corona virus btn
corona virus btn
Loading

বেসরকারি স্কুলগুলির লাগাম ছাড়া ফি বৃদ্ধি ! পরিকাঠামোর উন্নয়ন ঘিরে উঠছে প্রশ্ন

বেসরকারি স্কুলগুলির লাগাম ছাড়া ফি বৃদ্ধি ! পরিকাঠামোর উন্নয়ন ঘিরে উঠছে প্রশ্ন
Representational Image

স্কুলগুলির পরিকাঠামো উন্নয়ন ঘিরে রয়েছে বিস্তর প্রশ্ন। ফলে ক্ষোভ বাড়ছে অভিভাবকদের।

  • Share this:

#কলকাতা:  লাগাম ছাড়া বেতন বৃদ্ধি বেশিরভাগ বেসরকারি স্কুলেই। শেষ পাঁচ বছরের পরিসংখ্যান বলছে গড়ে প্রত্যেক বছর স্কুলগুলির বেতন বেড়েছে ৭ থেকে ১০ শতাংশ। বৃদ্ধির কারণ হিসেবে দেখানো হচ্ছে পরিকাঠামো উন্নয়ন, শিক্ষকদের মানোন্নয়ন। কিন্তু বাস্তবে ছবিটা অনেকটাই আলাদা। স্কুলগুলির পরিকাঠামো উন্নয়ন ঘিরে রয়েছে বিস্তর প্রশ্ন। ফলে ক্ষোভ বাড়ছে অভিভাবকদের।

সন্তানদের স্কুলের ফি বাড়ছে লাগামহীনভাবে। প্রতিবাদে কখনও রাস্তা অবরোধ, আবার কখনও বা স্কুলের গেটের সামনে অভিভাবকদের বিক্ষোভ। বেসরকারি স্কুলগুলির ফি বৃদ্ধি নিয়ে উদ্বিগ্ন স্কুল শিক্ষা দফতরও। পরিসংখ্যানে বলছে কলকাতার বেসরকারি স্কুলের ফি বেড়েছে প্রতি বছর গড়ে ৮ থেকে ১০ শতাংশ।

দেখে নেওয়া যাক কলকাতার বেশ কয়েকটি নামজাদা স্কুলের ফি বৃদ্ধির হার।

ডনবস্কো স্কুল 

- মাসিক ফি বৃদ্ধির হার প্রতি বছর ৮-১০ শতাংশ - অর্থাৎ শেষ ৫ বছরে বেড়েছে ৪০- ৫০ শতাংশ

লা-মার্টিনিয়ার স্কুল  - মাসিক ফি ৭০০০ - গত ৫ বছরে গড়ে বৃদ্ধি ১০-১২ শতাংশ

সেন্ট জেভিয়ার্স স্কুল - প্রতি বছর টিউশন ফি বাড়ে ১৫০ টাকা - গত পাঁচ বছরে বেড়েছে ৬৫০ টাকা

শ্রীশিক্ষায়তন স্কুল

- গত তিন বছরে ফি বাড়ে নি - এ বছর ফি বৃদ্ধি ১০ শতাংশ

মহাদেবী বিড়লা গার্লস - গড়ে ফি বৃদ্ধি ৮-১২ শতাংশ

বালিগঞ্জ শিক্ষা  সদন - ফি বৃদ্ধির হার প্রতিবছর গড়ে ৩ শতাংশ

মাসিক বেতনের সঙ্গে রয়েছে আ্যডমিশন ফি। পরিসংখ্যান বলছে প্রায় প্রতিটি বেসরকারি স্কুলেই কম-বেশি প্রতি বছর আ্যডমিশন ফি বৃদ্ধির হার ৫ থেকে ১০ শতাংশ । আর এতেই নাভিশ্বাস উঠছে অভিভাবকদের।

বেতন বৃদ্ধির যুক্তি দেখিয়েছেন বেসরকারি স্কুল কর্তৃপক্ষও। স্কুলগুলির পক্ষ থেকে যে সমস্ত যুক্তি দেওয়া হচ্ছে :-

স্কুলের পরিকাঠামো উন্নয়ন বাজারদর বৃদ্ধি ভাল মানের শিক্ষক নিয়োগ জিএসটি চালু

ফি বৃদ্ধির সময়ে স্কুলগুলির প্রতিশ্রুতির সঙ্গে বেশিরভাগ সময়েই বাস্তবের মিল থাকে না। ফলে বাড়ে অভিভাবকদের মধ্যে অসন্তোষ। যার থেকে শুরু হয় বিক্ষোভ, আন্দোলন। নষ্ট হয় শিক্ষার পরিবেশ। বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ আর পাঁচটা পেশার মতো শিক্ষাকেও যেন পণ্য না ভাবে স্কুল কর্তৃপক্ষ। অর্থের বিনিময়ে সঠিক পরিষেবা দিক স্কুলগুলি।

First published: April 13, 2018, 8:22 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर