সব কাগজে বিজ্ঞাপন দিলেও সাড়া মেলেনি, মেট্রো দুর্ঘটনায় সাক্ষী দিতে হাজির মোটে ১ জন

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Jul 19, 2019 07:10 PM IST
সব কাগজে বিজ্ঞাপন দিলেও সাড়া মেলেনি, মেট্রো দুর্ঘটনায় সাক্ষী দিতে হাজির মোটে ১ জন
Photo : News18
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Jul 19, 2019 07:10 PM IST

#কলকাতা: মেট্রোয় দরজায় যাত্রীর হাত আটকে মৃত্যুর ঘটনায় তোলপাড়। শনিবার সেই সময় স্টেশনে ছিলেন কয়েক হাজার মানুষ। কমিশনার অফ রেলওয়ে সেফটির কাছে সাক্ষী দিতে এলেন মাত্র একজন। বেশ কয়েকদিন পর বৃহস্পতিবার থেকে মেধা কোচ চালানো শুরু করল মেট্রো।

গত শনিবার নজিরবিহীন দুর্ঘটনা কলকাতা মেট্রোয়। কী ভাবে যাত্রীর হাত আটকে ছুটল মেট্রো? তদন্তে নেমে মেট্রোর চালককে জেরা করলেন কমিশনার অফ রেলওয়ে সেফটি জনককুমার গর্গ ৷ দুর্ঘটনা মেট্রোর চালকের কাছে কমিশনার অফ রেলওয়ে সেফটি যে প্রশ্নগুলি করেছিলেন তা হল-

-মেট্রোর দরজায় যাত্রীর হাত আটকে গেল। আপনি সামনে থাকা মনিটরে দেখতে পেয়েছিলেন কী? এবং ট্রেনে কোনও সমস্যা আছে বলে মনে হয়েছিল?এর উত্তরে তিনি না জানিয়েছিলেন ৷  দুর্ঘটনার আগে ও পরে পার্ক স্ট্রিট স্টেশনের যাবতীয় সিসিটিভি ফুটেজ পরীক্ষা করেছেন কমিশনার অফ রেলওয়ে সেফটি। দুর্ঘটনাগ্রস্ত কোচটিও পরীক্ষা করেছেন তিনি। সেই সূত্রেই চালককে তাঁর প্রশ্ন, পার্কস্ট্রিট থেকে ছাড়ার পর ট্রেনের গতি বাড়িয়ে, পরে কমিয়ে আবার গতি বাড়ানো হয় কেন?

১১ মিনিট পর পাওয়ার ব্লক চাওয়া হয়। এত দেরি হল কেন?

Loading...

মেট্রোর মেধা কোচ নিয়ে বহু অভিযোগ উঠেছে। প্রযুক্তি কারণে এই দুর্ঘটনা কিনা, তাও খতিয়ে দেখছেন

কমিশনার অফ রেলওয়ে সেফটি। বেশ কিছু প্রশ্নের উত্তর পেতে চেষ্টা চালাচ্ছেন তিনি।

সুপারিশ মেনে মেট্রোয় প্রযুক্তিগত পরিবর্তন হয়েছিল কি?

তার নথি জমা দিতে মেট্রোকে নির্দেশ

দুর্ঘটনার সময় কেন দরজার সেন্সর কাজ করল না?

দরজার সেন্সর নিয়ে আগে কোনও অভিযোগ জমা পড়েছিল কি?

দুর্ঘটনার পর সজল কাঞ্জিলালের মৃতদেহ তুলেছিলেন যে মেট্রো কর্মীরা, তাদের সঙ্গেও কথা বলবেন কমিশনার অফ রেলওয়ে সেফটি। জেরা করা হবে কনডাক্টিং মোটরম্যানকেও।

শনিবার মেট্রোয় দুর্ঘটনা ঘিরে তোলপাড় পড়েছিল শহরে। মেট্রোর দাবি, সে সময় কয়েক হাজার যাত্রী পার্ক স্ট্রিট স্টেশনে ছিলেন। অথচ সেই ঘটনায় সাক্ষী দিতে কমিশনার অফ রেলওয়ে সেফটির সামনে হাজির হন মাত্র একজন। সব কাগজে বিজ্ঞাপন দিলেও সাড়া দেননি ওই যাত্রীরা।

First published: 07:10:36 PM Jul 19, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर