• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • IS IT TIME FOR THE GOVERNMENT OF INDIA TO COME UP WITH A LAW THAT PROTECTS A MOTHERS RIGHT TO BREASTFEED IN PUBLIC STORM IN SOCIAL MEDIA

প্রকাশ্যে স্তন্যদানের অধিকার সুরক্ষিত করুক সরকার ! গর্জে উঠল সোশ্যাল মিডিয়া

  • Share this:

    #কলকাতা: সোশ্যাল মিডিয়ায় উঠল ঝড় ৷ সাউথ সিটি মলে মহিলাকে স্তন্যদানে বাধা দেওয়ার ঘটনায় নেটিজেনদের কটাক্ষের মুখে শপিংমল কর্তৃপক্ষ ৷ সন্তানকে স্তন্যদানে প্রথমে বাধা, হেনস্থা ও পরে ফেসবুকে কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে এক মহিলাকে ‘অপ্রীতিকর’ আক্রমণ করার ঘটনায়,  সোশ্যাল মিডিয়ায় এখন সবার চক্ষুশূল দক্ষিণ কলকাতার জনপ্রিয় শপিংমল সাউথ সিটি !

    আরও পড়ুন 

    সন্তানকে স্তন্যপান করাতে বাধা সাউথ সিটি মলে, ফেসবুকেও মহিলাকে অপ্রীতিকর মন্তব্য কর্তৃপক্ষের !

    সোশ্যাল মিডিয়ার বিতর্কের ঝড়ের মুখে পড়ে পরে অবশ্য ক্ষমাও চেয়েছেন শপিংমল কর্তৃপক্ষ ৷ তবে অনেকেই মনে করছেন, সেই ক্ষমাতেও রয়েছে ভাঙব তবু মচকাবো না জাতীয় ইঙ্গিত ৷ তাই ক্ষমা চেয়েও ছাড় পাচ্ছে না সাউথ সিটি মল ৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় বিতর্কের ঝড় বেড়েই চলেছে ৷ প্রশ্ন তুলছেন নেটিজেনরা, তাহলে কী এবার মায়েদের জন্য নতুন আইন করা উচিত সরকারের ? প্রকাশ্যে স্তন্যদানের অধিকার সুরক্ষিত করা উচিত সরকারের পক্ষ থেকে?

    ফেসবুক জুড়ে শুরু হয়েছে এমনই এক ক্যাম্পেন ৷ সৌজন্যে ‘Breastfeeding Support for Indian Mothers’ ৷ এই পেজে সাউথ সিটির গোটা ঘটনাটির বিবরণ দেওয়া হয়েছে ৷ এমনকী, এই বিষয়ে জনমতও তৈরি হচ্ছে এই পেজের মধ্যে দিয়ে ৷

    ঘটনাটি ঠিক কী ঘটেছিল ?

    ঘটনাটি ঘটেছে রবিবার সন্ধে নাগাদ ৷ ননদ ও সাত মাসের সন্তানকে নিয়ে সাউথ সিটি গিয়েছিলেন মহিলা ৷ হঠাৎই তাঁর সাত মাসের মেয়ে কান্নাকাটি শুরু করে ৷ তিনি বুঝতে পেরেছিলেন, মেয়েকে স্তন্যপান করাতে হবে৷ রবিবারের ভিড়ে ঠাসা সাউথ সিটি মলে হন্যে হয়ে খুঁজছিলেন, একটু বসার জায়গা ৷ বাচ্চাকে কোলে নিয়েই একবার ছুটছিলেন ফার্স্টফ্লোরে, তো কখনও সেকেন্ড ফ্লোরে ৷ সব জায়গাতেই কর্তৃপক্ষের কড়া নজর আর একটাই মন্তব্য, ‘টয়লেটে গিয়ে স্তন্যপান করান !’ অবশেষে, একেবারে শেষের ফ্লোরে গিয়ে পৌঁছন তিনি ৷ সেই ফ্লোরে চলছিল মেরামতের কাজ ৷ সেখানেও বার বার অনুরোধ করেন মহিলা ! কিন্তু কর্তৃপক্ষের উত্তর একটাই ৷

    উপায় না পেয়ে, মহিলা ঢুকে পড়েন শপিং মলের একটি স্টোরে ৷ সেখানে নানা অনুরোধের পরে ট্রায়াল রুমে সন্তানকে দুগ্ধপান করান ৷ বাড়ি ফিরে প্রচণ্ড ক্ষোভে, ফেসবুকে এই ভাবেই গোটা ঘটনা বর্ণনা করেছেন তিনি৷ ফেসবুকে রীতিমতো একহাত নিয়েছেন সাউথ সিটি মলকে ৷ তবুও হয়রানি কমেনি তাঁর ৷ সাউথ সিটি মলের চত্বর পেরিয়ে ফেসবুকেও অপ্রীতিকর মন্তব্য শুনতে হয় তাঁকে ৷ সৌজন্যে অবশ্যই শপিংমল কর্তৃপক্ষ ৷

    ফেসবুকে সাউথ সিটি মলের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ‘ব্যাপারটা অদ্ভুত ! এটা কোনও ইস্যুই নয় ৷ নিরাপত্তার কারণেই শপিং মলের ফ্লোরে স্তন্যপানে অনুমতি দেওয়া হয় না ৷ তবুও এমার্জেন্সির ক্ষেত্রে অনেক সময়ই ছাড় দেওয়া হয় ৷ আমরা এই জায়গাটা শপিংয়ের কথা মাথায় রেখেই তৈরি করেছি ৷ তাই বাড়ির কাজ বাড়িতেই করুন.... ’

    সাউথ সিটির এই ধরণের মন্তব্যের পরেই সোশ্যাল নেটওয়ার্কিংয়ে ঝড় ওঠে ৷ সাউথ সিটি মলের ফেসবুক পেজে গোটা ঘটনার তীব্র নিন্দা শুরু করে নেটিজেনরা ৷ বিশেষ করে শহরের মহিলারা গোটা ঘটনাকে ‘অপ্রীতিকর’ বলে মন্তব্য করেন ৷ এবং সাউথ সিটি কর্তৃপক্ষকে ক্ষমা চাইতে বলেন !

    সোশ্যাল নেটওয়ার্কে নেটিজেনদের ঝড়ের চোটে রীতমতো বাধ্য হয়েই ক্ষমা চাইলেন সাউথ সিটি মলের কর্তৃপক্ষ ৷ তবুও যেন বরফ গলছে না ! সোশ্যাল নেটওয়ার্কে প্রশ্ন উঠছে শহরের শপিংমল কর্তৃপক্ষদের ব্যবহারের দিকে ৷

    তবে প্রকাশ্যে স্তন্যপান নিয়ে বিতর্কের ঘটনা এই প্রথম নয় ৷ এর আগেও সমালোচনা হয়েছে বহুবার ৷ কেরলের এক জনপ্রিয় ম্যাগাজিন গৃহলক্ষ্মীতে স্তন্যপানের ছবি কভার করায়, তুমুল সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল ম্যাগাজিনের এডিটরকে ৷

    First published: