১২টি মউ সাক্ষর,বাণিজ্য সম্মেলন সুপারহিট দাবি মুখ্যমন্ত্রীর

রাজ্যের হাতে আড়াই লক্ষ কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রস্তাবের পাশাপাশি ১৩টি ক্ষেত্রে বিভিন্ন শিল্পসংস্থার সঙ্গে মউ সাক্ষরিত হয়েছে। বিশ্ববাংলা বাণিজ্য সম্মেলনের এই সাফল্যকে সামনে রেখেই আগামীদিনে বদলে যেতে চলেছে রাজ্যের শিল্প-মানচিত্রটাই। বাণিজ্য সম্মেলনের মঞ্চে স্পষ্ট ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর। লগ্নি টানতে রাজ্য কোন পথে হাঁটছে, তা বাণিজ্য সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনের শেষে স্পষ্ট হল মুখ্যমন্ত্রীর কথায় ৷

রাজ্যের হাতে আড়াই লক্ষ কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রস্তাবের পাশাপাশি ১৩টি ক্ষেত্রে বিভিন্ন শিল্পসংস্থার সঙ্গে মউ সাক্ষরিত হয়েছে। বিশ্ববাংলা বাণিজ্য সম্মেলনের এই সাফল্যকে সামনে রেখেই আগামীদিনে বদলে যেতে চলেছে রাজ্যের শিল্প-মানচিত্রটাই। বাণিজ্য সম্মেলনের মঞ্চে স্পষ্ট ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর। লগ্নি টানতে রাজ্য কোন পথে হাঁটছে, তা বাণিজ্য সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনের শেষে স্পষ্ট হল মুখ্যমন্ত্রীর কথায় ৷

  • News18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা:  রাজ্যের হাতে আড়াই লক্ষ কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রস্তাবের পাশাপাশি ১২টি ক্ষেত্রে বিভিন্ন শিল্পসংস্থার সঙ্গে মউ সাক্ষরিত হয়েছে। বিশ্ববাংলা বাণিজ্য সম্মেলনের এই সাফল্যকে সামনে রেখেই আগামীদিনে বদলে যেতে চলেছে রাজ্যের শিল্প-মানচিত্রটাই। বাণিজ্য সম্মেলনের মঞ্চে স্পষ্ট ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর। লগ্নি টানতে রাজ্য কোন পথে হাঁটছে, তা বাণিজ্য সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনের শেষে স্পষ্ট হল মুখ্যমন্ত্রীর কথায় ৷

    বাণিজ্য সম্মেলনের সমাপ্তিতে মুখ্যমন্ত্রী  জানালেন,  ‘২ লক্ষ ৫০ হাজার ১৫০ কোটি টাকা প্রাথমিক বিনিয়োগ প্রস্তাব এসেছে সম্মেলনে’ ৷ শুধু লগ্নির অঙ্কই নয়, শিল্পপতিদের আস্থা অর্জনে ব্যবসার জটিলতা শূন্যে নামিয়ে আনার লক্ষ্যে ব্যবস্থা নিচ্ছে রাজ্য। এবার থেকে রাজ্যে লগ্নি করতে চাইলে একদিনেই মিলবে সেই অনুমতি। আবেদন থেকে ছাড়পত্র সমস্ত কিছুই এবার থেকে মিলবে ওয়েবসাইটে। এক জানলা নীতিতে এই ব্যবস্থায় চূড়ান্ত অনুমোদনও ওয়েবসাইটেই হাতে পাবেন শিল্পপতিরা।

    সম্মেলনে সাক্ষরিত হল মোট ১২টি মউ। এর মধ্যে ৮টিতেই অন্যতম সহযোগী রাজ্য। সব মিলিয়ে এই মউ কার্যকর হলেই ২ লক্ষ কোটির লগ্নি আসবে রাজ্যে ৷ বিশ্ববাংলা গ্লোবাল বিজনেস সামিটে এই শিল্পসম্ভাবনাকে ঘিরেই আশার আলো দেখছে রাজ্য।

    সম্মেলনে যে সব ক্ষেত্রে মউ সাক্ষরিত হল, তা হল -

    ১) উৎপাদন ক্ষেত্র ১ লক্ষ ১৫ হাজার কোটি ২)  ক্ষুদ্রশিল্প ৫০ হাজার কোটি ৩) নগরোন্নয়ন ২৯ হাজার কোটি ৪) পরিবহণ ৯, ৩৮৪ কোটি টাকা ৫) পর্যটন ৮৫০ কোটি ৬) স্বাস্থ্য পরিষেবা ২৫০ কোটি ৭) পশুসম্পদ ৪৫ কোটি

    স্মার্ট সিটি থেকে টেলিকম পরিকাঠামোর উন্নতিতেও বিনিয়োগ করবে দেশের প্রথম সারির সংস্থাগুলো। বেশ কিছু প্রকল্পে পিপিপি মডেলের পথে হাঁটতেও সফল রাজ্য।

    সম্মেলন থেকে প্রাপ্তি

    রাজ্যের টেলিকম পরিষেবায় ৫ হাজার কোটি লগ্নি  করছে এয়ারটেল ৷ কৃষি পরিকাঠামো থেকে বণ্টন ব্যবস্থা সম্প্রসারণে ৮,৫০০ কোটি বিনিয়োগ আইটিসির ৷ স্মার্ট সিটি তৈরিতে থাকছে এইচপি, ওরাকেল ও এরিকসনের প্রযুক্তি ও অংশীদারিত্ব  ৷ বৈদ্যবাটিতে গড়ে উঠবে ট্রান্সপোর্ট হাব ৷  টেলিমেডিসিন প্রকল্প গড়তে হাত মেলাচ্ছে  হিডকো এবং এইচপি ৷ অন্ডালে বাস তৈরির কারখানা গড়বে জংটং ৷ সাগর ও রসুলপুরে তৈরি হবে নতুন বন্দর মালদহ ও বালুরঘাটে শুরু হবে নয়া বিমানবন্দর ৷ বাগডোগরা বিমানবন্দরকে আরও সম্প্রসারিত করা হবে ৷

    আইটি থেকে আইটি এনাবেল সার্ভিস, পর্যটন থেকে আর্থিক পরিষেবায় শিল্পতালুক গড়ে তোলার দিকে জোর দিচ্ছে রাজ্য। মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, এই হাবগুলিতে প্রয়োজনীয় পরিকাঠামো তৈরিকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে রাজ্য। বানতলার পাশে সেক্টর VI এ তথ্য প্রযুক্তি হাব ছাড়াও রয়েছে ফিনান্সিয়াল হাব, কল্যাণীর আইটিইএস হাবে লগ্নি টানতেও এদিন রাজ্যের পরিকল্পনা অনেকটাই সফল।

    First published: