Home /News /kolkata /
Kolkata News: খাস কলকাতার নাগরিক, আঁধার কাটিয়ে অবশেষে ৫০ বছর পর ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ!

Kolkata News: খাস কলকাতার নাগরিক, আঁধার কাটিয়ে অবশেষে ৫০ বছর পর ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ!

আঁধারমুক্তি

আঁধারমুক্তি

Kolkata News: পুরসভার অন্তর্গত এলাকা হওয়া সত্ত্বেও এতদিন বিদ্যুৎ না থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন জনপ্রতিনিধিরা।

  • Share this:

#কলকাতা: খাস কলকাতার বাসিন্দা হয়েও বিদ্যুৎ পরিষেবা থেকে বঞ্চিত ছিল। ৫০ বছর পর প্রথম বাড়ি বাড়ি বিদ্যুৎ পৌঁছল কলকাতার ১০৮ নম্বর ওয়ার্ডের নোড়তলায়। রাস্তায় বিদ্যুৎ থাকলেও এতদিন  বাড়িতে বিদ্যুৎ পরিষেবা থেকে বঞ্চিত ছিলেন বাসিন্দারা। শেষপর্যন্ত বাড়ি বাড়ি বিদ্যুৎ পৌঁছে দিল CESC। আঁধার কাটায় খুশি নোড়তলা। স্থানীয় কাউন্সিলর সুশান্ত ঘোষ ও বিদ্যুৎ মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের হাত ধরে আঁধার কাটল। নিউজ18 বাংলা-ই প্রথম সামনে আনে যন্ত্রণার কথা। পুরসভা এলাকা হলেও বিদ্যুৎ থেকে বঞ্চিত বেশ কয়েকটি পরিবার। এরপরেই নড়েচড়ে বসে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন।৫০ বছর পর ঘরে ঘরে আলো এল।

পুরসভার অন্তর্গত এলাকা হওয়া সত্ত্বেও এতদিন বিদ্যুৎ না থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন জনপ্রতিনিধিরা। অবশেষে অন্ধকার থেকে আলোর পথযাত্রী হল নোড়তলা। এতদিন ভরসা ছিল লম্ফ, মোমবাতি কিম্বা হেরিকেনের আলো। আর ভরসা ছিল রাস্তার আলো। এবার একবারে নিজের ঘরে আলো।৫০ বছর পর নোড়তলার ঘরে, ঘরে পৌঁছল বিদ্যুৎ।  এতদিন রাস্তায় আলো থাকলেও ঘর ছিল অন্ধকার। বানতলার কাছে ১০৮ নম্বর ওয়ার্ডের নোড়তলা ডুবে ছিল আঁধারে। ৫০ বছর ধরে বিদ্যুত ছাড়াই দিন কাটাচ্ছিল ১৭টি পরিবার। অবশেষ দেরিতে হলেও বাড়ি বাড়ি পৌঁছল বিদ্যুৎ। স্থানীয় বাসিন্দা মনিকা সর্দার শ্যামল সর্দারদের কথায়,' বিগত দিনে বহু আবেদন-নিবেদন করেছিলাম।

আরও পড়ুন: 'অনুব্রত মণ্ডল বলছি', CBI-এর সামনে বসেই করলেন ফোন, প্রত্যুত্তরে অবাক তদন্তকারীরা

কিন্তু আমাদের যন্ত্রনার কথা বছরের পর বছর কেউ শোনেনি। আজ যে কি আনন্দ হচ্ছে বলে বোঝাতে পারবো না'। উৎসবের মেজাজে নোড়তলা। যুদ্ধকালীন তৎপরতায় কাজ করে সিইএসসি বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়েছে নোড়তলায়। বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য এই এলাকার মানুষজনকে কোনও পয়সাও খরচ করতে হয়নি।

আরও পড়ুন: আরও এক তৃণমূল বিধায়ককে ডাক সিবিআই-এর! কে তিনি? কেনই বা ডাক পড়ল?

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি সুশান্ত ঘোষের উদ্যোগেই তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে মেটানো হয়েছে বিদ্যুৎ সংযোগের যাবতীয় খরচ। সবমিলিয়ে নোড়তলায় আঁধার কাটার খুশি।কলকাতার মধ্যেই এই এলাকা এতদিন যেন ছিল এক অন্য কলকাতা। শহরের লাইফ লাইন বাইপাসের ধারে। অথচ অন্ধকার কাটতেই লেগে গেল ৫০ বছর। পুরসভাকে সম্পত্তি কর দিলেও বিদ্যুৎ পরিষেবা থেকে এতদিন বঞ্চিতই ছিল। অবশেষ তৎপর হন কাউন্সিলর । খবর পৌঁছয় মেয়র এবং বিদ্যুৎমন্ত্রীর কাছে। তারপরই পঞ্চাশ বছরের আঁধার কাটল নোড়তলার।

Published by:Suman Biswas
First published:

Tags: Kolkata News, West Bengal news

পরবর্তী খবর