corona virus btn
corona virus btn
Loading

জলপাইগুড়ি শিশুপাচারকাণ্ডে প্রভাবশালী নেতা-নেত্রীদের তলবের প্রস্তুতি

জলপাইগুড়ি শিশুপাচারকাণ্ডে প্রভাবশালী নেতা-নেত্রীদের তলবের প্রস্তুতি

জলপাইগুড়ি শিশু পাচার কাণ্ডে সিআইডি দফতরে ফের রুনু চক্রবর্তী ৷ চন্দনা চক্রবর্তীর হোমের প্রাক্তন প্রোজেক্ট ম্যানেজার রুনু ৷

  • Share this:

#কলকাতা: জলপাইগুড়ি শিশু পাচার কাণ্ডে সিআইডি দফতরে ফের রুনু চক্রবর্তী ৷ চন্দনা চক্রবর্তীর হোমের প্রাক্তন প্রোজেক্ট ম্যানেজার রুনু ৷ সিআইডি দফতরে আনা হয় আরও ৩ ধৃতকে -জুহি চৌধুরী, মৃণাল ঘোষ এবং চিকিৎসক দেবাশিস চন্দকে ৷ জলপাইগুড়ি শিশু পাচার কাণ্ডে মৃণাল ঘোষের ফ্ল্যাটে তল্লাশি চালায় সিআইডি আধিকারিকরা ৷ মৃণাল ঘোষ দার্জিলিঙের শিশু সুরক্ষা আধিকারিক ছিলেন ৷ ধৃত দার্জিলিঙের DCPO মৃণাল ঘোষের স্ত্রী সাস্মিতা এবার সিআইডি নজরে। জলপাইগুড়ির এই DCPO-কে রবিবার সাসপেন্ড করা হয়েছে। মৃণাল ও আরেক ধৃত চিকিৎসক দেবাশিস চন্দের বিরুদ্ধে শিশুপাচারের যোগ আরও স্পষ্ট হয়েছে। ৭০-টির মধ্যে ১৭-টি শিশুপাচারে এই দু’জনের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। চন্দনার হোমের প্রাক্তন কর্মী রুনু চক্রবর্তীকে জেরা করে তৈরি হচ্ছে পাচার হওয়া শিশুদের ক্রেতাদের তালিকা। জলপাইগুড়ি শিশুপাচারের তদন্তে নেমে অভিযুক্তদের হদিশ পেয়েছে সিআইডি। এবার পাচার হওয়া শিশুদের ক্রেতাদের তালিকা তৈরি করতে শুরু করেছে সিআইডি। তদন্তে নেমে গোয়েন্দারা জানতে পেরেছেন,

২০১৪-১৫ সালে বিমলা শিশুগৃহ থেকে ১৭টি শিশুকে পাচার করেছিলেন হোমের কর্ণধার চন্দনা চক্রবর্তী। শিশু বিক্রি করতে সরাসরি সাহায্য নেওয়া করেছিলেন দার্জিলিঙের ডিসিপিও মৃণাল ঘোষ। মৃণালের নির্দেশেই শিশুপাচারে সাহায্য করেন জেলার শিশুকল্যাণ কমিটি সদস্য-চিকিৎসক দেবাশিস চন্দ। আগে মৃণাল ও চন্দনা দু'জনেই এনজেপির কনসার্ন হোমের সঙ্গে জড়িত ছিলেন জেরায় ধৃতেরা পাচারচক্রে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে বলে সিআইডি সূত্রে খবর। তদন্তের পরবর্তী ধাপে বেআইনি ভাবে দত্তক নেওয়া ১৭টি পরিবারকে খুঁজছেন গোয়েন্দারা। সেই লক্ষ্যেই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে জলপাইগুড়ির ডিসিপিও সাস্মিতা ঘোষের ভূমিকা। শিশুপাচারে নাম জড়ানোয় যাঁকে রবিবারই সাসপেন্ড করেন জলপাইগুড়ির জেলাশাসক রচনা ভগৎ। এদিন সাস্মিতাকে ফের দীর্ঘক্ষণ জিজ্ঞাসাবাদ করে সিআইডি। জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় চন্দনার হোমের প্রাক্তন কর্মী রুনু চক্রবর্তীকেও। এই দু'জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেই পাচার হওয়া ১৭টি শিশুর ঠিকানার খোঁজ চালাচ্ছে সিআইডি। একইসঙ্গে শিশুপাচারচক্রে নাম জড়ানো প্রভাবশালীদের জিজ্ঞাসাবাদ করতে চান তদন্তকারীরা। দু'এক দিনের মধ্যেই তাঁদের নোটিস পাঠানো হবে বলে সিআইডি সূত্রে খবর।

First published: March 6, 2017, 2:30 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर