খিদিরপুর ২৫ পল্লীর পুজোর থিম ‘সৃষ্টি সুখ’

ন’ মাস দশ দিনের অধীর অপেক্ষা। নাড়ি ছেঁড়া যন্ত্রণায় তার জন্ম। পৃথিবীর আলোয় প্রথম চোখ মেলা।

ন’ মাস দশ দিনের অধীর অপেক্ষা। নাড়ি ছেঁড়া যন্ত্রণায় তার জন্ম। পৃথিবীর আলোয় প্রথম চোখ মেলা।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: ন’ মাস দশ দিনের অধীর অপেক্ষা।  নাড়ি ছেঁড়া যন্ত্রণায় তার জন্ম। পৃথিবীর আলোয় প্রথম চোখ মেলা। সহ্যের অতীত যন্ত্রণা শেষে মায়ের মুখে তখন স্বর্গীয় হাসি। অনাবিল এক শান্তি। সৃষ্টি সুখের উল্লাসে তখন উদ্ভাসিত মা। আদি অনন্তের এই সৃষ্টি-সত্য-ই এবার খিদিরপুর ২৫ পল্লীর পুজো থিম। বাহাত্তরে পা দেওয়া পুজোর মণ্ডপ জুড়ে এবার শাশ্বত এই সৃষ্টি রহস্য। সময় বদলাচ্ছে। বদলাচ্ছে জীবন-যাপন। প্রত্যেকটা দৌড় আজ দামী। কখনো সময়ের কারণে। কখনও যাপনের জন্য। ছুটতে ছুটতেই কোথা দিয়ে যেন কেটে যায় জীবন। অথচ সৃষ্টি তত্ত্বের কোন বদল নেই। সম্ভবও নয়। সেই আদি। সেই অনাবিল। মূল লক্ষ্য এক। এক থেকে বহু হওয়া। বহু থেকে এক। জীবনের এই সার সত্যই খিদিরপুর ২৫ পল্লীর এবারের পুজো ভাবনা। থিমের ভারে নয়, বিষয়ের গভীরতায় মণ্ডপ সাজাতে ব্যস্ত শিল্পী। প্রতিমা শিল্পী পরিমল পাল। তার প্রতিমায় যেমন মাতৃভাব প্রকট থাকে। এবারো তার ব্যতিক্রম নেই। তবে প্রতিমায় থাকছে মেটাল এফেক্ট। মণ্ডপসজ্জায় কাঠ, মেটাল, আট হাজার স্টিলের চামচ, তিন হাজার স্টিলের ডালের হাতা, এমনই নানা জিনিসের ব্যবহার। পুরোটাই অ্যান্টিক অ্যাম্বিয়েন্স।  বলাগড় থেকে এসেছে বিশাল শিবলিঙ্গ। কৃষ্ণনগর থেকে তিনশোর বেশি ফাইবারের পুতুল।  বাহাত্তরে প্রবীণ খিদিরপুর ২৫ পল্লীতে এবার নারী শক্তির এক অন্য প্রদর্শন। নতুন ভাবনা নয়। বরং কিছুটা পুরনোই।  তবে নতুন প্যাকেজিং-এ।  মুগ্ধ হবেন দর্শকরা। হয়ত ভাববেনও। সৃষ্টির আদি অন্ত কথায় হয়ত খুঁজে ফিরবেন নিজেকেই। সেই অনুভূতি সৃষ্টিতেই এখন দিন-রাত এক করেছেন শিল্পী। তিন ভাগে সেজে উঠছে মণ্ডপ। প্রথমেই ৪০ ফুটের বিশাল শিবলিঙ্গ। তার ভিতর দিয়েই মণ্ডপে প্রবেশ। শিব-পার্বতীর মিলন-ক্ষেত্র। আলো-আঁধারিতে সৃষ্টি রহস্যের প্রথম ধাপ। সৃষ্টির পর শেষ ধাপে উল্লাস। আনন্দ। আলোয় ঝলমলে চারদিকে।

    First published: