• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • BENGAL MUNICIPAL ELECTIONS TMC SWEEPS PLAINS DENTS GJM IN MIRIK

পাহাড়ে মোর্চা বিরোধী হাওয়া, জোট না করে অস্তিত্ব সঙ্কটে জ্যাপের

পুর-নির্বাচনে বিমল গুরুং-হড়কা বাহাদুর ছেত্রীদের যে এভাবে ধাক্কা দেবে তৃণমূল, তা ভাবতে পারেননি কেউই।

পুর-নির্বাচনে বিমল গুরুং-হড়কা বাহাদুর ছেত্রীদের যে এভাবে ধাক্কা দেবে তৃণমূল, তা ভাবতে পারেননি কেউই।

  • Share this:

    #কলকাতা: পাহাড়ে মোর্চা বিরোধী হাওয়া বইতে শুরু করেছে, সেটা টের পাওয়া গিয়েছিল আগেই। কিন্তু পুর-নির্বাচনে বিমল গুরুং-হড়কা বাহাদুর ছেত্রীদের যে এভাবে ধাক্কা দেবে তৃণমূল, তা ভাবতে পারেননি কেউই। মিরিক পুরসভা তৃণমূলের দখলে। বিমল গুরংয়ের গড়েও হানা রাজ্যের শাসকদলের। এই ফল কার্যত অস্তিত্ব সংকটের মুখে দাঁড় করিয়ে দিল গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা প্রধানকে। আর হরকা বাহাদুর ছেত্রী? নিজের দল গড়ে ভোটে লড়ে আপাতত রাজনৈতিক অনিশ্চয়তার মুখে প্রাক্তন জেজিএম নেতা। উন্নয়ন হোক বা অচলাবস্থা বন্ধ করতে কড়া মনোভাব। পাহাড় নিয়ে সমঝোতার পথে হাঁটেননি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফলও মিলল হাতেনাতে। পুরভোটের ফলই বলে দিল, পাহাড় আর গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার খাসতালুক নয়। হরকা বাহাদুর ছেত্রীকেও প্রত্যাখ্যান করল পাহাড়বাসী। কেন, উত্তর খুঁজতে বসে উঠে আসছে বিভিন্ন সম্ভাবনা ৷ দীর্ঘ ১ দশকেও পাহাড়ে উন্নয়নের দিশা দেখাতে ব্যর্থ গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা সুভাষ ঘিসিং মডেলের বিরোধিতায় নতুন দল গড়লেও ঘিসিংয়ের ধংস্বাত্মক রাজনীতিতেই ফিরিয়ে আনেন গুরং ক্ষমতা পেয়েও রাজ্যের সঙ্গে উন্নয়নে সহযোগিতাও করেননি ঘনঘন সফর করে পাহাড়বাসীকে দিশা দিতে সফল মুখ্যমন্ত্রী বিভিন্ন জনজাতির জন্য উন্নয়ন বোর্ড গঠন করার ফল পেয়েছে তৃণমূল পাহাড় নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী পরিকল্পনা ও আবেগ পাহাড়বাসীর মন ছুঁয়েছে পাহাড়বাসীর মনবদল তাই ঘটে গিয়েছে নিঃশব্দেই। বিমল গুরংরা টেরও পাননি। পাহাড়ের রাজনীতিতে এই বদলে বিস্ময় এখনও কাটিয়ে উঠতে পারছেন না পাহাড়ে এককালের বেতাজ বাদশা। বিমল গুরংয়ের মতোই অনিশ্চিত হরকা বাহাদুর ছেত্রীর ভবিষ্যৎও। ঢাকঢোল পিটিয়ে দল তৈরি করলেও পাহাড়ের ৪ পুরসভার একটিতেও দাঁত ফোটাতে পারল না জ্যাপ। তৃণমূলের সঙ্গে জোটের কথা চালালেও শেষ মুহুর্তে সরে দাঁড়ান হরকা। অথচ অঙ্ক বলছে, জোট হলে কালিম্পংয়ে আরও ১৫টি আসন বেশি পেত তৃণমূল-জ্যাপ। বোর্ড গড়ার লড়াইয়েও থাকতে পারতেন হরকা। কার্শিয়াং ও দার্জিলিংয়ের ২ নম্বরে উঠে আসত জোট। সেই সম্ভাবনা নিজের হাতে নষ্ট করে এখন সব অর্থেই পথ হাতড়াচ্ছেন প্রাক্তন জেজিএম নেতা। কেন্দ্র নাকি গোর্খাল্যান্ড দেবে। এই যুক্তিতেই বিজেপির সঙ্গে হাত মিলিয়েছিলেন গুরুংরা। জিজেএমের হাত ধরে লোকসভা ভোটের বৈতরণী পার হলেও এবার কি হবে? পাহাড়ে জমি হারানো জিজেএমের সঙ্গে জোট নিয়ে ভাবতে হবে বিজেপিকে। গেরুয়া শিবির জিজেএমের হাত ছাড়লে শ্যাম -  কূল দুই-ই যাবে। কি করলে কিছুটা হলেও প্রাসঙ্গিক থাকা যাবে পাহাড়ে - আপাতত হাতে পেনসিল নিয়ে তাই ঠিক করতে হবে বিমল গুরংদের।

    First published: