• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • KOLKATA DHAKA DIALOGUE FOCUSSES ON BILATERAL COOPERATION BETWEEN INDIA AND BANGLADESH SANJ

Bharat-Bangladesh "Bandhan" : দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার লক্ষ্যে শহরে 'কলকাতা-ঢাকা আলোচনা সভা'

বাঁ-দিক থেকে : ডঃ সুরঞ্জন দাস, ভাইস চ্যান্সেলর, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়, ডঃ অনুপ কুমার সিনহা,অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক, IIM কলকাতা, চন্দ্র শেখর ঘোষ, প্রতিষ্ঠাতা বন্ধন-কোন্নগর, নীলিমা ঘোষ, ডঃ ধ্রুবজ্যোতি চট্টোপাধ্যায়, ভাইস চ্যান্সেলর, সিস্টার নিবেদিতা ইউনিভার্সিটি

কলকাতায় আয়োজিত দু-দেশের মতবিনিময় সভায় ভারত বাংলাদেশের আঞ্চলিক ও উপ-আঞ্চলিক সমস্যাগুলি নিয়ে আলোচনা হয়। এছাড়াও, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ক্ষেত্রেও দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার বিষয়গুলি নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে এদিন।

  • Share this:

    #কলকাতা : বন্ধন কোন্নগরের গবেষণা শাখা এইচ. পি. ঘোষ রিসার্চ সেন্টার, কেন্দ্রীয় বিদেশ মন্ত্রকের সহায়তায়, আয়োজন করেছিল কলকাতা -ঢাকা মতবিনিময় সভার। এই আলোচনা সভায় দুই দেশের মাননীয় সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। ভারতীয় বিদেশ মন্ত্রকের যুগ্ম সচীব অনুপম রায়, বাংলাদেশের প্রধান মন্ত্রীর বৈদেশিক নীতি উপদেষ্টা ডঃ গওহর রিজভী ও বাংলাদেশের ডেপুটি হাই কমিশনার তৌফিক হাসান সহ আরও অনেকেই এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছিলেন।

    এই বছরটি বাংলাদেশের জন্যে একটি বিশেষ বছর। স্বতন্ত্র দেশ হিসেবে বাংলাদেশের আত্মপ্রকাশের ৫০ বছর পূর্ণ হচ্ছে এই বছরে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এই বিশেষ উপলক্ষে বাংলাদেশ সফরে ঢাকায় পৌঁছেছেন শুক্রবার। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ৫০ বছর পূর্তি উৎসবে সামিল হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এদিনের জাতীয় দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোদি।

    ঠিক সেইসময় কলকাতায় আয়োজিত দু-দেশের মতবিনিময় সভায় ভারত বাংলাদেশের আঞ্চলিক ও উপ-আঞ্চলিক সমস্যাগুলি নিয়ে আলোচনা হয়। এছাড়াও, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ক্ষেত্রেও দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার বিষয়গুলি নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে এদিন। বন্ধন কোন্নগরের প্রতিষ্ঠাতা চন্দ্রশেখর ঘোষ বলেন, "এই দুটি দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক আলোচনার অংশ হতে পেরে আমরা নিজেদের খুবই ভাগ্যবান মনে করছি। বিদেশ মন্ত্রকের সহায়তায় এবং আলোচনায় অংশগ্রহণকারী বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বদের উদ্যোগে এখন ভারত-বাংলাদেশ যোগসূত্র আরও বেশি মজবুত হবে বলেই আশা করছি।"

    প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী, 'মুজিব বর্ষ' অর্থাৎ শেখ মুজিবর রহমানের জন্মশতবর্ষ এবং ভারত-বাংলাদেশ কূটনৈতিক চুক্তির ৫০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে দুদিনের সফরে ঢাকায় শেখ হাসিনার মুখোমুখি হয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। সফরের দ্বিতীয় দিন অর্থাৎ আগামীকাল ২৭ মার্চ, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার (Sheikh Hasina) সঙ্গে একান্ত বৈঠকে বসবেন মোদি। সেই দিকেই এখন তাকিয়ে আছে আন্তর্জাতিক মহল। অতিমারি আবহে এটাই প্রধানমন্ত্রীর প্রথম বিদেশ সফর। শনিবারের বৈঠকে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় উঠে আসতে পারে বলেই মনে করছে দু'দেশের কূটনৈতিক মহল।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: