• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • ISIS MEMBER ABU MUSA THROWS SHOE AT JUDGE DURING HEARING RM

আইনজীবীকে ছুঁড়ল জুতো, সন্দেহভাজন ISIS জঙ্গি মুসার রুদ্রমূর্তিতে তটস্থ আদালত

মুসার মুখ থেকে কটুক্তির স্রোত, এজলাস ছেড়ে বেরিয়ে গেলেন বিচারক

মুসার মুখ থেকে কটুক্তির স্রোত, এজলাস ছেড়ে বেরিয়ে গেলেন বিচারক

  • Share this:

#কলকাতা: বিচার চলাকালীন এজলাসে জুতো ছুড়ে হুঙ্কার সন্দেহভাজন ISIS জঙ্গি আবু মুসা-র। আসামীর রুদ্রমূর্তিতে এজলাস ছাড়লেন বিচারক।

মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে বারোটা। কলকাতা নগর দায়রা আদালতের মুখ্য বিচারকের এজলাস। এনআইএ আদালতে শুরু রাজ্যে প্রথম  ISIS জঙ্গি মামলার বিচারের সাক্ষ্যগ্রহণ। রাজ্য থেকে ধৃত প্রথম  ISIS সন্দেহভাজন আবু মুসা তখন কাঠগড়ায়।  আইনি সহায়তা কেন্দ্র থেকে পাওয়া আইনজীবী প্রস্তুত মুসার মামলার জন্য। এজলাসে বিচারক প্রসেনজিৎ বিশ্বাসের ঠিক উল্টো দিকে কাঠগড়া। বিচার চলাকালীন হঠাৎ  কাঠগড়া থেকে উড়ে এল জুতো। এজলাসে এনআইএ আইনজীবী শ্যামল ঘোষের গা ঘেঁষে বেরিয়ে গেল জুতো। সোজা গিয়ে পড়ল আইনজীবী শুভদীপ চক্রবর্তী মুখে। এখানেই শেষ নয়। এবার মুসার মুখ থেকে কটুক্তির স্রোত।  এজলাস ছেড়ে বেরিয়ে গেলেন বিচারক।

সন্দেহভাজন জঙ্গির হুমকি মাখা মন্তব্য, ' আমি আইন মানি না। আমি নিজেও একসময় আইন নিয়ে পড়াশোনা করেছি। যে আইনে বিচার হচ্ছে তাতে আমি জঙ্গি হয়ে যাচ্ছি। আমি একটাই আইন মানি, তা হল আল্লার আইন।' এরপরই এদিনের মতো শুনানি মুলতবি হয়ে যায়। ঘটনাক্রমে উদ্বিগ্ন আদালত। একইসঙ্গে উদ্বিগ্ন তদন্তকারী সংস্থা এনআইএ। প্রেসিডেন্সি সংশোধনাগার থেকে  ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে  শুনানি চাইছে এনআইএ। আইনজীবী শ্যামল ঘোষ জানান, ' এনআইএ চার্জশিটে প্রমাদ গুনছে জঙ্গি মুসা। তাই মামলার মোড় ঘোরানোর জন্য একাধিক নাটক করে চলেছে আসামী। আমরা আদালতের কাছে ভিডিও কনফারেন্সে শুনানির আবেদন করছি।'

২০১৬ সালে গ্রেফতার হয় সন্দেহভাজন জঙ্গি মুসা। বীরভূমের দুবরাজপুরে নাশকতা চালানোর উদ্দেশ্যে যাচ্ছিল আবু মুসা,  সেই সময় তাকে বর্ধমান স্টেশন থেকে গ্রেফতার করে সিআইডি।  পরে ন্যাশনাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি নিজেদের হেফাজতে নেয় মুসাকে। রাজ্যে প্রথম আই এস জঙ্গি মামলা এটি। ইতিমধ্যে মামলার চার্জশিট দিয়েছে এনআইএ। দেশদ্রোহীতা, ইউএপিএ এবং অস্ত্র আইনে চার্জশিট দিয়েছে এন আই এ। মঙ্গলবার সাক্ষ্য গ্রহণ পর্বের  দ্বিতীয় সাক্ষ্যগ্রহণ ছিল। এর আগে আলিপুর আদালতে আক্রমণাত্মক মেজাজে দেখা গিয়েছে মুসাকে।প্রেসিডেন্সি সংশোধনাগারে জেলরক্ষীর মাথায় রড দিয়ে আঘাতের অভিযোগ রয়েছে মুসার বিরুদ্ধে। গরাদের ভিতর থেকেও মুসার 'জঙ্গি' কার্যকলাপে  ঘুম ছুটেছে পুলিশকর্মী থেকে শুরু করে আদালতের কর্মী,  আইনজীবীদের। ৫মার্চ সন্দেহভাজন জঙ্গি মামলার পরবর্তী শুনানির দিন নির্দিষ্ট করেছে আদালত।

ARNAB HAZRA

Published by:Rukmini Mazumder
First published: