corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা মোকাবিলায়  WHO, ICMR গাইডলাইন মেনে চলুক রাজ্য : কলকাতা হাইকোর্ট 

করোনা মোকাবিলায়  WHO, ICMR গাইডলাইন মেনে চলুক রাজ্য : কলকাতা হাইকোর্ট 
photo source collected

করোনা মোকাবিলায় WHO, ICMR গাইডলাইন মেনে চলুক রাজ্য, শুক্রবার জনস্বার্থ মামলায় অবস্থান স্পষ্ট করে জানিয়ে দিলো কলকাতা হাইকোর্ট।

  • Share this:

#কলকাতা: করোনা মোকাবিলায়  WHO, ICMR গাইডলাইন মেনে চলুক রাজ্য, শুক্রবার জনস্বার্থ মামলায় অবস্থান স্পষ্ট করে জানিয়ে দিলো কলকাতা হাইকোর্ট। রাজ্যে প্রতিদিন ৩০০ কোভিড-১৯ টেস্ট হচ্ছে। টেস্টের সংখ্যা আরও বাড়ানো হোক, শুক্রবার এমনই পরামর্শ দিলেন প্রধান বিচারপতি থোট্টাথিল বি রাধাকৃষ্ণন এবং বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়। চিকিৎসক, নার্স,  স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা ব্যবস্থা আরও জোরদার করার জন্যহ হাইকোর্টের কাছে আবেদন রাখেন চার জনস্বার্থ মামলাকারি। শুক্রবার ভিডিও কনফারেন্সে হয় শুনানি। সিনিয়র আইনজীবী বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য সওয়ালে জানান, করেনায় মৃতদের শংসাপত্র প্রদানে বিশেষজ্ঞ কমিটি করেছে রাজ্য। কমিটি ঘুরে করোনা মৃতের সংখ্যা সামনে আসতে আসতেই গোষ্টি সংক্রমণের আশঙ্কা তৈরি হচ্ছে তীব্র। এই বিষয়ে রাজ্যের নির্দিষ্ট বক্তব্য তলব করুক আদালত। প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ ২৩ এপ্রিল ২০২০ সকাল সাড়ে ১০টার মধ্যে এই বিষয়ে রাজ্যের বিশদ হলফনামা তলব করেছে।

রাজ্যকে হলফনামা দিয়ে  চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা বিষয়ে অবস্থান স্পষ্ট করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। রাজ্য রিপোর্ট দিয়ে জনস্বার্থ মামলায় জানায়,  ১৬ এপ্রিল ২০২০ পর্যন্ত করোনা মোকাবিলায় ২৫৮৮০৫ পিপিই,  ১৫২৪৬০ N-95 মাস্ক, ৪৫৩৭৭৫ দুই স্তরের মাস্ক, ৯১৭৭৫০ তিন স্তরের মাস্ক দেওয়া হয়েছে। ৪৭৫০০ জোড়া গ্লাভস এবং ৫৩৭৬৯ লিটার স্যানিটাইজার পৌঁছে দেওয়া হয়েছে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে। ভিডিও কনফারেন্সের শুনানিতে উপস্থিত থাকা আইনজীবী সুদীপ্ত দাশগুপ্ত এবং আইনজীবী বিক্রম বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, " রাজ্যের তরফে স্বাস্থ্য সচিব করেনা পরিস্থিতি নিয়ে একটি রিপোর্ট পেশ করে হাইকোর্টে। ৫ সরকারি হাসপাতালের ল্যাবরেটরি এবং ২ বেসরকারি ল্যাবরেটরিতে করোনা টেস্টের কথা জানানো হয়। রাজ্যে করোনায় গোষ্ঠী সংক্রমণ হয়নি বলেও স্বাস্থ্যসচিব রিপোর্টে দাবি করেছেন। করোনা রোগির বারবার টেস্টের প্রয়োজন হয়। সব মিলি রাজ্যে প্রতিদিন ৩০০ টেস্ট হচ্ছে বলে রিপোর্টে জানানো হয়। এই টেস্টের সংখ্যা বাড়ানোর উপর জোর দিয়েছে প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ। "ডাঃ ফুয়াদ হালিম প্রথম জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেন। আদালতের অনুমতিক্রমে পরে মামলায় অন্তর্ভুক্ত হয় বিজেপি নেতা রীতেশ তিওয়ারি,  ডাঃ বিমল খাওযাস এবং রাজা সত্যজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়। জনস্বার্থ মামলাকারী রীতেশ তিওয়ারি জানান, " পরবর্তী শুনানির দিন রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আরও নতুন তথ্য আদালতের সামনে পেশ করব।"

ARNAB HAZRA

First published: April 17, 2020, 10:24 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर