Home /News /kolkata /
সার্ভিক্যাল ক্যান্সার নিয়ে নতুন উদ্যোগ মেডিকার

সার্ভিক্যাল ক্যান্সার নিয়ে নতুন উদ্যোগ মেডিকার

সার্ভিক্যাল ক্যান্সার এক ভয়ানক মারণব্যাধি ৷ ভারতীয় মহিলারাই আবার সার্ভিক্যাল ক্যান্সারে সব চেয়ে বেশি আক্রান্ত হন ৷ পরিসংখ্যান বলছে, প্রতি বছর ভারতে প্রায় ১ লক্ষ ২৩ হাজার মহিলা এই ক্যান্সারে আক্রান্ত হন, যাদের মধ্যে কমপক্ষে ৭০ হাজার মহিলার এই রোগে মৃত্যুও ঘটে ৷ তাই জরায়ু-মুখের ক্যান্সার সম্পর্কে সবার মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে এবার নতুন উদ্যোগ নিল মেডিকা সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল ৷

আরও পড়ুন...
  • News18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: সার্ভিক্যাল ক্যান্সার এক ভয়ানক মারণব্যাধি ৷ ভারতীয় মহিলারাই আবার সার্ভিক্যাল ক্যান্সারে সব চেয়ে বেশি আক্রান্ত হন ৷ পরিসংখ্যান বলছে, প্রতি বছর ভারতে প্রায় ১ লক্ষ ২৩ হাজার মহিলা এই ক্যান্সারে আক্রান্ত হন, যাদের মধ্যে কমপক্ষে ৭০ হাজার মহিলার এই রোগে মৃত্যুও ঘটে ৷ তাই জরায়ু-মুখের ক্যান্সার সম্পর্কে সবার মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে এবার নতুন উদ্যোগ নিল মেডিকা সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল ৷ অল লেডিজ লিগের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে শনিবার একটি বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল মেডিকা সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে ৷ এদিনের অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ক্ষেত্র থেকে আসা মহিলারা ও স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞরা এই বিষয়ে সচেতনতা বাড়ানোর জন্য নিজেদের বক্তব্য পেশ করেন ৷ ডাক্তারদের মতে, ২৫ বছরের পর থেকে মহিলাদের নিয়মিত প্যাপ স্ফিয়ার টেস্ট করানো উচিত ৷ উন্নয়নশীল দেশে জরায়ু-মুখের ক্যান্সার নিয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানগুলি মহিলাদের মধ্য সচেতনতা বাড়াতে সফল হয়েছে ৷ আর এর ফলে মহিলাদের মধ্য সার্ভিক্যাল ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ার সংখ্যা এখন অনেক কমেছে ৷ তাই এবার ভারতেও মহিলাদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে এই উদ্যোগ নিয়েছে মেডিকা ৷

    এদিনের অনুষ্ঠানে হাসপাতালের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ডা: কুণাল সরকার জরায়ু-মুখের ক্যান্সার সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে মেডিকার ভূমিকা নিয়ে কথা বলেন ৷ গাইনেকোলজিস্ট ডা: জয়াশিষ চক্রবর্তী জানান, ‘‘রোগ প্রতিরোধের ক্ষেত্রে প্রথমে প্রয়োজন সচেতনতা বৃদ্ধি। দেখা গিয়েছে ,অনেক মহিলারাই এই হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস সম্পর্কে জানেন না, যা জরায়ু মুখের ক্যান্সারের জন্য দায়ী ৷ ২৫ বছর বয়স হলেই নিয়মিত স্ক্রিনিং বা পরীক্ষা শুরু করে দেওয়া উচিত ৷’’ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ডা: চন্দ্রিমা দাশগুপ্ত, গায়িকা লোপামুদ্রা মিত্র, ন্যাশনাল হেলথ মিশনের ডিরেক্টর সংঘমিত্রা ঘোষ প্রমুখ ৷ সার্ভিক্যাল ক্যান্সারের পাশাপাশি, এদিন মহিলাদের যৌন সমস্যা এবং স্ক্রিনিং ও হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস টিকা-র গুরুত্ব নিয়েও আলোচনা করা হয় ৷

    First published:

    Tags: Awareness Programme, Cervical Cancer, Cervical Cancer Prevention, Dr Kunal Sarkar, Medica Superspeciality Hospital

    পরবর্তী খবর