রোগাক্রান্ত গাড়ি ধরতে কাল থেকে রাজ্যের বিশেষ ক্যাম্প, দেওয়া হবে আর্থিক ছাড়

রোগাক্রান্ত গাড়ি ধরতে কাল থেকে রাজ্যের বিশেষ ক্যাম্প, দেওয়া হবে আর্থিক ছাড়
আগামীকাল থেকে আগামী ৪৫ দিন ধরে এই বিশেষ ক্যাম্প চলবে

কবে থেকে মিলবে এই সুবিধা জেনে নিন

  • Share this:

#কলকাতা: কলকাতা শহরে দূষণের অন্যতম কারণ হল গাড়ির দূষণ। কথা ছিল নতুন বছরের শুরু থেকেই চলবে সেই সমস্ত গাড়ি আটক করার কাজ। যদিও ২ সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও ধরা পড়েনি একটাও গাড়ি। যদিও রাজ্যের ব্ক্তব্য, অসুস্থ গাড়িকে সুস্থ করতে তারা বিশেষ শিবিরের আয়োজন করছে। আগামীকাল ১৪ জানুয়ারি থেকে আগামী ৪৫ দিন ধরে এই বিশেষ ক্যাম্প চলবে আরটিও অফিসগুলিতে। রাজ্যের দাবি বাণিজ্যিক গাড়িতে জরিমানায় ছাড় দিলেই জানা যাবে রোগ আক্রান্ত গাড়ির সংখ্যা। রাজ্য পরিবহণ দফতরের কাছে চলে আসবে প্রকৃত তথ্য। বাণিজ্যিক গাড়ি হোক বা প্রাইভেট কার। রাস্তায় গাড়ি চালাতে গেলে দরকার ফিটনেস সার্টিফিকেট। বিশেষ করে বাণিজ্যিক গাড়ির তো ফিটনেস সার্টিফিকেট থাকা বাধ্যতামূলক। কিন্তু মুর্শিদাবাদ-সহ বেশ কয়েকটি বাস দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধান করতে গিয়ে দেখা যায় বাণিজ্যিক গাড়ি হলেও তাদের নেই ফিট সার্টিফিকেট। এমনকি গতবছরের শেষের দিকে বাগবাজারে হওয়া স্কুল বাস দুর্ঘটনার তদন্তেও দেখা যায় নেই সি এফ বা ফিটনেস সার্টিফিকেট। রাজ্য পরিবহণ দফতর তখনই সিদ্ধান্ত নেয় অসুস্থ গাড়ী ধরতেই হবে। কিন্তু উপযুক্ত কর্মী ও পরিকাঠামো না থাকায় সেই কাজ শুরু করতে পারা যায়নি। তাই রাজ্য সরকার এবার অভিনব সিদ্ধান্ত গ্রহণ করল। যে সমস্ত বাণিজ্যিক গাড়ির সি এফ ফাঁকি দেওয়ার কারণে প্রচুর টাকা বকেয়া হয়ে গেছে তাদের এবার আর্থিক ছাড় দেওয়া হবে। কোনও গাড়ি ফিটনেস সার্টিফিকেট নিতে আসতে গেলে কী কী দেখা হয়? দেখা হয় তাদের যথাযথ টায়ার আছে কিনা। দেখা হয় গাড়ির টেকনিক্যাল নানা বিষয়। এমনকি গাড়ির আসন থেকে শুরু করে গাড়ির জানলা-দরজাও পরীক্ষা করা হয়। কিন্তু কে শোনে আর কে দেখে? ফলে পরিবহণ দফতরের চোখে ধুলো দিয়েই রাস্তায় দৌড়ে বেড়াচ্ছে প্রচুর ফিটনেস ফেল করা গাড়ি। তাই রাজ্য সিদ্ধান্তে এসেছে যাদের যতটাকা করে জরিমানা জমে আছে তাতে ছাড় দেওয়া হবে। মাত্র ১৫০০ টাকা দিলেই মিলবে ছাড়। নিয়মানুযায়ী সি এফ করাতে গেলে দিতে হয় ৮৪০ টাকা। এরপরে যে যে সমস্যা ধরা পড়ে তা ঠিক করতে গেলে আলাদা টাকা খরচ হয়। অনেকেই খরচের ভয়ে সেই গাড়ির আর ফিটনেস সার্টিফিকেট নিতে কেউ আসেনা। ফলে আনফিট গাড়ি ঘুরে বেড়াচ্ছে গোটা শহর জুড়েই। সি এফ ফেল করার পরে নতুন করে আর সি এফ করাতে না আসলে প্রতিদিন খরচ হয় বা খাতায় জমা পড়ে মাত্র ৫০ টাকা করে। ফলে পরিবহণ দফতরের হিসেব বলছে এক একটি বাণিজ্যিক গাড়ির নামে জমা হয়ে আছে কয়েক হাজার টাকা।

এবার সেই গাড়িগুলির জরিমানায় ছাড় দিতে চলেছে রাজ্য সরকার। রাজ্যের ক্ষতি হলেও পরিবহণ দফতর সূত্রে খবর তারা এই স্কিমের মাধ্যমে গাড়ির প্রকৃত তথ্য পেয়ে যাবেন। কারণ সি এফ না থাকা গাড়ির জন্য রাস্তায় ঘটে চলেছে একের পর এক দুর্ঘটনা। আর রাজ্যের লক্ষ্য হচ্ছে সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ প্রকল্পের মাধ্যমে গাড়ি দুর্ঘটনার হার শুন্যতে নামিয়ে আনা। তাই ফিটনেস সার্টিফিকেট বিষয়ে এই নতুন ব্যবস্থা চলবে ৪৫ দিন ধরে। রাজ্যের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে বাস-লরি-ট্যাক্সি অ্যাসোসিয়েশনগুলি। তবে এই লোভনীয় ব্যবস্থা চালু হলেও কত গাড়ির মালিক আসবে সেটাই এখন দেখার।

First published: January 13, 2020, 12:39 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर