• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • ফুটপাথে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন বৃদ্ধ, সাহায্যে এগিয়ে আসল কলকাতা পুলিশ

ফুটপাথে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন বৃদ্ধ, সাহায্যে এগিয়ে আসল কলকাতা পুলিশ

Representative Image

Representative Image

কলকাতা পুলিশের আবার মানবিক রূপ দেখল কলকাতা। এ যেন অগ্নিশ্বর সিনেমার দৃশ্য।

  • Share this:

#কলকাতা: কলকাতা পুলিশের আবার মানবিক রূপ দেখল কলকাতা। এ যেন অগ্নিশ্বর সিনেমার দৃশ্য। যে রোগীকে কেউ ছুঁতে ঘৃণা করে সবাই, তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করা।সেবা করে ভালো করে তোলা। এটা এই কলকাতা যেন অনেক বছর হয়ে গেল ভুলেই গেছিল। এই লক ডাউন চলাকালীন শ্যামবাজার ফুটপাথে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন বৃদ্ধ।করোনা রোগী সন্দেহে তাকে কেউ স্পর্শ করেনি।অবশেষে পুলিশের তৎপরতায় , পুলিশই নিয়ে গিয়েছিল হাসপাতালে।সেই বৃদ্ধ এখন সুস্থ আছেন।আজ সকালে ১৪২ নম্বর অরবিন্দ সরণিতে ,একটি দোকান ঘরের মধ্যে অসুস্থ অবস্থায় পড়েছিলেন - ৭৫  বছরের রবীন্দ্রনাথ পাল, অসিতিপর বৃদ্ধ।অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন ঘরে। নিজের আত্মীয়রা কেউ দেখতে আসেন না। বেশ কয়েকদিন ধরে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। বিছানাতেই মল মূত্র ত্যাগ করছিলেন।দুর্গন্ধে পাশ দিয়ে যাওয়ার উপায় ছিল না।পাশাপাশি   নিজের আত্মীয়রা থাকা সত্বেও,কেউ ওনাকে দেখেন না। রতন সাউ নামে স্থানীয় এক বাসিন্দা বেলা ৯টা নাগাদ,পুলিশের ১০০ নম্বরে ফোন করে,বৃদ্ধের অসুস্থতা ও অসহায়তার কথা জানান।কিছুক্ষণের মধ্যেই বটতলা থানা থেকে পুলিশ এসে বৃদ্ধকে ওখান থেকে উদ্ধার করে , অ্যাম্বুলেন্সে আর জি কর হাসপাতালে নিয়ে যায়। বৃদ্ধ রবীন্দ্রনাথ, যে বাড়িতে থাকেন,সেই বাড়ির ,বাড়ি ওয়ালার বিরুদ্ধে মামলা করেছে।সেই মামলা দীর্ঘদিন ধরে চলছে।এছাড়া ওখানে যত আত্মীয় রয়েছে তাদের বিরুদ্ধেও মামলা করে রেখেছেন।তাই কেউ আসতে চাননি।এলাকায় বৃদ্ধকে সবাই ,কথায় কথায় মামলা করেন বলে এড়িয়ে চলেন।স্থানীয় এক ব্যক্তির কথাঅনুযায়ী, ' প্রতিবারই এই বুড়ো এই ভাবে অসুস্থ হন,সবাই মিলে হাসপাতালে ভর্তি করে আসেন।সুস্থ হয়ে এসেই আবার মামলা করে করো না করো নামে।মাঝে মাঝে বুড়োর ভীমরতি ধরে।তাই এবার কে আসেনি। '  পুলিশ যে সমাজের বন্ধু সেটা আজকে আবার প্রতিষ্ঠিত হল।যে পুলিশ ডান্ডা উঁচিয়ে মারতে ধেয়ে আসে,আবার তারা যে অসুস্থ মানুষকে হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা করান,সেটা কোন নতুন নজির নয় বটে,তবে আরো বিশ্বাসের খাতাটা বড়ো হল পুলিশের।

Published by:Akash Misra
First published: