corona virus btn
corona virus btn
Loading

শীঘ্রই অনলাইনে বাধ্যতামূলক ক্লাস নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে এই স্কুলগুলিকে

শীঘ্রই অনলাইনে বাধ্যতামূলক ক্লাস নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে এই স্কুলগুলিকে
প্রতীকী চিত্র ।
  • Share this:

SOMRAJ BANDOPADHYAY #কলকাতা: লকডাউন সত্বেও পড়ুয়াদের পঠন-পাঠন সচল রাখতে চায় আইসিএসই বোর্ড। যার জন্য দেশজুড়ে আইসিএসই বোর্ড অনুমোদিত স্কুলগুলিকে একাধিক গাইডলাইন দেওয়া হল। বিশেষত পড়ুয়াদের মানসিক অবসাদ কাটানোর এবং প্রয়োজনীয় বিভিন্ন ক্লাস গুলি অ্যাপসের মাধ্যমে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। বিশেষত স্কুলগুলি যাতে খুব শীঘ্রই অনলাইনের মাধ্যমে ক্লাস নিতে পারে সেদিকেও সচেষ্ট হতে বলা হল প্রত্যেকটি স্কুলকে।

যদিও ইতিমধ্যেই কলকাতার আইসিএসসি বোর্ড অনুমোদিত একাধিক স্কুল অনলাইনের মাধ্যমে ক্লাস নেওয়া শুরু করেছে। কিন্তু এবার বোর্ডের তরফে সব স্কুলকেই এই পরামর্শ দেওয়া হল।এ প্রসঙ্গে বোর্ডের তরফে জানানো হয়েছে  "লকডাউন এর জেরে পড়ুয়াদের পঠন-পাঠনের  যাতে ক্ষতি না হয় তার জন্যই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।" এ প্রসঙ্গে স্কুলগুলির কি কি করনীয় সে সম্পর্কেও বিস্তারিত গাইডলাইন দেওয়া হয়েছে আইসিএসই বোর্ডের তরফে।

দেশজুড়ে ক্রমশই বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। এ রাজ্যেও ক্রমশই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনাভাইরাস এ আক্রান্তের তালিকা। ইতিমধ্যেই আগামী ১৫ই এপ্রিল পর্যন্ত দেশজুড়ে লকডাউন এর ডাক দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।  পাশাপাশি দেশজুড়ে সিবিএসই, আইসি এসই, আইএসসি-র মত পরীক্ষাগুলি পিছিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। স্কুলগুলো ১৫ই এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ রাখারও  নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তার মধ্যে ইতিমধ্যেই কলকাতার কয়েকটি স্কুল ধাপে ধাপে অনলাইনে ক্লাস নেওয়া শুরু করেছে। কিন্তুুু একটি বা দুটি স্কুল নয়, প্রত্যেকটি স্কুলকেই অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছে আইসিএসই বোর্ড। বোর্ডের তরফে বলা হচ্ছে:

১) কোন নির্দিষ্ট সময়সীমা নয়, যতটা সম্ভব বিভিন্ন ক্লাসের পড়ুয়াদের অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার ব্যবস্থা করা। ২) বর্তমানে অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার জন্য বিভিন্ন অ্যাপস রয়েছে। সেই অ্যাপসগুলিকে ব্যবহার করেও ক্লাস নেওয়া যেতে পারে। ৩) স্টাডি মেটেরিয়াল হিসেবে  কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকেরই পোর্টাল গুলো ব্যবহার করা যেতে পারে। ৪) অনলাইনে ছাত্র ছাত্রীদের সঙ্গে কথা বলার জন্য বিভিন্ন অ্যাপস ইতিমধ্যেই রয়েছে। শিক্ষক-শিক্ষিকারা সেগুলো ব্যবহার করতে পারেন বা নিজেদের ডেস্কটপ থেকেও অনলাইনে কথা বলতে পারেন ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে। ৫) ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশোনার জন্য আইসিএসসি বোর্ড-এর ওয়েবসাইটে আগে নেওয়া পরীক্ষা গুলির প্রশ্নপত্র, মডেল প্রশ্নপত্র, কিভাবে নম্বর  বেশি তোলা যায়  তার বিশ্লেষণ, এগুলি ছাত্র-ছাত্রীরা প্রয়োজন বিশেষে দেখতে পারেন। ৬) এই লকডাউনের সময় গুলিতে শিক্ষক-শিক্ষিকারা বিভিন্ন অ্যাসেসমেন্ট করতে পারেন যেগুলি ছাত্র-ছাত্রীদের কাজে লাগবে। ৭) এই   লকডাউনের সময় প্রোজেক্ট ওয়ার্ক বিভিন্ন বিষয় দেওয়া যেতে পারে। প্রজেক্ট ওয়ার্কের বিষয় হিসেবে যেগুলি বাড়িতে বসেই করা সম্ভব সেগুলি যেন দেওয়া হয়।

ইতিমধ্যেই বোর্ডের তরফে দেওয়া গাইডলাইন গুলো কে স্বাগত জানাচ্ছেন কলকাতার একাধিক আইসিএসই বোর্ড অনুমোদিত স্কুলগুলি।

First published: April 1, 2020, 9:56 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर