রাস্তার গর্ত চটজলদি সারাতে ১৬ কোটি টাকার নতুন মেশিন কিনল পুরসভা

রাস্তার গর্ত চটজলদি সারাতে ১৬ কোটি টাকার নতুন মেশিন কিনল পুরসভা
ছবি নিজস্ব

বুধবার পুরভবনের সামনে তিনটি মেশিনের উদ্বোধন করেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম। এই মেশিনগুলি হল পেবার মেশিন, মিলিং মেশিন ও পট-হোল রিপায়ারিং মেশিন।

  • Share this:

বিশ্বজিত্‍ সাহা

#কলকাতা: শহরের রাস্তা আরও মসৃণ করতে নয়া উদ্যোগ কলকাতা পুরসভার। ১৬ কোটি টাকার নতুন মেশিন কিনলো কলকাতা পুরসভা। রাস্তায় এদিক-ওদিক ছোট ছোট গর্ত চটজলদি সারিয়ে দেবে এই নতুন যন্ত্র। নাম পট-হোল রিপেয়ার মেশিন। মিলিং মেশিন নামে আরও একটি যন্ত্র কিনলো কলকাতা পুরসভা।

মিলিং মেশিনের সাহায্যে উঁচু রাস্তা কেটে নিচু করা হবে নতুনভাবে তৈরি করার জন্য।  পরিবেশ বিধি মেনে শহরের রাস্তা রক্ষণাবেক্ষণ ও মেরামতির জন্য অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সাহায্য নিচ্ছে কলকাতা পুরসভা। শহরের রাস্তার কাঠামো বদলানো ও গর্ত মেরামতির জন্য নতুন যন্ত্র

ব্যবহার করা হবে।

বুধবার পুরভবনের সামনে তিনটি মেশিনের উদ্বোধন করেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম। এই মেশিনগুলি হল পেবার মেশিন, মিলিং মেশিন ও পট-হোল রিপায়ারিং মেশিন। এর মধ্যে গর্ত মেরামতির জন্য পট-হোল রিপায়ারিং মেশিন একেবারেই নতুন। মেয়র বলেন, 'পট-হোল রিপায়ারিং মেশিন দিয়ে গর্তগুলো হটমিক্স দিয়ে বোজানো হবে, এমন ভাবে বোজানো হবে যাতে রাস্তা অসমান না হয়ে যায়।' শহরের বেশিরভাগ রাস্তার গঠন অনুযায়ী বাড়ি বা ফুটপাত থেকে উঁচু। ফলে বৃষ্টি হলেই জল রাস্তা থেকে বাড়িতে বা ফুটপাতে চলে যায়। এই জন্যই মিলিং মেশিন আনা হয়েছে। এই মেশিন দিয়ে রাস্তার উঁচু অংশ কেটে, পেবার মেশিন দিয়ে পিচ ঢেলে তা সমান করে দেওয়া হবে।

এছাড়া জাতীয় পরিবেশ আদালতের নির্দেশ মেনে শহরের বাইরে একটি অত্যাধুনিক মেকানিক্যাল ম্যাস্টিক অ্যাসফল্ট প্ল্যান্ট খুব শীঘ্রই তৈরি হয়ে যাবে বলে মেয়র জানান। অন্যদিকে, গড়াগাছায় ব্যাচমিক্স প্ল্যান্ট করার প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। তিনি জানান, দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার চৌবাগা বা শিরাকোলে মেকানিক্যাল প্ল্যান্ট বসানোর জন্য জমি খোঁজার কাজ চলছে। এই প্ল্যান্ট থেকে মিশ্রণ শহরে নিয়ে এসে থার্মোস্ট্যাট যন্ত্রের মাধ্যমে তা গরম রেখে পেবার মেশিন দিয়ে তা বিছিয়ে দেওয়া হবে। ফলে যেমন একদিকে পরিবেশ দূষণের পরিমান কমবে, তেমনই আগের তুলনায় অনেক দ্রুত রাস্তা মেরামতি করা যাবে।

মেয়র বলেন, 'শহরের রাস্তার নীচে পলিমাটি। তাই বৃষ্টি হলেই সমস্যা হতে পারে। তাই রাস্তার আরও ভালোভাবে রক্ষণাবেক্ষণ হওয়া প্রয়োজন।' শহরের পরিবেশ বাঁচাতে ও মানুষের সুবিধায় রাস্তার রক্ষণাবেক্ষণে আরও উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করতে চান তারা মেয়র জানান। পুরসভার সড়ক বিভাগের মেয়র পারিষদ রতন দে জানান, প্রতিটি বোরোতে একটি করে মিলিং মেশিন দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। এদিন একটি পে লোডারেরও উদ্বোধন হয়। তিনটি মেশিন ও পে লোডার মিলিয়ে প্রায় ১৬ কোটি টাকা খরচ হয়েছে৷

First published: 09:11:17 AM Nov 28, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर