?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

কেন্দ্রীয় কমিটিকে উপেক্ষা করে কংগ্রেসের মিছিলে সিপিআইএম

কেন্দ্রীয় কমিটিকে উপেক্ষা করে কংগ্রেসের মিছিলে সিপিআইএম

কেন্দ্রীয় কমিটিতে যাই হোক রাজ্যে হাত ও হাতুড়ি একসঙ্গে চলার মনোভাবেই অটল সিপিআইএম ৷

  • Share this:

#কলকাতা: কেন্দ্রীয় কমিটিতে যাই হোক রাজ্যে হাত ও হাতুড়ি একসঙ্গে চলার মনোভাবেই অটল সিপিআইএম ৷ তাই কেন্দ্রীয় কমিটি জোটে না বললেও রাজ্যে এখনও কাছাকাছি সিপিআইএম ও কংগ্রেস ৷

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের অভিমত, কংগ্রেসের সঙ্গে কোনও জোট না বাঁধার কমিটি সিদ্ধান্তকে রীতিমতো চ্যালেঞ্জ করে উল্টোপথে হাঁটতে চলেছে রাজ্য সিপিআইএম ৷

মঙ্গলবার দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি ইস্যুতে আলাদা আলাদাভাবে মহামিছিলের ডাক দেয় বামফ্রন্ট ও কংগ্রেস ৷ আগামী ১১ জুলাই দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে ফ্রন্ট ও সহযোগীদের মিছিলে যেখানে ব্রাত্য কংগ্রেস, সেখানে ২৫ জুলাই কংগ্রেসের মিছিলে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল বামেদের ৷ সেই আমন্ত্রণের পরিপ্রেক্ষিতে কংগ্রেসের মিছিলে সিপিআইএম প্রতিনিধির উপস্থিতির ইস্যু নিয়ে এদিন উত্তপ্ত হয়ে ওঠে CPiM কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক ৷ কংগ্রেস মিছিলে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে সূর্যকান্ত মিশ্রকে কিন্তু ওড়িশায় দলের কাজ নিয়ে মিছিলে অংশ নেওয়ার দায়িত্ব এড়ান সূর্যকান্ত ৷

বহু তর্কবিতর্কের পর স্থির হয় যে, ২৫ জুন কংগ্রেসের কর্মসূচিতে থাকতে পারে সিপিআইএম ৷ বুধবারের রাজ্য সম্পাদকমণ্ডলীর বৈঠকে অবশেষে মিলল ছাড়পত্র ৷ তবে এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে বাম পরিষদীয় দলগুলি ৷ তবে দলীয় সূত্রে খবর, মিছিলে সিপিআইএমের তরফ থেকে কারা থাকবে সেই নিয়ে কংগ্রেসের সঙ্গে আলোচনা করেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে ৷

অতএব কেন্দ্রীয় কমিটি না চাইলেও জোট বহাল রাখার পক্ষপাতি রাজ্য সিপিআইএম ৷ এদিকে বিধানসভায় কংগ্রেসের কাছাকাছি সিপিএম। মঙ্গলবার বাম-কং দুই শিবির একসঙ্গে আনল মুলতুবি প্রস্তাব । শীর্ষ নেতৃত্বের সিদ্ধান্ত অগ্রাহ্য করেই তাতে কার্যত সায় দেন সুজন চক্রবর্তী।

মঙ্গলবার আরও একবার জোটের পক্ষে জোরালো সওয়াল করলেন আব্দুল মান্নান। কারণ কংগ্রেস হাইকম্যান্ড রাজ্য বামেদের সঙ্গে জোট বেঁধে চলার পক্ষপাতী ৷ মঙ্গলবার বিধানসভার ঘটনাক্রমে তারই প্রমাণ। এদিন বাম ও কংগ্রেস পরিষদীয় দল যৌথভাবে মুলতুবি প্রস্তাব আনে। পেট্রোল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে তারা আলোচনার প্রস্তাব দিলেও তা খারিজ করে দেন অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়।

সিপিএম কেন্দ্রীয় কমিটি কংগ্রেসের সঙ্গে জোটের পথ নাকচ করেছে। এ কে গোপালন ভবনের ক্রুসেডে বঙ্গ ব্রিগেড হার মেনেছে কেরল লবির কাছে। তা সত্ত্বেও এ রাজ্যের সিপিএম নেতৃত্ব জোটের রাস্তা ছাড়তে রাজি নয় বলেই মনে হচ্ছে। আবার অন্যদিকে, কেন্দ্রীয় কমিটির সিদ্ধান্ত মেনে কংগ্রেসকে বাদ রেখে আলাদাভাবে কর্মসূচি ডাকে বামফ্রন্ট ও তাঁর সহযোগী দলগুলি ৷

শীর্ষ নেতৃত্ব যাই সিদ্ধান্ত নিক, বামেরা কংগ্রেসের হাত ছাড়তে নিমরাজি। আবদুল মান্নানের বক্তব্যকেই কার্যত সমর্থন জানায় বাম পরিষদীয় দলনেতা । কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব নিষেধ করলেও কেন বিধানসভায় এখনও কেন সমঝোতার ছবি বাম ও কংগ্রেসের ? এই প্রশ্নের সদুত্তর দিতে পারেননি বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান।

জোট বেঁধেই ভরাডুবি। এবার দুর্বল সংগঠন নিয়ে একলা চললে সিপিএম তৃণমূলের মোকাবিলা করতে পারবে না। এই সার কথা বুঝে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সিদ্ধান্ত সত্ত্বেও কংগ্রেসের হাত ছাড়তে চাইছে না এ রাজ্যের সিপিএম নেতৃত্ব। এমনটাই অভিমত রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের।

First published: June 22, 2016, 3:54 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर