corona virus btn
corona virus btn
Loading

শিশু বদলের ঘটনায় ডিএনএ টেস্টে রাজি ESI

শিশু বদলের ঘটনায় ডিএনএ টেস্টে রাজি ESI

মানিকতলার ইএসআই হাসপাতালে শিশু বদলের ঘটনায় ডিএনএ পরীক্ষার দাবি তুলল পরিবার। সেই পরীক্ষা করতে রাজি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষও। যদিও শিশু বদলের অভিযোগ অস্বীকার করে, পুরনো অবস্থানেই এখনও অনড় কর্তৃপক্ষ।

  • Share this:

#কলকাতা: মানিকতলার ইএসআই হাসপাতালে শিশু বদলের ঘটনায় ডিএনএ পরীক্ষার দাবি তুলল পরিবার। সেই পরীক্ষা করতে রাজি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষও। যদিও শিশু বদলের অভিযোগ অস্বীকার করে, পুরনো অবস্থানেই এখনও অনড় কর্তৃপক্ষ। তাদের দাবি, প্রসবের পর অচৈতন্য হয়ে পড়েন এক মহিলা। সদ্যোজাতকে দুধ খাওয়ানোর জন্যই অন্য বেডে রাখা হয়। সেখান থেকেই ভুল বোঝাবুঝির সূত্রপাত।

একই দিনে দুই গর্ভবতী হাসপাতালে ভর্তি। প্রায় একই সময়ে প্রসব। দু'জনেই কন্যাসন্তানের জন্ম দেন। সেই শিশু দু'টি বদলের অভিযোগেই আপাতত সরগরম মানিকতলার ইএসআই হাসপাতাল।

উত্তর ২৪ পরগনার কাঁচরাপাড়ার বাসিন্দা কৃষ্ণপ্রসাদ। শুক্রবার সকালে মানিকতলা ESI হাসপাতালে ভর্তি হন তার স্ত্রী ঊষা দেবী। সেদিন বিকেলে একটি কন্যাসন্তানের জন্ম দেন ঊষা দেবী। শুক্রবারই হাসপাতালে ভর্তি হন বেলেঘাটার বাসিন্দা বিশ্বনাথ দাসের স্ত্রী বর্ণালি দাস। প্রায় একই সময়ে একটি কন্যাসন্তানের জন্ম দেন তিনিও।

প্রসূতি বিভাগের চার নম্বর বেডে ছিলেন উষা দেবী, এবং ১২ নম্বর বেডে ছিলেন বর্ণালি। শুক্রবার বিকালে কন্যাসন্তান প্রসবের পরই অচৈতন্য হয়ে পড়েন ঊষা দেবী ৷ সদ্যোজাতকে দুধ খাওয়ানোর জন্য ১২ নম্বর বেডে রাখা হয় ৷ এর ফলেই ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয় ৷

শনিবার দুপুরে, এই দুই বেডের শিশু বদল হয়ে যায়। সন্ধ্যে ৬টায় শিশুর সংখ্যা মিলিয়ে দেখার সময় এই শিশু বদল নজরে আসে কর্তৃপক্ষের। তখনই নিজেদের ভুল সংশোধন করেন হাসপাতালের কর্মীরা। তখনই বিষয়টি নজরে আসে কৃষ্ণপ্রসাদের পরিবারেরও। এরপর তারা নিজেরাই ধন্দে পড়ে যান কোন শিশুটি কাদের।

প্রাথমিকভাবে শিশু লদ অভিযোগ অস্বীকার করলেও, পরে তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশ দেন হাসপাতাল সুপার। সাময়িক সাসপেন্ড করা হয় হাসপাতালের দুই গ্রুপ ডি কর্মীকেও। তাতেও সন্তুষ্ট হননি উত্তর ২৪ পরগনার কাঁচরাপাড়ার বাসিন্দা কৃষ্ণপ্রসাদ ও তাঁর স্ত্রী ঊষা দেবী। সন্তান সম্পর্কে নিশ্চিত হতে ডিএনএ পরীক্ষার দাবি তোলেন তাঁরা। যদিও ঘটনায় অন্তর্তদন্ত করে প্রকাশ্যে আসে নতুন তথ্য।

ইএসআই হাসপাতালের এই ঘটনা ফিরিয়ে দিয়েছে মেডিক্যাল কলেজের শিশুবদলের স্মৃতি। সেইসময়ও ডিএনএ পরীক্ষা হয়। এবারও কী সেইপথে মিলবে সমাধান?

First published: June 26, 2016, 7:27 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर