• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • MADAN MITRA EXCLUSIVE INTERVIEW BY ETV NEWS BANGLA AFTER GETTING BAIL

‘’ সবাই ঘি-ভাত খায়, আমি চোখের জল দিয়ে ভাত খেয়েছি ....’’ : মদন মিত্র

হোটেলের রুমেই ইটিভি নিউজ বাংলাকে Exclusive সাক্ষাৎকার দিলেন মদন মিত্র ৷

হোটেলের রুমেই ইটিভি নিউজ বাংলাকে Exclusive সাক্ষাৎকার দিলেন মদন মিত্র ৷

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: শনিবারই সারদা মামলায় ৩০ লক্ষ টাকার ব্যক্তিগত বন্ড এবং চারটি শর্তের ভিত্তিতে আলিপুর জেলা দায়রা আদালত মদন মিত্রের জামিন মঞ্জুর করে ৷ এই মামলার পরবর্তী শুনানি ২৩ নভেম্বর ৷ ৬৩৪ দিন দীর্ঘ কারাবাসের পর অবশেষে এখন মুক্তির স্বাদ পেয়েছেন রাজ্যের প্রাক্তন পরিবহনমন্ত্রী মদন মিত্র ৷ আগামী দু’মাস তাই শুধু পরিবারের সঙ্গেই দিন কাটাতে চান তিনি ৷ তবে আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী এখনই তাঁর বাড়ি ফেরা হচ্ছে না। কারণ নির্দেশ অনুযায়ী তাঁকে থাকতে হবে ভবানীপুর এলাকায়। কারণ জামিনের আদেশনামায় ঠিকানা ভুল ছিল ৷ আদেশনামায় উল্লেখ রয়েছে মদন মিত্রের বাড়ি ভবানীপুর থানার অন্তর্গত ৷ কিন্তু আদতে তাঁর বাড়ি কালীঘাট থানা এলাকায় ৷ ভবানীপুর থানার বাইরে যেতে পারবেন না আদালতের আদেশনামায়  এমন শর্তই উল্লেখ রয়েছে ৷ তাই জেল থেকে বেরিয়েই বাড়ি ফিরতে পারলেন না মদন মিত্র ৷ আপাতত তাঁর ঠিকানা ভবানীপুর এলাকার এলগিন রোডের একটি হোটেল।সঙ্গে রয়েছেন পরিবারের সদস্যরাও ৷ ইদের পর ফের আদালত চালু হলে মদন মিত্রের আইনজীবীরা তাঁর কালীঘাট থানা এলাকার বাড়িতে ফেরার অনুমতি দেওয়ার আবেদন জানাবেন। হোটেলের রুমেই ইটিভি নিউজ বাংলাকে Exclusive সাক্ষাৎকার দিলেন মদন মিত্র ৷ কী বললেন তিনি, সেটাই দেখে নেওয়া যাক ---

    প্রাক্তন ক্রীড়া ও পরিবহনমন্ত্রী বলেন, ‘‘ আমার উপর কড়া নির্দেশ রয়েছে ৷ কোনও রাজনৈতিক বিবৃতি না দেওয়ার ৷ যাঁরা আমাকে ভালবাসেন , তাঁদের বলছি, কেউ এমন কিছু করবেন না যাতে মানুষের কোনও অসুবিধা হয় ৷ আমি শুধু রাজনীতিই করি না ৷ খেলাধূলা করি, ক্লাব করি, পুজো করি,সাঁতার কাটি, প্রতিবন্ধিদের নিয়ে কাজ করি ৷ আমি মদন মিত্র দুর্নীতি করেছি , এই অভিযোগে আমি ব্যথিত ৷ আমায় যারা ভালবাসেন তাঁরাও ব্যথিত ৷ আমি আজপর্যন্ত কাউকে চড় মেরেছি এমন কোনও ডায়েরি নেই পুলিশের খাতায় ৷ সেই মদন মিত্রকেই ২০ মাস জেলে কাটাতে হল ৷ সেখানে আমার সঙ্গীরা যারা ছিল, তারা কেউ ধর্ষণকারী, কুখ্যাত ডাকাত, খুনি, আবার কেউ রাষ্ট্রদোহী ৷ এদের সঙ্গে থাকতে হয়েছে, খেতে হয়েছে ৷ লোকে ঘি দিয়ে ভাত খায়, আমি চোখের জল দিয়ে ভাত খেয়েছি ৷ জীবন সম্পর্কে একটা বিতৃষ্ণা এসে গিয়েছিল ৷ আমার মাতৃকূল ও পিতৃকূলে আর কেউ নেই ৷ আমি একা কূলপতি৷ সেই মানুষটা ২১ মাস বাড়ির বাইরে ৷ দারুণ মানসিক কষ্টে দিন কাটিয়েছি ৷ এর মধ্যে শুধুমাত্র ১৫-২০ দিনই বাড়ির খাবার খেয়েছি ৷ কারণ নিয়মিত বাড়ি থেকে খাবার এলে প্রশ্ন উঠতই ৷ আমার ছোট্ট দেড় বছরের নাতিটাই আমার সব ৷ আমার দল যদি আমার পাশে না থাকত, তাহলে আমি আত্মহত্যা করতাম ৷ আত্মহত্যা মহাপাপ সেকথা জেনেও ৷ তবে আমি মনে মনে নিজেকে সান্ত্বনা দিয়েছিলাম, যদি ১৪ বছর পর রামের বনবাস শেষ হয় ৷ যদি পাণ্ডবরাও যুদ্ধে জিততে পারে ৷ তাহলে আমিও সুবিচার পাব এই ভেবেই মনকে শক্ত করেছি ৷ বিচারব্যবস্থার উপর আমার ও আমার পরিবারের আস্থা রয়েছে ৷ শিখর থেকে নীচে পড়েছি, জীবন স্মৃতি নিয়ে লেখার ইচ্ছে রয়েছে ৷ কিন্তু লিখব না, আমার এই দিনগুলোর কথা সবটা লিখতে পারব না ৷ অনেক বিখ্যাত মানুষই নিজের জীবন স্মৃতি লেখেননি ৷ এই ২১ মাসের সবকিছু লিখতে পারব না ৷ নাহলে মিথ্যা কথা লিখতে হবে‌ ৷ পাপ আর মিথ্যের বোঝা বইতে হচ্ছে ৷তাই বাড়ি থেকে তিন মিনিট দূরে থেকেও বাড়িতে যেতে পারলাম না ৷ বুকে ব্যথা নিয়ে মনে বিদ্রাহ তৈরি হয়েছিল ৷ কিন্তু আমি নজরুলের মতো বলতে পারি না ‘আমি বিদ্রোহী রণক্লান্ত, আমি সেই দিন হব শান্ত..’ ৷ ২১ মাসে ২১ বছরের অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করেছি ৷ নিজের নতুন করে কিছু করার মানসিকতা নেই ৷ এখন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগে নতুন দিন দেখতে চাই ৷ আমি দেখতে চাই বাংলায় BMW কারখানা হোক ৷ টাটা আবার রাজ্যে কারখানা করুক ৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশের অপেক্ষায় রয়েছি ৷ কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করতে চাই ৷ এখন ২ মাস বাড়ির লোকের সঙ্গে কাটাতে চাই ৷ ’’

    জেল থেকে বেরিয়ে সারদাকাণ্ডে অভিযুক্ত প্রাক্তন মন্ত্রী অবশ্য বলেছিলেন, ‘সিবিআই যা বলবে তাই মানব। আদালতের রায় থেকে এর ইঞ্চিও সরব না। ২০ মাস বাদে জেল থেকে বেরিয়ে কলকাতাকে সম্পূর্ণ নতুন লাগছে। এখন শুধু বাড়ি আর দুর্গাপুজো। এছাড়াও ছোট্ট নাতির সঙ্গে সময় কাটাতে চান মদন।

    First published: