কলকাতা

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

অফিস টাইমে মেট্রো চলবে ১০ মিনিট অন্তর, সাধারণ সময়ে ১৫ মিনিট অন্তর 

অফিস টাইমে মেট্রো চলবে ১০ মিনিট অন্তর, সাধারণ সময়ে ১৫ মিনিট অন্তর 

নিট পরীক্ষার দিনে স্পেশাল মেট্রো চালাতে অনুরোধ জানিয়েছে রাজ্য সরকার। সেই দিনেই এক দফা ট্রায়াল রান হয়ে যাবে।

  • Share this:

#কলকাতা: আগামী সোমবার থেকেই যাত্রী পরিষেবা চালু হয়ে যাবে কলকাতা মেট্রোয়। তবে আপাতত মেট্রো চলবে নোয়াপাড়া থেকে কবি সুভাষের মধ্যে। এই পথে মেট্রো চলাচলের জন্যে সর্বাধিক ১৫ মিনিট ও সর্বনিম্ন ১০ মিনিট সময়ের ব্যবধানেই মেট্রো চালানো হবে বলে সূত্রের খবর। আপাতত ঠিক হয়েছে সকাল ৮ টা থেকে রাত ৮ টা অবধি চলবে মেট্রো। এই সময়ের মধ্যে মূলত যে সময় সারণী ভাগ করা হয়েছে তা হল, সকাল ৮টা থেকে ১১টা এবং বিকেল ৪টে থেকে সন্ধা ৭টা অবধি মেট্রো চলবে ১০ মিনিট অন্তর। সকাল ১১টা থেকে বিকেল ৪টে এবং সন্ধা ৭টা থেকে রাত ৮টা অবধি মেট্রো চলবে ১৫ মিনিট সময়ের ব্যবধানেই।

আপাতত ১১০টি ট্রেন চলবে ধরে নিয়েই এগোচ্ছে কলকাতা মেট্রো রেল।মেট্রোর ট্রায়াল রান শুরু হবে  আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর। নিট পরীক্ষার দিনে স্পেশাল মেট্রো চালাতে অনুরোধ জানিয়েছে রাজ্য সরকার। সেই দিনেই এক দফা ট্রায়াল রান হয়ে যাবে। তবে তার জন্যে দেওয়া হবে পেপার টিকিট।  ইতিমধ্যেই কলকাতার বিভিন্ন মেট্রো স্টেশনে শুরু হয়ে গেছে সাফ সুতরো করার কাজ। সূত্রের খবর, আগামী ৮ ও ৯ সেপ্টেম্বর মেট্রো জেনারেল ম্যানেজার মনোজ যোশী নিজে স্টেশন পরিদর্শনে যাবেন।

মেট্রো কর্তৃপক্ষ জানাচ্ছে মাত্র এক তৃতীয়াংশ আসন নিয়ে চলবে মেট্রো। কলকাতায় মেট্রোর প্রতি কোচে আসন সংখ্যা হল ৪৮ করে। আট'টি করে কোচ থাকায় মোট আসন সংখ্যা হল ৩৮৪ জন। এক তৃতীয়াংশ হওয়ায় সেই আসন সংখ্যা হয়ে দাঁড়াচ্ছে ১২৮ জন। এরপর সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে দাঁড়িয়ে যাওয়া যাবে। সব মিলিয়ে প্রায় ২০০ জন দাঁড়িয়ে যাবে বলে মনে করছে মেট্রো। সব মিলিয়ে একটা রেকে ৩২৮ জন করে একটা রেকে যেতে পারবেন। এর পাশাপাশি যে সব বিষয় নিয়ে চর্চা হচ্ছে তা হল,  একাধিক লাইন আছে, এমন মেট্রো ধীরে ধীরে ৭ সেপ্টেম্বর থেকে যাত্রা শুরু করবে, ১২ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সবকটি লাইন চালু হবে।

সেই অনুযায়ী কলকাতায় মেট্রো চালু হতে পারে ১৪ সেপ্টেম্বর। প্রথমে কতক্ষণ মেট্রো চলবে সেটা সময়ে ভেঙে দিতে হবে। ধীরে ধীরে সেটি বাড়বে। দু’‌টি ট্রেনের মধ্যে সময় নিয়ন্ত্রণ করতে হবে যাতে স্টেশনে ভিড় না হয়। সমস্ত কন্টেইনমেন্ট জোনে এন্ট্রি ও এক্সিট গেট বন্ধ রাখতে হবে। তবে সূত্রের খবর, মাত্র একটি গেট এন্ট্রি ও একটি এক্সিট গেট হিসেবে  থাকবে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে স্টেশনে ও ট্রেনে মার্কিং করে দিতে হবে।সমস্ত যাত্রী ও কর্মীদের জন্য মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক। যাঁদের মাস্ক নেই তাঁদের জন্য অর্থের বিনিময়ে মেট্রো কর্তৃপক্ষ মাস্ক দেওয়ার ব্যবস্থা করবে। শুধুমাত্রা উপসর্গহীন যাত্রীরাই মেট্রোতে যাতায়াত করতে পারবেন। প্রবেশ দ্বারে থার্মাল স্ক্রিনিং করা হবে। কারও অসুস্থতা ধরা পড়লে তাঁকে নিয়ে যেতে হবে স্থানীয় কোভিড সেন্টারে।

যাত্রীদের জন্য প্রবেশ দ্বারে স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা করতে হবে। স্টেশন ও ট্রেনের সমস্ত অংশে স্যানিটাইজেশনের ব্যবস্থা করতে হবে।শুধুমাত্রা স্মার্টকার্ড ও ক্যাশলেস যাত্রার অনুমতি দেওয়া হবে। এছাড়া টোকেন, পেপার স্লিপ বা টিকিট ব্যবহার হলে সেটা স্যানিটাইজ করে ব্যবহার করতে হবে।স্টেশনে গাড়ি যথেষ্ট সময় দাঁড়াবে যাতে সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং বজায় রেখে ট্রেন থেকে ওঠা নামা করা যায়।এয়ার কন্ডিশন সঠিক নিয়ম মেনে পালন করতে হবে। দেখতে হবে যাতে যথেষ্ট পরিমাণে বাইরের বাতাস প্রবেশ করে। যাত্রা নিয়ে যথেষ্ট তথ্য যাতে কর্মী ও যাত্রীদের মধ্যে পৌঁছে যায়, সেই কারণে পোস্টার, ব্যানার, হোর্ডিং ব্যবহার করতে হবে। স্থানীয় পুলিশ ও প্রশাসনের সঙ্গে মেট্রো কর্তৃপক্ষকে সরাসরি যোগাযোগ রাখতে হবে, যাতে স্টেশনে ভিড় নিয়ন্ত্রণ করা সহজ হয়।

Published by: Dolon Chattopadhyay
First published: September 7, 2020, 9:51 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर