corona virus btn
corona virus btn
Loading

৫ ঘণ্টা পর ঘেরাও উঠল এসএসকেএমে

৫ ঘণ্টা পর ঘেরাও উঠল এসএসকেএমে

মুখ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা পর ঘেরাও কর্মসূচি উঠল এসএসকেএমে। রাজ্যের একমাত্র সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে কথায় কথায় বিক্ষোভ-আন্দোলন করে পরিষেবা বন্ধ নয়।

  • Share this:

#কলকাতা: মুখ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা পর ঘেরাও কর্মসূচি উঠল এসএসকেএমে। রাজ্যের একমাত্র সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে কথায় কথায় বিক্ষোভ-আন্দোলন করে পরিষেবা বন্ধ নয়। জুনিয়র ডাক্তারদের মুখ্যমন্ত্রীর বার্তাই শুনিয়ে দিলেন স্বাস্থ্যসচিব। লাঠি নিয়ে যেসব জুনিয়র ডাক্তার বিক্ষোভ করেছেন তাঁদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। এরপরই সুর নরম করে ঘেরাও তুলে নিয়েছেন জুনিয়র ডাক্তাররা।

রাজ্যের একমাত্র সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল এসএসকেএমে বিক্ষোভ-আন্দোলন ৷ তীব্র অসুবিধায় রোগীরা দায় নেবে কে? রোগীমৃত্যুর জেরে জুনিয়র ডাক্তারদের সঙ্গে পেশেন্ট পার্টির হাতাহাতি হাসপাতালে নতুন নয়। সোমবারও একই ঘটনা ঘটেছিল এসএসকেএমে। আর তার জেরেই মঙ্গলবার সকাল থেকেই পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে।

বেলা ১২.৪০

এসএসকেএমে ঢোকেন মুখ্যমন্ত্রী। বিক্ষোভ-আন্দোলনের রাস্তা ছেড়ে হাসপাতালের পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার বার্তা দেন তিনি।

দুপুর ১.১৫

পরিস্থিতি দেখে স্বাস্থ্যশিক্ষা অধিকর্তা সুশান্ত বন্দ্যোপাধ্যায়, ডিরেক্টর মঞ্জু বন্দ্যোপাধ্যায় ও হাসপাতাল সুপার কাবেরী বড়াল বৈঠকে বসেন। সেসময়ই ঘরের বাইরে ধাক্কাধাক্কি শুরু করেন জুনিয়র ডাক্তাররা। হইহল্লা করে জোর করে ঘরে ঢুকে ঘেরাওয়ে বসে যান জুনিয়র ডাক্তারা।

বিকেল ৪.৪৫ হাসপাতালে আসেন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস।

বিকেল ৫.০৫ এসএসকেএমে আসেন স্বাস্থ্যসচিব আর এস শুক্লাও।

বিকেল ৫.১০ শুরু হয় জুনিয়র ডাক্তারদের সঙ্গে বৈঠক। বৈঠকে হাসপাতালের পরিকাঠামো উন্নয়ন, দালালরাজ বন্ধ ও নিরাপত্তার দাবি তোলেন জুনিয়র ডাক্তাররা। পাল্টা রাজ্যের প্রতিনিধিরাও কড়া হুঁশিয়ারি দেন। রাজ্যের হুঁশিয়ারি , এখন কোনও রোগীর মৃত্যু হলে তার দায় নেবে কে? চাপের মুখে সুর নরম করে জুনিয়র ডাক্তাররা। তুলে নেওয়া হয় ঘেরাও।

এসএসকেএমের মতো সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে রোগীর ভিড় বারবর বেশি। সেখানে, বারবার এমন ঘটনায় অস্বস্তিতে রাজ্য সরকার। ভবিষ্যতে এমন পরিস্থিতি এড়াতে কড়া অবস্থানই নেওয়া হবে, মঙ্গলবার রাজ্যের পদক্ষেপ তেমনই ইঙ্গিত দিল।

First published: August 30, 2016, 8:20 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर