মাধ্যমিকের প্রশ্ন ফাঁসে জড়িত কারা? তদন্তে বেরিয়ে এল অবাক করা তথ্য

মাধ্যমিকের প্রশ্ন ফাঁসে জড়িত কারা? তদন্তে বেরিয়ে এল অবাক করা তথ্য
  • Share this:

#কলকাতা: মাধ্যমিকে ভৌতবিজ্ঞান পরীক্ষা শুরু এক ঘণ্টার মধ্যেই হোয়াটস অ্যাপে ঘুরতে থাকে প্রশ্নপত্রের কিছু অংশ ৷ সেই ঘটনার তদন্তে উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য ৷ বিভাগীয় এক কর্মীর মোবাইলে ভৌতবিজ্ঞান প্রশ্নের ছবি তুলে তা ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে ৷ কলকাতা হাইকোর্টে শুক্রবার এই তথ্য জানালেন রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল ৷

সর্ষের মধ্যেই ভূত। তবুও মাধ্যমিকের প্রশ্ন ফাঁস মানতে নারাজ রাজ্য। পরীক্ষার আগেই প্রশ্নের ছবি তোলেন শিক্ষা দফতরের এক কর্মী। অভ্যন্তরীণ অনুসন্ধানে প্রমাণিত এই তথ্য। হোয়াটস অ্যাপে তো এভাবেই ফাঁস হয় প্রশ্ন? মন্তব্য হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির।

গত পয়লা মার্চ, মাধ্যমিকের ভৌতবিজ্ঞান পরীক্ষার দিন প্রশ্ন ফাঁস হয়ে যাওয়ার অভিযোগ ওঠে ৷ কিন্তু পর্ষদ জানায়, পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর প্রশ্ন বাইরে গিয়েছে ৷ পরীক্ষা বাতিলের সম্ভাবনা খারিজ করে দেয় মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ৷ কিন্তু মাধ্যমিকের প্রশ্নফাঁস নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে দায়ের হয় জনস্বার্থ মামলা ৷ সেই মামলার শুনানিতেই এদিন উঠে এল প্রশ্নফাঁসে বিভাগীয় কর্মীর জড়িত থাকার তথ্য ৷

তদন্তে রিপোর্টে প্রকাশ,

মালদহ জেলার রতুয়া ব্লকের স্কুল থেকেই প্রশ্ন বেড়িয়েছে

মাধ্যমিক পরীক্ষা শেষ হওয়ার কিছুদিন পরই মালদহ জেলার জেলা শাসক রিপোর্ট পাঠান স্কুল শিক্ষসচিবকে

জেলা শাসক জানিয়েছেন খবর আসার পরই তিনি স্কুলে যান

স্কুলের শিক্ষিকাদের মোবাইল ফোন বাজেয়াপ্ত করা হয়

আরও পড়ুন 

পরীক্ষা শুরুর ১ ঘণ্টার মধ্যেই হোয়াটস অ্যাপে মাধ্যমিকের প্রশ্নপত্র ফাঁস!

ঘটনার শুরু থেকে প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ মানতে নারাজ রাজ্য ৷ পর্ষদ জানায়, পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর প্রশ্ন বাইরে গিয়েছে ৷ অথচ অভিযোগ, পয়লা মার্চ ভৌতবিজ্ঞান পরীক্ষা শুরুর এক ঘণ্টা সময় পেরতে না পেরতেই হোয়াটস অ্যাপে ঘুরে বেড়াতে দেখা যায় ওই দিনের পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ৷

আরও পড়ুন

এবার থেকে বাড়ির পাশেই অধ্যাপকদের চাকরি, ঘোষণা শিক্ষামন্ত্রীর

অস্থায়ী প্রধান বিচারপতি নিশিথা মাত্রের কাছে তিরস্কৃত রাজ্য ৷ অস্থায়ী প্রধান বিচারপতির মন্তব্য, ‘পরীক্ষা শুরুর আগে মোবাইলে ছবি তোলা হয়েছে,আর তা ফাঁস হয়নি,এমনটা ভাবার কোনও কারণ আছে কি?এভাবেই তো প্রশ্ন ফাঁস হয় ৷’একইসঙ্গে প্রশ্ন ফাঁসকাণ্ডে বুধবারের মধ্যে রাজ্যের কাছে অনুসন্ধান রিপোর্ট তলব করেছে কলকাতা হাইকোর্ট ৷

First published: 05:43:03 PM May 12, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर