Home /News /kolkata /
JMB in Kolkata: হরিদেবপুর JMB কাণ্ডের সঙ্গে খাগড়াগড় যোগ! চাঞ্চল্যকর তথ্য পুলিশের হাতে...

JMB in Kolkata: হরিদেবপুর JMB কাণ্ডের সঙ্গে খাগড়াগড় যোগ! চাঞ্চল্যকর তথ্য পুলিশের হাতে...

হরিদেবপুরের খাগড়াগড় যোগ?

হরিদেবপুরের খাগড়াগড় যোগ?

JMB in Kolkata: খাগড়াগড় কাণ্ডের অভিযুক্ত জেএমবি (Jmb) জঙ্গি ফারুক আহমেদকে হরিদেবপুর কাণ্ডের নাজিউরয়ের সঙ্গে মুখোমুখি বসিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চায় কলকাতা পুলিশের এসটিএফ।

  • Last Updated :
  • Share this:

#কলকাতা: ২০১৬ সালে NIA-এর হাতে গ্রেফতার হওয়া খাগড়াগড় কাণ্ডের অভিযুক্ত জেএমবি (Jmb) জঙ্গি ফারুক আহমেদকে হরিদেবপুর কাণ্ডের নাজিউরয়ের সঙ্গে মুখোমুখি বসিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চায় কলকাতা পুলিশের এসটিএফ (Kolkata Police Stf)। ইতিমধ্যেই ব্যাঙ্কশাল আদালত থেকে এ বিষয়ে অনুমতি মিলেছে। শীঘ্রই দমদম জেলে নাজিউরকে নিয়ে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এক্ষেত্রে ভার্চুয়ালিও জেরা হতে পারে ফারুক ও নাজিউরকে। হরিদেবপুরের যে বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়েছিল নাজিউর সহ তিনজনকে, সেখানকার cctv ফুটেজে রাহুল ওরফে লালু সেনকে বাড়িতে ঢুকতে দেখা যায়। সেলিম মুন্সির ছবিও ধরা পড়ে এই ক্যামেরাতে।

এদিকে, বৃহস্পতিবার মুর্শিদাবাদের ঝিল পাড়ার সেন বাড়িতে নিস্তব্ধতা। কারণ বুধবার সন্ধ্যায় বাড়ির মেজো ছেলে লালু সেন ওরফে রাহুলকে জেএমবি জঙ্গিদের সহযোগী হওয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার করছে এসটিএফ। ধৃত লালু সেনের মা সন্ধ্যা সেন জানিয়েছেন, তাঁর ছেলে মূলত বাংলাদেশে গরুর খাবার রপ্তানির ব্যবসা করত। ব্যবসায়িক প্রয়োজনে ছেলে মাসের পর মাস থাকতও ওপার বাংলায়। সেখানেই ঢাকা শহরে এক আইনজীবীকে তাঁর ছেলে লালু বিয়েও নাকি করেছে।

জঙ্গি সন্দেহে ধৃতের মায়ের দাবী, মেজো ছেলে যাকে বিয়ে করেছে তিনি বাংলাদেশে সরকার পক্ষের উকিল। বিয়ের পরেও বৌমা এদেশে এসে সংসার করেনি। মায়ের কথায়, 'আমরা ভাবতাম ছেলে ব্যবসা আর বৌমাকে নিয়েই আছে।' কিন্তু এসটিএফ-এর অভিযোগ ধৃত রাহুল ওরফে লালু এই রাজ্য জেএমবি জঙ্গি সংগঠনের স্লিপার সেলের অংশ বলে অভিযোগ। মূলত জেএমবি জঙ্গিদের এই রাজ্যে থাকা, ঘোরা, নির্দিষ্ট জায়গায় তাদের পৌছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা, অর্থের জন্য হুন্ডির মাধ্যমে টাকা পৌছে দেওয়া, মূলত এই কাজগুলিই করত লালু। আর সে তা করত নিজের আমদানি ও রপ্তানি ব্যবসার আড়ালে।

লালু সেনের কাছ থেকে অ্যাপলের ল্যাপটপ, আইফোন, বেশ কিছু সন্দেহজনক কাগজ উদ্ধার করা হয়েছে। এমনটাই এসটিএফ সূত্রে খবর। কয়েকদিন আগে তিন জেএমবি জঙ্গিকে কলকাতার হরিদেবপুর থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাঁদের থেকেই হদিশ মেলে লালু সেনের। এসটিএফ- এর সন্দেহ, শুধুই অর্থ আর গাড়ি দিয়ে সাহায্য নয়, লালু সেন জঙ্গিদের এদেশে থাকার জন্য আধার কার্ড ও ভোটার কার্ডও তৈরী করে দিত। রাহুল ওরফে লালু সেনের বাড়ির কাছে ড্রেনে বেশ কিছু মোাবাইল সিমের সন্ধান মিলেছে। ঘরে মিলেছে পাখি মারার বন্দুক।

----তথ্য: সুকান্ত মজুমদার

Published by:Suman Biswas
First published: