কলকাতা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

'ক্রিমিনালদের সঙ্গে সরাসরি যোগ রাজ্যপালের', মামলা দায়েরের দাবি তুললেন কল্যাণ

'ক্রিমিনালদের সঙ্গে সরাসরি যোগ রাজ্যপালের', মামলা দায়েরের দাবি তুললেন কল্যাণ
রাজ্য়পালকে আক্রমণে কল্যাণ৷

কল্যাণের অভিযোগ গোবিন্দ আগরওয়াল এবং সুদীপ্ত রায় চৌধুরী নামে দুর্নীতি ও মানুষ এবং গরু পাচারের সঙ্গে যুক্ত দুই অভিযুক্তের হয়ে সওয়াল করছেন রাজ্যপাল৷

  • Share this:

#কলকাতা: অপরাধীদের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ রয়েছে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের৷ তাই অপরাধীদের গ্রেফতার করায় তার বিরোধিতা করে ট্যুইট করছেন তিনি৷ পুলিশের কাজে বাধা দেওয়ার চেষ্টাও করছেন৷ রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের বিরুদ্ধে এমনই চাঞ্চল্যকর অভিযোগ তুলল তৃণমূল কংগ্রেস৷ শুধু তাই নয়, রাজ্যপালের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা দায়ের করারও দাবি জানিয়েছেন তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়৷

এ দিন রাজ্যপালকে নিশানা করে তৃণমূল ভবনে সাংবাদিক বৈঠক করেন তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তাঁর অভিযোগ গোবিন্দ আগরওয়াল এবং সুদীপ্ত রায় চৌধুরী নামে দুর্নীতি ও মানুষ এবং গরু পাচারের সঙ্গে যুক্ত দুই অভিযুক্তের হয়ে সওয়াল করছেন রাজ্যপাল৷ বার বার মুখ্যমন্ত্রীকে নিশানা করেছেন তিনি৷

কল্যাণের দাবি, গোবিন্দ আগরওয়াল এবং নীরজ সিং নামে এক আইআরএস অফিসারের বিরুদ্ধে ইডি প্রথম মামলা দায়ের করে৷ পিএমএলএ অ্যাক্টে অভিযুক্তদের ৩.৮৮ কোটি টাকা বাজেয়াপ্ত করে৷ এর পর ইডি-র থেকে তদন্তের কাগজপত্র সংগ্রহ করে আরও তদন্ত করে কলকাতা পুলিশ৷ ২১ নভেম্বর গোবিন্দ আগরওয়ালকে গ্রেফতার করে কলকাতা পুলিশ৷ অন্যান্য আরও চাটার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টের নামও তদন্তে উঠে আসে৷

কল্যাণ আরও দাবি করেন, এই তদন্তেই সুদীপ্ত রায় চৌধুরী নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে সিবিআই-এর কাছ থেকে তথ্য পায় কলকাতা পুলিশ৷ তাকেও গ্রেফতার করে কলকাতা পুলিশ৷ এই সুদীপ্ত রায় চৌধুরীর বিরুদ্ধে ইডি বিধাননগর পুলিশের কাছে এফআইআর দায়ের করেছিল বলে দাবি করেছেন তৃণমূল সাংসদ৷ তিনি বলেন, ইডি তদন্তে উঠে আসে যে এই সুদীপ্ত রায় চৌধুরীর বিরুদ্ধে রোজভ্যালির এক কর্মীর থেকে ২ কোটি টাকা নিয়েছিলেন৷ এই ব্যক্তি মানুষ ও গরু পাচার এবং তোলাবাজির বড়সড় চক্রের সঙ্গে যুক্ত বলেও অভিযোগ করেন কল্যাণ৷

তৃণমূল সাংসদের অভিযোগ, কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা ইডি-র অভিযোগের ভিত্তিতেই পদক্ষেপ করেছে কলকাতা পুলিশ ও বিধাননগর পুলিশ৷ এমন কি, এই সুদীপ্ত রায় চৌধুরী ইডি-র ভুয়ো তথ্য দেখিয়েও টাকা তুলত বলে অভিযোগ কল্যাণের৷ তাঁর অভিযোগ, গোবিন্দ আগরওয়াল এবং সুদীপ্ত রায় চৌধুরীদেগ্রেফতারের বিরোধিতা করে ২২ এবং ২৫ নভেম্বর দু'টি ট্যুইট করেছেন৷

কল্যাণ বলেন, 'ইডি যাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করছে, তাঁদের বিরুদ্ধে তদন্ত করার জন্য কেন বাধা দিচ্ছেন রাজ্যপাল?রাজ্যপালের সঙ্গে বিজেপি-র এবং পশ্চিমবঙ্গের অনেক ক্রিমিনালের সরাসরি যোগাযোগ আছে৷ বার বার তিনি সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীকে টার্গেট করছেন৷ রাজ্যপাল মূল অভিযুক্তদের সাহায্য করার চেষ্টা করছেন৷ তদন্তে বাধা দেওয়ার এবং প্রভাবিত করার চেষ্টা করছেন৷' তিনি আরও দাবি করেন, পরবর্তী পর্যায়ে রাজ্যপালের বিরুদ্ধে আরও পর্দা ফাঁস করবেন তাঁরা৷

কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, 'কোনও ব্যক্তি যদি ফৌজদারি তদন্তে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেন বা অপরাধীদের বাঁচানোর চেষ্টা করেন, তাহলে তাঁদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৮৬ এবং ১৮৯ ধারায় মামলা শুরু করা যায়৷' এই দুই ধারার উল্লেখ করে রাজ্যপালের বিরুদ্ধেই তদন্তে বাধা দেওয়ার অভিযোগে মামলা শুরু করার জন্য কলকাতা পুলিশের কাছে দাবি জানিয়েছেন কল্যাণ৷ তাঁর দাবি, পুলিশ আধিকারিকদের যেভাবে হুমকি দিচ্ছেন রাজ্যপাল, তাও অপরাধের সামিল৷ রাজ্যপালের বিরুদ্ধে এই ধারাতেও মামলা করার দাবি জানিয়েছেন কল্যাণ৷ তাঁর অভিযোগ, ট্যুইট করে কলকাতা এবং বিধাননগর পুলিশকে অকেজো করার চেষ্টা করছেন রাজ্যপাল৷ পুলিশকে হুমকিও দিচ্ছেন তিনি৷ যেটা তাঁর সাংবিধানিক দায়িত্বের মধ্যে পড়ে না৷ তৃণমূলের এই অভিযোগের জবাব কীভাবে দেন রাজ্যপাল, সেটাই এখন দেখার৷

Published by: Debamoy Ghosh
First published: November 26, 2020, 2:37 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर