তত্ত্ব উড়িয়ে দিয়েছেন স্থানীয় বিধায়ক সাধন পাণ্ডে। আরও একধাপ এগিয়ে বিজেপি ও সিপিএমের চক্রান্তের অভিযোগ করেছেন কাউন্সিলর শান্তিরঞ্জন কুণ্ডু।

    ধোপাপাড়া ও নতুনপল্লির মধ্যে সংঘর্ষ নতুন নয়। বারবারই মারপিট বেধেছে দুই পাড়ায়। সোমবার তচা চরম আকার নেয়। ঘটনার পিছনে নতুন ও পুরনো তৃণমূলকর্মীদের দ্বন্দ্বের তত্ত্বই উঠে আসছে।

    সিধু ও অরুণ ঝামেলায় ছিল, পুলিশের গাড়ির হলেও কাচ ভেঙে দিয়েছে।

    কে এই সিধু ও অরুণ? স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে,আগে এলাকায় সিপিএম কর্মী হিসেবেই পরিচিত ছিল সিধু ও অরুণ। পুরসভা নির্বাচনের সময় তারা তৃণমূলে যোগ দেয়। এবার বত্রিশ নম্বর ওয়ার্ডে সিপিএম প্রার্থী রূপা বাগচিকে হারিয়েই কাউন্সিলর হন শান্তিরঞ্জন কুণ্ডু।

    ঘটনায় উঠে আসছে তৃণমূল বিধায়ক সাধন পাণ্ডে ও তৃণমূল কাউন্সিলর শান্তিরঞ্জন কুণ্ডুর দ্বন্দ্বের তত্ত্বও। স্থানীয় বিধায়ক হলেও দুই পাড়ার মারপিটের ঘটনা নাকি জানতেনই না সাধন পাণ্ডে।তার দাবি,কালকে আমাকে কেউ জানায়নি,শান্তিদাও ফোন করেনি। পাড়ায়-পাড়ায় ঝামেলা। কোনও রাজনীতি নেই। বিধায়কের পাশে বসেই সিপিএম ও বিজেপির দিকে তির ছুড়েছেন স্থানীয় কাউন্সিলর। ব্রিগেডের জনসভা হোক বা দলীয় বৈঠক। বারবারই গোষ্ঠীকোন্দল এড়ানোর বার্তা দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যয়। সে বার্তা দলীয় স্তরে কতটা পৌঁছেছে তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছেই।

    First published: