corona virus btn
corona virus btn
Loading

জাকারিয়া স্ট্রিটে হিরে ব্যবসায়ী খুনের রহস্যভেদ, ধৃত ১

জাকারিয়া স্ট্রিটে হিরে ব্যবসায়ী খুনের রহস্যভেদ, ধৃত ১
নিজস্ব চিত্র

জাকারিয়া স্ট্রিটে হিরে ব্যবসায়ী খুনের রহস্যভেদ, ধৃত ১

  • Share this:

#কলকাতা: আটচল্লিশ ঘণ্টার মধ্যে রত্ন ব্যবসায়ী খুনের কিনারা করল কলকাতা পুলিশ। বহুমূল্য হিরের লোভেই জাকারিয়া স্ট্রিটের ব্যবসায়ী মহম্মদ সেলিমকে খুন করে আরেক রত্ন ব্যবসায়ী আরশাদ। সব রত্ম হাতাতে আসানসোল থেকে ক্রেতা আসবে বলে ফাঁদও পাতে সে। কিন্তু, পুলিশের দীর্ঘ জেরা ও তল্লাশিতে শেষপর্যন্ত ধরা পড়ে যায় সে।

মঙ্গলবার জাকারিয়া স্ট্রিটে খুন হন রত্ন ব্যবয়ায়ী মহম্মদ সেলিম। দোকান থেকে লুঠ হয় বহুমূল্য হিরে ও গয়না। যেন দোকানে ডাকাতি করতে এসে

হিরে লুঠ করতেই খুন

জাকারিয়া স্ট্রিটে রত্ন ব্যবসায়ী খুনের ঘটনায় নয়া তথ্য। দোকানের অ্যান্টি চেম্বার থেকে মিলল আরও তিনজনের পায়ের ছাপ। মিলেছে ধস্তাধস্তির চিহ্নও। তা দেখেই তদন্তকারীদের অনুমান, মহম্মদ সেলিম খুনের ঘটনায় জড়িত থাকতে পারে একাধিক আততায়ী। তবে আসানসোল থেকে আসা সন্দেহভাজন কোনও ক্রেতার হদিশ মেলেনি।

জাকারিয়া স্ট্রিটে রত্ন ব্যবসায়ী মহম্মদ সেলিমকে খুনের পিছনে একজন নয়, জড়িত একাধিক দুষ্কৃতী। নমুনা সংগ্রহের পর প্রাথমিক তদন্তে তেমনই মনে করছেন তদন্তকারীরা।

ব্যবসায়ী খুনে একাধিক আততায়ী? - অ্যান্টি চেম্বারে মিলেছে ব্যবসায়ী ছাড়া আরও ৩জনের পায়ের ছাপ - তাদের মধ্যে ধস্তাধস্তির চিহ্নও মিলেছে - ব্যবসায়ীর মুখে টেপ আটকে শ্বাসরোধ করা হয় - মৃত্যু নিশ্চিত করতে গলা টিপে ধরা হয়

ঘটনার দিন আসানসোল থেকে কোনও এক ক্রেতার দোকানে আসার কথা ছিল। তাই বেশি রাত পর্যন্ত দোকানে থাকতে হবে বলে আগেই বাড়িতে জানান মহম্মদ সেলিম। ফলে খুনের ঘটনার পর থেকেই খোঁজ চলছিল আসানসোলের সেই ব্যবসায়ীর।

খুনের পিছনে কে? - দোকানের ক্যাশমেমো থেকে কাস্টমার ডিটেলস নিয়েছেন তদন্তকারীরা - বেশ কয়েকদিনের ডিটেলস নেওয়া হয়েছে - কোনও ক্রেতা অগ্রিম টাকা দিলে তার উল্লেখও থাকার কথা - কোথাও আসানসোল থেকে আসা ক্রেতার উল্লেখ নেই

দোকানের সমস্ত ক্রেতা, বিশেষ করে নতুনদের পরিচয় খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ঘটনাস্থলের আশপাশে কোনও সিসিটিভি ক্যামেরা নেই। প্রয়োজনে সি আর অ্যাভিনিউ সহ বেশ কয়েকটি বড় রাস্তার সিসিটিভি ফুটেজখতিয়ে দেখতে পারেন তদন্তকারীরা।

First published: October 26, 2017, 5:11 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर