এবার ক্রুজেই যাওয়া যাবে গঙ্গাসাগর, উদ্যোগ IRCTC-এর

এবার ক্রুজেই যাওয়া যাবে গঙ্গাসাগর, উদ্যোগ IRCTC-এর
Representative Image

বিলাসবহুল ক্রুজেই এবার গঙ্গাসাগর যাওয়া যাবে

  • Share this:

Abir Ghoshal

#কলকাতা:  বিলাসবহুল ক্রুজেই এবার গঙ্গাসাগর যাওয়া যাবে। তেমনটাই আয়োজন করছে IRCTC। আপাতত জানুয়ারি মাস থেকে মার্চ মাস অবধি মিলবে এই পরিষেবা। মুলত বিদেশি পর্যটক টানাই লক্ষ্য এই ট্রিপের।

কথায় ছিল সব তীর্থ বারবার, গঙ্গাসাগর একবার। যদিও রাজ্য সরকারের পরিকল্পনায় গঙ্গাসাগর যাওয়া এখন অনেকটাই সহজ হয়ে গেছে। তবুও বাস ও ভেসেল বদলে যেতে গিয়ে অসুবিধায় পড়েন অনেকেই। আর মেলার সময় তো কোনও কথাই নেই। গোটা দেশের মানুষ এসে ভিড় করেন এখানে। মেলা দেখতে আসেন বিদেশিরাও। এবার তাদের কথা চিন্তা করে ক্রুজে গঙ্গাসাগর নিয়ে যাচ্ছে IRCTC।

আই আর সি টি সি গ্রুপ জেনারেল ম্যানেজার দেবাশিষ চন্দ্র জানাচ্ছেন, “শুধু ভারতীয় নয় বিভিন্ন দেশ থেকে মানুষ এই মেলা দেখতে আসেন। তারা চান একেবারে ভালো করে মন্দির দেখতে। অনেকে তো আবার স্নান করতে চান তাই আমরা জলপথে নিয়ে গিয়ে এটা দেখাব।”

গঙ্গাসাগর যাওয়ার জন্য প্রথম ক্রুজ ছাড়বে ১৪ জানুয়ারি। এরপর জানুয়ারি মাসের ১৭ ও ২৭ তারিখ। তার পরের মাসে ১৮ তারিখ ও মার্চ মাসের ২৪ তারিখ কলকাতা থেকে গঙ্গাসাগরের মধ্যে চলবে এই বিলাসবহুল জলযান।

Representative Image Representative Image

কলকাতা মিলেনিয়াম পার্ক জেটি থাকে ছাড়বে এটি। বিকেলের দিকে ছাড়বে এটি। পৌছবে ওই দিন রাতে। পরের দিন মন্দির দর্শন, স্নান ও মেলা দেখানোর পরে আবার রাতে কলকাতায় ফিরবে এটি। মোট ২৬ টি ঘর আছে এই  জলযানে। তবে খরচ একটু বেশিই। থাকা খাওয়া ঘরে দু’জনের জন্য মাথাপিছু ১৬৯২৫ টাকা করে। তিনজন একটি ঘর নিলে মাথা পিছু খরচ পড়বে ১৩৫৫০ টাকা । এছাড়া বাচ্চার জন্য আলাদা খাট নিলে খরচ পড়বে ৬৭৮০ টাকা। বাচ্চা থাকবে অথচ খাট না লাগলে খরচ পড়বে ৩৯২৫ টাকা। তবে এই সুবিধা ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী বাচ্চাদের জন্য। এছাড়া প্যাকেজে থাকছে ব্রেকফার্স্ট, দুপুরের খাবার ও রাতের খাবার। তবে সবটাই নিরামিষ খাবার। এছাড়া সন্ধ্যা বেলায় থাকবে ভজন-কীর্তনের ব্যবস্থা।

ক্রুজের প্রতিটি ঘর গঙ্গামুখী হলেও সময় কাটানোর জন্য থাকছে আরও নানা ব্যবস্থা। থাকছে স্পা, জিম ও লাইব্রেরি। ভেতরে আছে একটা বার। তবে মেলার সময় এটা বন্ধ রাখা হবে। এক দিন, দুই রাত্রির এই ট্রিপের জন্য অনেকেই আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বলে জানাচ্ছে আই আর সি টি সি। ‘যা সুবিধা দেওয়া হয়েছে তাতে প্রত্যেকেই খুশি হবেন’, দাবি দেবাশিষ চন্দ্রের।

জোয়ার ভাটার ওপর নির্ভর করে এই অংশে ভেসেল চলাচল। ফলে কলকাতা থেকে প্রায় ৮ ঘন্টা যেতে ও আসতে সময় নেবে এটি। বেসরকারি সংস্থার এই জলযান অবশ্য সুন্দরবনে যাতায়াত করছে এখন। যারা যাবেন তাদের মন্দির দেখানোর জন্য থাকছে গাইড। দশজন পিছু একজন করে গাইড দেওয়া হবে। এমনকি স্নান করার সময় নিরাপত্তার জন্য থাকছে গাইড।

বর্ষার সময় বাদ দিয়ে সারাবছর এই ক্রুজ চালাবার পরিকল্পনা করছে IRCTC । তারা আশাবাদী যাত্রী পেতে কোনও অসুবিধা হবে না। আর বেশি যাত্রী হলে আগামীদিনে কমতে পারে ভাড়া ।

First published: 05:08:07 PM Dec 04, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर