গলার ক্যানসার সারিয়ে মিরাকল কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের !

গলার ক্যানসার সারিয়ে মিরাকল কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের !

অসাধ্যসাধন কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ইএনটি চিকিৎসকদের।

  • Share this:

#কলকাতা: ক্যানসার আক্রান্ত ভোকাল কর্ড বাদ যাওয়া রোগীকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনলেন কলকাতা মেডিক্য়াল কলেজের ইএনটি চিকিৎসকরা। বিনামূল্যে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে কৃত্রিম ভোকাল কর্ড বসিয়ে স্বাভাবিক কথা বলছেন বউবাজারের অমিতাভ পাত্র। অসাধ্যসাধন কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ইএনটি চিকিৎসকদের।

অমিতাভ পাত্র, বয়স ৫৬। বউবাজারে বাড়ি, পেশায় শিয়ালদহ কোর্ট-এর মুহূরি। ২০১৬-এর অক্টোবরে ধরা পড়ে গলার সমস্যা। প্রথম প্রথম গলা খুস খুস,কথা বলতে অসুবিধা। তারপর গলায় তীব্র যন্ত্রণা। কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপতালের আউটডোরে দেখানোর পর চিকিৎসকরা পরীক্ষা করে দেখতে পান তার স্বরযন্ত্রে সমস্যা রয়েছে। কিন্তু সিটি স্ক্যান করে সেরকম কিছু পাওয়া যায় নি। একের পর এক ব্যথা কমানোর ওষুধ দেওয়া হলেও কোনও ওষুধেই কাজ হয়নি।

4200_IMG_20191212_142023_0

হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ফের সিটি স্ক্যান করা হয়। সেখানেই গলায় টিউমার ধরা পড়ে। পরীক্ষা করে ভোকাল কর্ডে ক্যানসার ধরা পড়ে।রেডিওথেরাপি বিভাগে চিকিৎসা শুরু হয়। সঙ্গে চবে রে। প্রায় দেড় বছর সব ঠিকঠাক ছিল। তারপরে আবারও সমস্যা দেখা দেয় ।

ধীরে ধীরে বন্ধ হয়ে যায় কথা। খাবার খেতেও সমস্য়া দেখা দেয়৷ জেরবার হয়ে যায় পাত্র পরিবার। আবারও মেডিক্যালে আসেন তারা। দরিদ্র পরিবার এর পক্ষে বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা করা সম্ভব ছিল না। তার স্বরযন্ত্র বা ভোকাল কর্ডের অবস্থা দেখে চিকিৎসকরা কোনওরকম ঝুঁকি নেননি। বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।ভোকাল কর্ড বাদ দেওয়ার ফলে কথা বলা বন্ধ হয়ে যায় অমিতাভ বাবুর। হতাশায় ভেঙে পড়েন অমিতাভ পাত্র-সহ গোটা পরিবার।

শুধু ভেঙে পড়েননি চিকিৎকরা ৷ তারাই অমিতাভ বাবুকে সুস্থ করাটা একটি চ্য়ালেঞ্জ হিসেবে নেন৷ এরপরই স্বাস্থ্য ভবনে দরবার করে কৃত্রিম মেশিন অমিতাভবাবুর গলায় বসানো হয়। এখন অনেকটাই স্বাভাবিক অমিতাভ। বলতে পারছেন কথাও৷ কলকাতা মেডিক্য়াল কলেজের চিকিৎসকদের ধন্য়বাদ জানিয়েছেন পাত্র পরিবার৷ বর্তমানে যেখানে চিকিৎসক রোগী সম্পর্ক তলানীতে৷ সেখানে অমিতাভ বাবুর চিকিৎসা এক উজ্জ্বল উদাহরণ ৷

ABHIIJIT CHANDA

First published: January 20, 2020, 5:16 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर